ফ্রি-তে খেতে রেলের খাবারে টিকটিকি মেশাতেন বৃদ্ধ!

রেলের খাবারে পোকামাকড় ইত্যাদি কিছু পরে গেলে টাকা মুকুব করে দেয় রেল। আর সেই সুযোগটাই নিতেন সুরেন্দ্র পাল নামে এক বৃদ্ধ। খাবারে টিকটিকি পরে গিয়েছে বলে চিৎকার-চেঁচামেচি এমনকী হুমকির ভয় দেখিয়ে টাকা মুকুব করেছিলেন একবার নয় বারবার।

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Jul 24, 2019 08:23 PM IST
ফ্রি-তে খেতে রেলের খাবারে টিকটিকি মেশাতেন বৃদ্ধ!
Photo : viral News
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Jul 24, 2019 08:23 PM IST

#নয়াদিল্লি: রেলের খাবারে পোকামাকড় ইত্যাদি কিছু পরে গেলে টাকা মুকুব করে দেয় রেল। আর সেই সুযোগটাই নিতেন সুরেন্দ্র পাল নামে এক বৃদ্ধ। খাবারে টিকটিকি পরে গিয়েছে বলে চিৎকার-চেঁচামেচি এমনকী হুমকির ভয় দেখিয়ে টাকা মুকুব করেছিলেন একবার নয় বারবার। কিন্তু পরপর দুটি স্টেশনে একই ঘটনা কারাটাই তাঁর কাল হল।

জব্বলপুরে এবং গুন্টকাল স্টেশনে একই ঘটনা ঘটায় সন্দেহ হয় রেলের ডিভিশনার কমার্শিয়াল ম্যানেজারের। তিনি রেল ডিভিশনের কর্মীদের সুরেন্দ্র পাল নামে বৃদ্ধর ছবি পাঠিয়ে সতর্ক করে দিয়েছিলেন, আর তাতেই জানা গেলে নিজেই খাবারে তিনি নিজেই টিকটিকি মেশাতেন। ফ্রিতে খাবার খেতেই তিনি এমনটা করতেন বলে জানা গেছে।

এদিকে জব্বলপুরের রেল আধিকারিক জানান, ‘১৪ জুলাই জবলপুর স্টেশনে তিনি যে সিঙারা খেয়েছিলেন, তাতে টিকটিকি পড়েছে বলে দাবি করেন তিনি। এরপর গুন্টকাল স্টেশনে তিনি দাবি করেন, তাঁকে দেওয়া নিরামিষ বিরিয়ানিতেও একটি টিকটিকি মিলেছে। এতেই সন্দেহ হওয়ায় সিনিয়র ডিসিএম-কে সতর্ক করি আমরা। তদন্তে জানা যায়, একই ব্যক্তি এমন কাজ করছেন। আসলে বিনামূল্যে খাবার পাওয়ার জন্য এই কাজ করেন সত্তরোর্ধ্ব এই বৃদ্ধ।’

ধরা পরার পর বৃদ্ধ বলেন, ‘আমি ভুল করেছি। আমি একজন বৃদ্ধ ও মানসিক ভারসাম্যহীন। আমার ব্লাড ক্যান্সারও রয়েছে। ওটা টিকটিকি নয়, আমি মানসিক অসুস্থতার জন্য একধরনের মাছ খাই ওটা সেই মাছই। দয়া করে আমায় ছেড়ে দিন।’ রেল আধিকারিকের সঙ্গে বৃদ্ধর কথোপকথনের ওই ভিডিওর বক্তব্যের সত্যতা অর্থাৎ ঐ বৃদ্ধ আদেও অসুস্থ কিনা এখনও সেটা জানা যায়নি।

First published: 08:23:40 PM Jul 24, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर