দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ঠকানোর অভিযোগ ! ইউটিউবার গৌরবের নামে FIR করলেন 'বাবা কা ধাবা'র মালিক কান্তা প্রসাদ !

ঠকানোর অভিযোগ ! ইউটিউবার গৌরবের নামে FIR করলেন 'বাবা কা ধাবা'র মালিক কান্তা প্রসাদ !

গৌরব অনেকটা আলাদিনের চিরাগ হয়ে এসেছিলেন বাবার জীবনে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই গৌরবের নামেই অভিযোগ করলেন কান্তা প্রসাদ।

  • Share this:

#নয়া দিল্লি: বাবা কা ধাবা। এও এক ভাগ্য ফেরার গল্প। এই নামটা শুনলেই এখন ভারতের অনেকেই এক নামে চিনে যান বছর ৮০ সালের কান্তা প্রসাদকে। তিনিই বাবা কা ধাবা নামের একটি ছোট্ট খাবারের দোকানের মালিক। দিল্লিতে প্রায় ৩০ বছর ধরে রয়েছে এই ছোট্ট দোকান। কিন্তু খাবার বিক্রি বলতে তেমন কিছু ছিল না। একটু ডাল, ভাত, তরকারি, রুটি, চা এসবই পাওয়া যেত। দেশে করোনা ভাইরাস আসার পর সব কিছু বন্ধ হয়ে যায়। সে সময় থেকে এক টাকাও বিক্রি ছিল না কান্তা প্রসাদের। বৃদ্ধা স্ত্রীকে নিয়ে কোনওরকমে দিন কাটছিল। সেই কান্তা প্রসাদের দোকানে একদিন পৌঁছে যান ইউটিউবার গৌরব ওয়াসেন। বেশ খুলে যায় ভাগ্য।

গৌরব সারা দেশের এই ভাবে অসহায় দিন কাটানো মানুষদের কথা সামনে নিয়ে আসতে শুরু করে। তার মধ্যে কান্তা প্রসাদও একজন। ভিডিওটি শেয়ার হতেই হাজার হাজার মানুষ এগিয়ে আসেন কান্তাকে সাহায্য করার জন্য। সেলেবরাও তাঁর হয়ে বলে। লম্বা লাইন শুরু হয়ে যায় স্টলের সামনে। জোম্যাটো তাদের লিস্টে 'বাবা কা ধাবা'কে রাখতে শুরু করে। ৩০ বছরে যা হয়নি, তা হয়েছে ওই একটি ভিডিও পোস্ট করার থেকে। গৌরব অনেকটা আলাদিনের চিরাগ হয়ে এসেছিলেন বাবার জীবনে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই গৌরবের নামেই অভিযোগ আনলেন কান্তা প্রসাদ।

কান্তা প্রসাদ দাবি করেছেন, তাঁর নাম করে গৌরব ইউটিউবে টাকা তুলছে। এবং সেই টাকা তাঁকে না দিয়ে গৌরব নিজের কাছে রেখে দিচ্ছে। এমনকি এও অভিযোগ করেন, গৌরব নিজের পরিবারের সদস্যদের অ্যাকাউন্ট নম্বর দিয়ে টাকা তুলছে কান্তা প্রসাদের নামে। এই অভিযোগ নিয়ে থানায় যায় কান্তা প্রসাদ। এই অভিযোগের ভিত্তিতেই আজ দিল্লি পুলিশ গৌরবের নামে কেস ফাইল করে। ইউটিউবে কান্তা প্রসাদের নামে জমা হওয়া ডোনেশনের টাকা সে আত্মসাৎ করেছে। এই অভিযোগে কেস করে পুলিশ। তবে গৌরব ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন তিনি কোনও টাকা নেননি। বাবা কা ধাবার নামে যা টাকা এসেছে সব কান্তা প্রসাদের অ্যাকাউন্টে পাঠিয়ে দিয়েছেন। এবং তখন গৌরব জানান, কান্তা প্রসাদের অ্যাকাউন্টে এর মধ্যেই ২০ লাখ টাকা জমা হয়েছে বিভিন্ন সোর্স থেকে। এখন কান্তার অ্যাকাউন্টে নতুন করে টাকা রাখা যাচ্ছে না। সে নগদ ৭৫ হাজার টাকা কয়েকদিন আগেই দিয়ে এসেছে কান্তাকে। তার কাছে আর কোনও টাকা নেই। তবে গৌরবের এই কথাকে পাত্তা দেননি কান্তা প্রসাদ। শেষ পর্যন্ত কেস করেই ছাড়লেন। গৌরব তাঁর একটি ভিডিও শেয়ার করে বলেন, কান্তা প্রসাদের ব্যবহারে তিনি অবাক। এবার মানুষের উপকার করতে গেলেও ভাবতে হবে। এই জন্যই কেউ এগিয়ে আসে না সাহায্য করতে।

Published by: Piya Banerjee
First published: November 6, 2020, 10:50 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर