• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • আবার বন্ধ ফ্ল্যাটে একাকী বৃদ্ধের পচাগলা দেহ উদ্ধার, প্রতিবেশীরা দুর্গন্ধ পেয়ে খবর দেন পুলিশে

আবার বন্ধ ফ্ল্যাটে একাকী বৃদ্ধের পচাগলা দেহ উদ্ধার, প্রতিবেশীরা দুর্গন্ধ পেয়ে খবর দেন পুলিশে

পুলিশ এসে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়

পুলিশ এসে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়

ফের আবার প্রশ্নের মুখে পুলিশের ‘প্রণাম’ উদ্যোগ। তিন দিন আগে নিজের ফ্ল্যাটে মারা গিয়েছেন ৭৯ বছরের বালা সুব্রহ্মণ্যম। আর সেই দেহের হদিশ পেতেই লেগে গেল ৭২ ঘণ্টা৷

  • Share this:

#কলকাতা: ফের প্রশ্নের মুখে পুলিশের ‘প্রণাম’ উদ্যোগ। তিন দিন আগে নিজের ফ্ল্যাটে মারা গিয়েছেন ৭৯ বছরের বালা সুব্রহ্মণ্যম। আর সেই বৃদ্ধের হদিশ পেতেই লেগে গেল ৭২ ঘণ্টা৷ যাদবপুর থানার গল্ফগ্রিনের একটি আবাসনের ফ্ল্যাটে একাই থাকতেন তিনি। গত তিনদিন দেখতে পাওয়া যায়নি তাঁকে। কিন্তু পাশের ফ্ল্যাটের প্রতিবেশীরা এদিন তাঁর ফ্ল্যাট থেকে দুর্গন্ধ পান৷ তারপর পুলিশে খবর দেন তাঁরা। পুলিশ এসে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। মৃতের স্ত্রী প্রয়াত হয়েছেন কয়েক বছর আগে। এক ছেলে ও এক মেয়ে দু’জনেই বিয়ের পর থেকে অন্যত্র থাকে। ছেলে বাবার খোঁজ ঠিক মতো নিতেন না বলে অভিযোগ। প্রয়াত প্রৌঢ় বেশ কিছুদিন ধরে নানা রোগে ভুগছিলেন। কেন্দ্রীয় সরকারের অবসরপ্রাপ্ত কর্মী ছিলেন। ছিল অর্থের টানাটানি। প্রতিবেশী আরও এক বৃদ্ধ বাসিন্দা, রামা মূর্তির জানিয়েছেন, উনিও একা থাকেন। পুলিশের ‘প্রণাম’ প্রকল্প সম্পর্কে কোনও কিছুই জানেন না! স্থানীয়দের বক্তব্য, প্রণাম নিয়ে যথেষ্ট সচেতনতা এখনও তৈরি হয়নি৷ থানা কিংবা স্থানীয় কাউন্সিলরের তরফ থেকে সেরকম কোনো পদক্ষেপও দেখতে পাওয়া যায় না। কিছুদিন আগেই প্রশ্ন উঠেছিল কলকাতায় বৃদ্ধ বৃদ্ধদের নিরাপত্তা নিয়ে। পুলিশের দিকেও অনেকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছিলেন। তারপরই পুলিশ শহরের নিঃসঙ্গ বৃদ্ধ ও বৃদ্ধদের একটি তালিকা বানায়। তাঁদের ফোন নম্বর নিয়ে রাখে, প্রতিদিন সবাইকে সজাগ করার জন্য কর্মশালাও শুরু হয়। কাউন্সিলরদের উদ্যোগে জনসংযোগ বাড়ানো হয়। পুলিশের তরফ থেকে, একজন এএসআই ও কনস্টেবলদের ওপর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, নির্দিষ্ট থানা এলাকার নিসঙ্গ বৃদ্ধ বৃদ্ধদের একটা পঞ্জি বা তালিকা তৈরি করতে। তাঁদের প্রতিদিন খোঁজ রাখতে। কিন্তু গল্ফ গ্রিনের ঘটনায় দেখা গেল পুলিশের সেই উদ্যোগ শুধু দেওয়ালে লেখা বিজ্ঞাপনের মতোই।

 SHANKU SANTRA

Published by:Uddalak Bhattacharya
First published: