পাঠানকোট-উরির পর পুলওয়ামা, জইশকে নিষিদ্ধ ঘোষণার দাবিতে ফের সরব নয়াদিল্লি

Pic: Twitter

ফের ভারতে রক্ত ঝরাল পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-এ-মহম্মদ। পাঠানকোট, উরির পর এবার পুলওয়ামা। এত বড় জঙ্গি হামলা এর আগে কোনও দিন দেখেনি উপত্যকা।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: সংসদে হামলা। পাঠানকোট। উরি। আর এবার পুলওয়ামা। ফের ভারতকে ক্ষতবিক্ষত করল জইশ-এ-মহম্মদ।

    ফের ভারতে রক্ত ঝরাল পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-এ-মহম্মদ। পাঠানকোট, উরির পর এবার পুলওয়ামা। এত বড় জঙ্গি হামলা এর আগে কোনও দিন দেখেনি উপত্যকা।

    জইশের মাথা মাসুদ আজহার ভারতের কাছে দীর্ঘদিনেরই যন্ত্রণা।

    কয়েক দশক আগে কাশ্মীরে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

    কিন্তু, ১৯৯৯ সালে কন্দহর বিমান অপহরণ কাণ্ডের জেরে তাকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় বাজপেয়ী সরকারে।

    এর পরের বছরই, ২০০০ সালে জইশ-এ-মহম্মদ তৈরি করেন মাসুদ আজাহার

    ২০০১ সালের ১৩ ডিসেম্বর সংসদে হামলার অন্যতম প্রধান চক্রীও ছিল এই মাসুদ আজহার।

    সংসদে হামলার বছরেই জইশ দু’টুকরো হয়ে যায়।

    পাক প্রেসিডেন্ট তখন পারভেজ মুশারফ। তিনি আফগানিস্তান থেকে তালিবানি শাসন উৎখাত করতে আমেরিকাকে সাহায্য করছিলেন।

    এতে জইশ-এর অন্দরে বিবাদ শুরু হয়— তারা পাকিস্তানের প্রতি দায়বদ্ধ থাকবে নাকি মুশারফের বিরুদ্ধে যাবে।

    জইশের একাংশ তখন মুশারফকে খুনের ছক কষে

    এরপরই পাক সেনা জইশের বিরুদ্ধে কড়া হতে শুরু করে

    তাদের জঙ্গি কাজকর্ম প্রায় বন্ধ করে দেওয়া হয়

    কিন্তু, দিনে দিনে সেই পরিস্থিতি পালটায়। আবার মাথা তুলে দাঁড়ায় জইশ-এ-মহম্মদ।

    ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে তারা পাঠানকোটে বায়ুসেনা ঘাঁটিতে হামলা চালায়। শহিদ হন সাত জওয়ান

    এরপর, ২০১৬ সালেরই ১৮ সেপ্টেম্বর ফের সামরিক ঘাঁটিতে হামলা। উরির সেনাঘাঁটিতে জইশের হামলায় প্রাণ হারান ১৯ জন সেনা

    আর এবার পুলওয়ামায় ফের ভারতকে রক্তাক্ত করল জইশ-এ-মহম্মদ। জইশের মাথা মাসুদ আজহারকে রাষ্ট্রসংঘের নিষিদ্ধ জঙ্গিদের তালিকায় আনতে লাগাতার চেষ্টা করছে নয়াদিল্লি। কিন্তু, চিনের প্রাচীরে বারবারই তা ধাক্কা খেয়েছে। প্রতিবারই ইসলামাবাদের পাশে দাঁড়িয়েছে বেজিং। এবার, পুলওয়ামার হামলার দায় জইশ স্বীকার করে নেওয়ার পরেও কি চিন একই অবস্থানে অনড় থাকবে? এ দিনের জঙ্গি হামলার পরে আমেরিকা, রাশিয়া, ফ্রান্স থেকে শুরু করে নেপাল, ভুটান, বাংলাদেশ, সব দেশই ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছে। কড়া বার্তা দিয়েছে নয়াদিল্লিও। রাষ্ট্রসংঘের উপর চাপ বাড়িয়ে বিবৃতি জারি করে লেখা হয়েছে

    পাকিস্তানের ভূখণ্ড ব্যবহার করে যে জঙ্গি গোষ্ঠী সক্রিয় তাদের নিষিদ্ধি ঘোষণা করা হোক। জইশের মাথা মাসুদ আজহারকে জঙ্গি হিসেবে চিহ্নিত করুক রাষ্ট্র সংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। এ নিয়ে আন্তর্জাতিক স্তরে সমর্থন চেয়ে ফের আবেদন জানানো হচ্ছে।

    First published: