থমথমে দিল্লি, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪

থমথমে দিল্লি, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪

বন্ধ বাজার, দোকানপাট। আতঙ্কে রাজধানী।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: দিল্লিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে সাতাশ। থমথমে উত্তর-পূর্ব দিল্লির বিস্তীর্ণ এলাকা। বন্ধ বাজার, দোকানপাট। রাস্তায় লোকজনের দেখা নেই বললেই চলে। রাজধানী কার্যত দখল নিয়েছে পুলিশ ও আধাসেনা। রবিবার থেকে অশান্তির সূত্রপাত। CAA বিরোধী ও সমর্থনকারীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ। গতকাল থেকে অশান্তি কিছুটা কমেছে। কিন্তু আতঙ্ক কাটেনি রাজধানীর। কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের পর থেকে কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণে এসেছে উত্তর-পূর্ব দিল্লির পরিস্থিতি।

দিল্লির হিংসায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪। বৃহস্পতিবার আরও তিনজনের মৃত্যুর খবর এসেছে। সোমাবর চারজনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার নয়জনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার তিনজনের মৃত্যু।

হিংসাবিধ্বস্ত এলাকায় উদ্ধার এক কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা অফিসারের দেহ। উপদ্রুত চার এলাকায় কারফিউ। দেখামাত্রই গুলির নির্দেশ। বন্ধ বাজার, দোকানপাট। আতঙ্কে রাজধানী।

দিল্লির হিংসায় সরাসরি কেন্দ্রকে নিশানা সনিয়ার। অমিত শাহর ইস্তফা দাবি। ষড়যন্ত্র করে পরিকল্পিত হিংসা। বিজেপি নেতাদের উসকানিতেই হিংসা। অভিযোগ কংগ্রেস সভানেত্রীর।

বুধবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল বলেন, স্থানীয়রা নয়, দিল্লিতে হিংসা ছড়িয়েছে বহিরাগতরা৷ তিনি বলে, 'দিল্লির মানুষ হিংসা চায় না৷ আম আদমি এই কাজ করেনি৷ দিল্লির হিন্দু, মুসলিমরা শান্তির পক্ষে৷' একই সঙ্গে দিল্লি হিংসায় মৃত পুলিশকর্মী রতন লালের পরিবারকে ১ কোটি টাকা সরকারি সাহায্য ও পরিবারের একজনকে সরকারি চাকরির কথাও ঘোষণা করেন তিনি৷

First published: February 27, 2020, 7:49 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर