আর্থিক সমীক্ষা পেশ সংসদে, গত ১১ বছরে বৃদ্ধির হার সর্বনিম্ন

আর্থিক সমীক্ষা পেশ সংসদে, গত ১১ বছরে বৃদ্ধির হার সর্বনিম্ন

বৃদ্ধির হার তলানিতে। সঙ্গে অর্থনীতিতে একগুচ্ছ সমস্যা। কেন্দ্র স্বীকার না করলেও যা কার্যত আর্থিক মন্দার লক্ষণ বলেই জানাচ্ছেন অর্থনীতিবিদদের একটি বড় অংশ।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আর্থিক বৃদ্ধির হার বাড়াতে একাধিক পথ নিয়েছে কেন্দ্র। সেই দাওয়াইতে কী গতি ফিরবে অর্থনীতিতে? আর্থিক সমীক্ষা রিপোর্ট জানাল, বৃদ্ধির হারকে রাতারাতি টেনে তোলার কোনও আশা নেই। আগামী ৩-৪ বছরে ৫ লক্ষ কোটি ডলারের অর্থনীতি হয়ে ওঠাও বেশ কঠিন।

ঠিক একবছর আগে মুখ্য আর্থিক পরামর্শদাতা কেভি সুব্রহ্ম্যমের আর্থিক সমীক্ষা রিপোর্ট জানিয়েছিল, বৃদ্ধির হার হবে ৭ শতাংশ। শুক্রবার সেই পূর্বাভাস কাটছাঁট করে ৫ শতাংশে নামিয়ে আনলেন মুখ্য আর্থিক পরামর্শদাতা। যা গত ১১ বছরে সবচেয়ে কম। তাঁর তৈরি আর্থিক সমীক্ষা রিপোর্ট জানাল, চলতি বছরে বৃদ্ধির হার হবে ৫ শতাংশ ৷ ২০২০-২১ সালে বৃদ্ধির হার হবে ৬ থেকে ৬.৫ শতাংশ ৷

বৃদ্ধির হার তলানিতে। সঙ্গে অর্থনীতিতে একগুচ্ছ সমস্যা। কেন্দ্র স্বীকার না করলেও যা কার্যত আর্থিক মন্দার লক্ষণ বলেই জানাচ্ছেন অর্থনীতিবিদদের একটি বড় অংশ। সমস্যা সমাধানে পথ দেখানোর চ্যালেঞ্জ ছিল মুখ্য আর্থিক উপদেষ্টার সামনে। এক্ষেত্রে মূলত ৫টি দাওয়াইয়ের কথা বলেছেন সুব্রহ্মণ্যম

ছোট ও মাঝারি শিল্পকে গুরুত্ব বেসরকারি সংস্থায় ন্যূনতম সরকারি হস্তক্ষেপ চিনের ধাঁচে এক্সপোর্ট জোন তৈরি নন-ব্যাঙ্কিং সংস্থার পরিচলন নীতিতে বদল কৃষি ও কৃষি বিপণনে আমূল সংস্কার ২০২৪ সালের মধ্যে ৫ লক্ষ কোটি ডলারের অর্থনীতি হয়ে ওঠার লক্ষ্যমাত্রা মোদি সরকারের। এই পরিস্থিতিতে কী সেটা সম্ভব? আশার কথা শোনাতে পারেননি মুখ্য আর্থিক উপদেষ্টা। তাঁর দাবি, ব্যবসার পরিবেশ আরও উন্নত হচ্ছে কিনা ও বেসরকারি ক্ষেত্রে সরকারি হস্তক্ষেপ কতটা কমল ৷

তার ওপরই নির্ভর করবে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ । অর্থনীতিবিদরা বলছেন, কার্যত পুরনো তত্ত্বই অন্য মোড়কে পেশ করেছেন সুব্রহ্মণ্যম। তাদের আরও অভিযোগ, শিকোগা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তনী সমীক্ষা রিপোর্টে বহু প্রশ্নই এড়িয়ে গিয়েছেন। কোন পথে চাহিদা বাড়ানোর পরিকল্পনা? উৎপাদন ক্ষেত্র চাঙ্গা হবে কিভাবে? আর্থিক ক্ষেত্র বিশেষত ব্যাঙ্কের অনুৎপাদক সম্পদ নিয়ে কি ভাবনা? যাঁরা চাকরি হারিয়েছেন, তাদের নতুন কাজের ব্যবস্থা কোথা থেকে হবে? বিনিয়োগ বাড়ানো নিয়েই বা কী ভাবনা?

কেভি সুব্রহ্মণ্যম উত্তর এড়াতেও জল্পনা উসকে দিয়েছেন প্রাক্তন আর্থিক উপদেষ্টা। অরবিন্দ সুব্রহ্মণ্যমের অভিযোগ, ইউপিএ- আমলে ব্যাঙ্কের ভরাডুবির ধাক্কা এখনও সামলে ওঠা যায়নি। ব্যাঙ্কের অবস্থা শুধরোলেই ট্রাকে ফিরবে অর্থনীতি। কিন্তু হবে, কীভাবে? সেই দিশা দেখানোর দায়িত্ব নির্মলা সীতারামনের বাজেটের।

First published: January 31, 2020, 6:01 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर