‘‘ কেন সবসময় মেকআপ করাবেন একজন পুরুষ এবং মহিলা থাকবেন হেয়ারড্রেসার হয়েই?’’

দিয়া মির্জা, ছবি-ফেসবুক

এ বার তিনি কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন নিজের প্রথম ছবি ‘রেহনা হ্যায় তেরে দিল মেঁ’ ছবিকেই ৷ নায়িকার অভিযোগ, ছবিটিও লিঙ্গবৈষম্য দোষে দুষ্ট ৷

  • Share this:

    মুম্বই : অভিনেত্রী দিয়া মির্জা বরাবরই নারীবাদী বলে পরিচিত ইন্ডাস্ট্রিতে ৷ এর আগেও তিনি সরব হয়েছেন পুরষশাসিত ইন্ডাস্ট্রিতে কাজের ক্ষেত্রে লিঙ্গ বৈষম্য নিয়ে ৷ এ বার তিনি কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন নিজের প্রথম ছবি ‘রেহনা হ্যায় তেরে দিল মেঁ’-কেই ৷ নায়িকার অভিযোগ, ছবিটিও লিঙ্গবৈষম্য দোষে দুষ্ট ৷

    রুপোলি দুনিয়ায় কাজের ক্ষেত্রে বহু অংশেই তিনি নারী পুরুষ বৈষম্য তুলে ধরেছেন ৷ তাঁর প্রশ্ন, ‘‘ কেন সবসময় মেকআপ পুরুষরা করাবেন? একজন মহিলাকে সন্তুষ্ট থাকতে হবে হেয়ারড্রেসার হয়েই?’’

    দিয়ার কথায়, তাঁর কেরিয়ারের শুরুর দিনগুলিতে যে কোনও ছবির ইউনিটে মহিলাদের উপস্থিতি ছিল খুব কম ৷ পাশাপাশি,  লেখক, পরিচালক এবং অভিনেতাদের মধ্যেও পুরুষদের প্রতি একপেশে মনোভাব অবচেতন ভাবে হলেও ছিল বলে তাঁর অভিযোগ ৷

    ‘মিস এশিয়া প্যাসিফিক’ শিরোপা জয়ের পরে ২০০০ সালে দিয়ার আত্মপ্রকাশ বলিউডে ৷ মাধবনের বিপরীতে ‘রেহনা হ্যায় তেরে দিল মেঁ’ ছবিতে নায়িকা হিসেবে তাঁর আত্মপ্রকাশ ৷ তার আগে একটি তামিল ছবিতে ছোট ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন তিনি  ৷

    দিয়ার কেরিয়ারে উল্লেখযোগ্য ছবি হল, ‘দীওয়ানাপন’, ‘তুমকো না ভুল পায়েঙ্গে’, ‘দম’, ‘তুমসা নহীঁ দেখা’, ‘মাই ব্রাদার... নিখিল’, ‘লগে রহো মুন্নাভাই’, ‘হে বেবি’, ‘লাক বাই চান্স’, ‘সালাম মুম্বই’ এবং ‘থাপ্পড়’৷ গত দু’ বছরে বেশ কিছু  ওয়েবসিরিজেও  অভিনয় করেছেন তিনি ৷

    দিয়ার প্রথম স্বামী ছিলেন সাহিল সঙ্ঘ ৷ ২০১৪ সালে সাহিলকে বিয়ে করেন দিয়া ৷ ৫ বছর পরে ভেঙে যায় তাঁদের দাম্পত্য ৷ চলতি বছর দিয়া বিয়ে করেছেন ব্যবসায়ী বৈভব রেখিকে ৷ তাঁদের অভিনব পরিবেশবান্ধব বিয়ে প্রশংসিত হয়েছে নেট দুনিয়ায় ৷ এপ্রিল মাসে দিয়া জানান, তিনি তাঁদের প্রথম সন্তানের মা হতে চলেছেন ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: