corona virus btn
corona virus btn
Loading

নির্বাচনে স্বচ্ছতা আনতে ১৬ লক্ষ ১৫ হাজার ভিভিপ্যাট কিনছে কমিশন

নির্বাচনে স্বচ্ছতা আনতে ১৬ লক্ষ ১৫ হাজার ভিভিপ্যাট কিনছে কমিশন

২০১৯ সালে লোকসভা ভোট ৷ আর তার আগেই নির্বাচনী পদ্ধতিতে সংস্কারের জন্য নড়ে চড়ে বসেছে নির্বাচন কমিশন ৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ২০১৯ সালে লোকসভা ভোট ৷ আর তার আগেই নির্বাচনী পদ্ধতিতে সংস্কারের জন্য নড়ে চড়ে বসেছে নির্বাচন কমিশন ৷ এবার নির্বাচনে স্বচ্ছতা আনতে তাই নতুন পদক্ষেপ নিল নির্বাচন কমিশন ৷ EVM-এর জন্য ১৬ লক্ষ ১৫ হাজার ভিভিপ্যাট কিনছে কমিশন ৷ এতে ভোটার দেখতে পাবেন কাকে ভোট দিলেন তিনি আগামি ২ বছরে কেনা হবে ভিভিপ্যাট মেশিনগুলি ৷ কেনার কথা জানিয়ে বিজ্ঞপ্তি দিল নির্বাচন কমিশন ৷ পরশু কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা ভিভিপ্যাট কিনতে সায় দেয়

BEL এবং ECIL-এর থেকে সমান সংখ্যক ভিভিপ্যাট ৷ এতে খরচ হবে ৩,১৭৩ কোটি ৪৭ লক্ষ টাকা ৷

আপনি ইভিএমে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিলেন। কিন্তু, সত‍্যিই কী আপনার ভোট সেই প্রার্থীই পেলেন? অনিশ্চয়তা কাটাতে নির্বাচন কমিশন এবং বিরোধী দলগুলির দাবি ছিল, ভোট দেওয়ার পর ইভিএম মেশিন থেকে একটা চিরকুট বেরিয়ে আসুক। যাতে দেখা যাবে কাকে ভোট দেওয়া হল। এই ধরণের মেশিনকে বলা হয় পেপার ট্রেইল মেশিন।

নির্বাচন কমিশনের দাবি মতো এবার সেই পেপার ট্রেইল মেশিনের জন্য ৩১৭৩ কোটি টাকা মঞ্জুর করল কেন্দ্রীয় সরকার। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠকে পেপার ট্রেইল মেশিনের জন্য অর্থ মঞ্জুর করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশন আগেই জানিয়েছে, দেশের সব পোলিং স্টেশনে পেপার ট্রেইল মেশিন বসাতে প্রায় ১৬ লাখ মেশিন লাগবে। খরচ পড়বে প্রায় ৩১৭৪ কোটি টাকা।

২০১৪ সাল থেকে সরকারের কাছে বহুবার পেপার ট্রেইল মেশিনের জন্য অর্থ মঞ্জুরের দাবি জানিয়ে এসেছে ৷ অবশেষে সেই অর্থ মঞ্জুর করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে কেন্দ্রী মন্ত্রিসভার বৈঠকে ৷ নির্বাচন কমিশনের তরফে জানানো হয়েছে১৬ লক্ষ VVPAT মেশিন তৈরির জন্য প্রায় ৩০ মাস সময় লাগবে ৷

First published: April 23, 2017, 4:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर