corona virus btn
corona virus btn
Loading

নিজের উদ্যোগে সোলার প্যানেল বসিয়ে বাজিমাত রেল কর্তার! কমল ইলেক্ট্রিক বিল 

নিজের উদ্যোগে সোলার প্যানেল বসিয়ে বাজিমাত রেল কর্তার! কমল ইলেক্ট্রিক বিল 

রেলের বার্ষিক যা খরচ হয়, তার একটা বড় অংশ জুড়ে থাকে বিদ্যুতের খরচ। বিভিন্ন স্টেশনের পাশাপাশি আধিকারিকদের বাংলো সবেতেই বেড়েছে এই খরচ। এই অবস্থায় খরচ কমানোর জন্যে বড়সড় পদক্ষেপ নিল রেল।

  • Share this:

#কলকাতা: আয় কমছে ভারতীয় রেলের। তাই খরচে রাশ টানতে বিদ্যুতের বিল সাশ্রয় করছে পূর্ব রেল। বড় স্টেশন থেকে অফিসারদের বাংলো, সবটাই সোলার বসানো হচ্ছে। এর ফলে হাওড়া স্টেশন থেকে বার্ষিক কোটি টাকা লাভ হচ্ছে। একই সঙ্গে একটি বাংলো থেকে লাভ হচ্ছে বছরে ৩৬ হাজার টাকা। ভারতীয় রেল প্রতিদিন তাদের খরচ কমানোর জন্যে একাধিক পন্থা নিচ্ছে। রেলের বার্ষিক যা খরচ হয়, তার একটা বড় অংশ জুড়ে থাকে বিদ্যুতের খরচ। বিভিন্ন স্টেশনের পাশাপাশি আধিকারিকদের বাংলো সবেতেই বেড়েছে এই খরচ। এই অবস্থায় খরচ কমানোর জন্যে বড়সড় পদক্ষেপ নিল রেল।

পূর্ব রেলে এই কাজ শুরু করেছেন এজিএম সঞ্জয় সিং গেহলৌত। গার্ডেনরিচে রেলের বাংলোয় থাকেন এজিএম। সেখানে তিনি নিজের উদ্যোগেই ছাদে উইন্ডমিল, সোলার প্যানেল বসিয়েছেন। যার সাহায্যে সোলার হিটার, সোলার টাব সমস্ত কিছু ব্যবহার করতে পারছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ছাদে বসানো একটা বাটারফ্লাই সোলার প্যানেল। পূর্ব রেলের এজিএম সঞ্জয় সিং গেহলৌত জানিয়েছেন, "সূর্য তাপ থেকে সরাসরি যা বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে, তা থেকে স্নান, রান্না, বাসন মাজা সব কাজ হয়ে যাচ্ছে। এমনকি বাড়িতে যা ইলেকট্রিক অ্যাপ্লায়েন্স আছে তার জন্যে যতটা বিদ্যুৎ প্রয়োজন সবটাই সেরে ফেলা যাচ্ছে।"

হিসেব বলছে আগে এই সবের জন্যে মাসে বিদ্যুতের বিল আসত প্রায় ৫০০০ টাকা। সোলার ব্যবহারের ফলে এক ধাক্কায় সেটা ২০০০ টাকা নেমে এসেছে। ফলে বছরে ৩৬০০০ টাকা সাশ্রয় হচ্ছে একটি বাংলো থেকে। আগামী দিনে সব বাংলোয় এটা ব্যবহার করলে মোটা অঙ্কের টাকা বাঁচবে রেলের।  সঞ্জয় বাবুর আবেদন, এই মডেল এখন মানা উচিত। ইতিমধ্যেই ভারতীয় রেল গোটা দেশ জুড়ে সোলারের ওপরে গুরুত্ব দিচ্ছে। কিছু বছর আগে থেকেই রেলের স্টেশন, ভবন সহ একাধিক জায়গায় এল ই ডি ব্যবহার শুরু হয়েছিল। এবার আধিকারিকরা নিজেরাই সোলার নিয়ে কাজ শুরু করায় খরচ অনেকটাই বাঁচবে বলে মত রেল মন্ত্রকের।

Published by: Pooja Basu
First published: August 14, 2020, 10:50 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर