Home /News /national /
NEET, JEE স্থগিত করার দাবি আরও জোরাল হচ্ছে, ৪,২০০ পড়ুয়া বাড়ি থেকেই বসবেন অনশনে

NEET, JEE স্থগিত করার দাবি আরও জোরাল হচ্ছে, ৪,২০০ পড়ুয়া বাড়ি থেকেই বসবেন অনশনে

করোনার পরিস্থিতিতে NEET, JEE MAIN, পরীক্ষা স্থগিতের জন্য সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে এদিন আহ্বান জানিয়েছেন ৷ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বুধবার কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধির সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে মমতা বলেন, 'চলুন সবাই মিলে সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে আবেদন করি, যতদিন না পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে, ততদিন পড়ুয়াদের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে পরীক্ষা স্থগিত রাখা হোক৷ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই কাজ করছে কেন্দ্র৷ কিন্তু আদালতের কাছে ফের আবেদন করতে পারে কেন্দ্র৷ পরীক্ষার্থীদের শারীরিক অবস্থার কথা ভাবা হোক৷'

করোনার পরিস্থিতিতে NEET, JEE MAIN, পরীক্ষা স্থগিতের জন্য সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে এদিন আহ্বান জানিয়েছেন ৷ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বুধবার কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধির সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে মমতা বলেন, 'চলুন সবাই মিলে সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে আবেদন করি, যতদিন না পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে, ততদিন পড়ুয়াদের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে পরীক্ষা স্থগিত রাখা হোক৷ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই কাজ করছে কেন্দ্র৷ কিন্তু আদালতের কাছে ফের আবেদন করতে পারে কেন্দ্র৷ পরীক্ষার্থীদের শারীরিক অবস্থার কথা ভাবা হোক৷'

কর্ণাটকের এক পরীক্ষার্থী, মনোজ জানিয়েছে, তাদের বলা হয়েছে সকাল সাতটার সময় পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হতে। কিন্তু তার বাড়ি থেকে পরীক্ষা কেন্দ্র প্রায় ১৫০ কিমি দূরত্বে। একদিকে ট্রেন, বাস কিছুই চলছে না। তাহলে কী করে তারা পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছবে?‌

আরও পড়ুন...
  • Last Updated :
  • Share this:

#‌নয়াদিল্লি:‌ NEET, JEE স্থগিত করার দাবি যেন আরও জোরাল হচ্ছে। কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রীর উচিত পড়ুয়াদের ‘‌মন কি বাত’‌ শোনা। তারপর এই পরীক্ষা নিয়ে বেঁকে বসেছে দেশের অন্যতম বাম ছাত্রসংগঠন All India Students Association (AISA)। তাঁদের দাবি, এভাবে করোনা অতিমারীর মধ্যে পরীক্ষা হলে অনেকেই পরীক্ষা দিতে পারবেন না, তাই পরীক্ষা স্থগিত করা হোক। আর সেই দাবিতেই বৃহস্পতিবার থেকে নিজের বাড়িতেই অনশনে বসবেন ৪২০০ পড়ুয়া। UGC-NET, CLAT পিছিয়ে দেওয়ার দাবিও থাকবে তাঁদের। এমনকী তাঁরা ব্যবহার করবেন সোশ্যাল মিডিয়াও। এই বিষয়ে #‌SATYAGRAHagainstExamInCovid–এ পোস্ট করতেও বলা হয়েছে। সকাল আটটা থেকে অনশনে বসবেন তাঁরা। বাড়িতে কালো পতাকা তুলবেন বলেও খবর পাওয়া গিয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রোফাইল পিকচার কালো করে দেওয়া হবে। সব মিলিয়ে বলা চলে, বিরোধীদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার দাবি তুলছে অনেকগুলি পক্ষ। সরকারের উপর বাড়ছে চাপ।

কর্ণাটকের এক পরীক্ষার্থী, মনোজ জানিয়েছে, তাদের বলা হয়েছে সকাল সাতটার সময় পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হতে। কিন্তু তার বাড়ি থেকে পরীক্ষা কেন্দ্র প্রায় ১৫০ কিমি দূরত্বে। একদিকে ট্রেন, বাস কিছুই চলছে না। তাহলে কী করে তারা পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছবে?‌ মনোজ জানিয়েছে, তার অনেক বন্ধু আছে যারা বলেছে, তাদের পরীক্ষা কেন্দ্র ২০০ থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে। তারাও পৌঁছবে কী করে, সেটা পরিবারের লোক বা পরীক্ষার্থী, কেউই বুঝতে পারছে না। ওড়িশার পরীক্ষার্থী অনিশা জানিয়েছেন, সরকারের কাছে আমাদের অনুরোধ যেন পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়া হয়। সব স্বাভাবিক হওয়ার আগে অবধি এই পরীক্ষা আয়োজন করা সম্ভব নয়। সমস্ত হোটেল, গেস্ট হাউজও বন্ধ। পরীক্ষা দেওয়ার আগে গিয়েও যে কাছেপিঠে কোথায় থাকা যাবে, তার উপায় নেই। ছাত্রদের হয়ে ক’‌দিন আগেই মুখ খুলেছেন দিল্লির উপ–মুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়া। তিনি বলেছেন, সরকারের উচিত এবারের পরীক্ষার দিন নিয়ে আরেকবার বিবেচনা করা। করোনা পরিস্থিতিতে পরীক্ষা বাতিল করে দিলে সবচেয়ে ভাল হয়। এই পরিস্থিতিতে ক্ষোভ রুখতে হয়ত সরকার পরীক্ষার দিন পাল্টানোর ভাবনাও ভাবতে পারে, মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।

Published by:Uddalak Bhattacharya
First published:

Tags: Engineering Joint Entrance Examination, Joint Entrance Exam