Cyclone: আরও ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় Tauktae ! আজ রাতেই গুজরাত উপকূলে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা

Photo Courtesy: Windy.com

ঘূর্ণিঝড় এখন পরিণত হয়েছে চরম শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে। এখনও পর্যন্ত এর অভিমুখ গুজরাত উপকূল।

  • Share this:

মুম্বই: আজ, সোমবার রাতেই গুজরাত উপকূলে আছড়ে পড়ার কথা ঘূর্ণিঝড় Tauktae-এর । অতি শক্তিশালী এই ঘূর্ণিঝড় এখন মুম্বই উপকূলের কাছে পূর্ব-মধ্য আরব সাগরে অবস্থান করছে। আজ, সোমবার বিকেলেই গুজরাত উপকূলে কাছাকাছি সেটি প্রবেশ করবে। রাতের মধ্যেই সর্বোচ্চ ১৮৫ কিলোমিটার গতিবেগ নিয়ে গুজরাত উপকূলে উনার কাছে আছড়ে পড়তে পারে Tauktae।

মায়ানমারের দেওয়া এই ঘূর্ণিঝড়ের নাম Tauktae (বাংলায় উচ্চারণ তুকতি আর ইংরেজিতে টাউটে ) দক্ষিণ-পূর্ব আরবসাগরে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় এখন পরিণত হয়েছে চরম শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে। উত্তর, উত্তর পশ্চিম দিকে এটি অগ্রসর হচ্ছে। এখনও পর্যন্ত এর অভিমুখ গুজরাত উপকূল। ১৭ মে সোমবার রাতেই এটি স্থলভাগে প্রবেশ করার সম্ভাবনা। এখনও পর্যন্ত যা অভিমুখ আছে আজ বিকেলে গুজরাতের পোরবন্দর ও মাহবুবার(ভাবনগর) মাঝে এটি স্থলভাগে প্রবেশ করবে। স্থলভাগের প্রবেশ করার সময় এর গতিবেগ সর্বোচ্চ ১৮৫ কিলোমিটার হতে পারে।

ঘূর্ণিঝড়ের লাইভ অবস্থান জানতে ক্লিক করুন---> LIVE Tauktae

আবহাওয়াবিদরা অনুমান করছেন ঘূর্ণিঝড়ের যা গতিবেগ সোমবার সকালে এটি মুম্বাই সংলগ্ন পূর্ব-মধ্য আরব সাগরে অবস্থান করছে। মুম্বাইয়ে ঝড়ের ঝাপটা দিয়ে এটি পালঘর ফিরিয়ে গুজরাত উপকূলের উনারের দিকে অগ্রসর হবে। সম্ভবত ভেনাকবাড়া ও দেলভাদারের মাঝে এটি স্থলভাগে প্রবেশ করবে। গুজরাত উপকূলে উনার কাছাকাছি এই অঞ্চল গুলি প্রবল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা। জুনাগড় জেলার উনায় সবথেকে বেশি ক্ষতির সম্ভাবনা। জুনাগড় ও আমরেলিতে প্রবল ক্ষতি হওয়া সম্ভাবনা এই ঝড়ে। গির ন্যাশনাল পার্কের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাস তীব্র হবে ঘূর্ণিঝড় স্থলভাগের প্রবেশ করার সময়। ৩ মিটার মত উঁচু জলোচ্ছ্বাস হতে পারে দিউ, আমরেলি ,ভাবনগর, গির সোমনাথ ও জুনাগড় এলাকায়।

গুজরাত উপকূলে পৌঁছনোর আগেই আরব সাগরে এই ঘূর্ণিঝড় সাইকেলোনিক স্টর্ম থেকে ভেরি সিভিয়ার সাইকেলোনিক স্টর্ম বা অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। সোমবার রাতেই সেই ঘূর্ণিঝড় চরম শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিয়ে আছড়ে পড়বে ।  মুম্বই উপকূলের গা ঘেঁষে গুজরাত উপকূলের দিকে এগোচ্ছে এই ঝড়। যার প্রভাব পড়তে পারে কেরল, তামিলনাড়ু, কর্ণাটক, গোয়া ও মহারাষ্ট্রের উপকূলে। দক্ষিণ-পূর্ব আরব সাগর, মলদ্বীপ ও লাক্ষাদ্বীপের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে মৎস্যজীবীদের। কর্ণাটক মহারাষ্ট্র ও গোয়া উপকূল এবং কেরল ও গুজরাত উপকূলেও মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে ।

এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ভারী বৃষ্টি শুরু হয়েছে কেরল তামিলনাডু ও কর্ণাটক উপকূলে। ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হবে তামিলনাডু ও কর্নাটকের ঘাট পার্বত্য এলাকায় । একই সঙ্গে সৌরাষ্ট্র কচ্ছ মুম্বাই ও গোয়া উপকূলে। মঙ্গলবার এটি গুজরাটের উপর দিয়ে রাজস্থান এ প্রবেশ করবে শক্তি হারিয়ে ক্রমশ গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে। মে মাসের শেষে বঙ্গোপসাগরে একটি ঘূর্ণিঝড় তৈরির সম্ভাবনা জোরালো হচ্ছে।

এরাজ্যে সরাসরি প্রভাব না থাকলেও জলীয়বাষ্প টেনে নেবে এই ঘূর্ণিঝড়। এর ফলে গরম বাড়বে পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলিতে।

পশ্চিমবঙ্গে আগামী দু’দিনে তাপমাত্রা বাড়বে। উত্তরবঙ্গে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি পাঁচ জেলায়। দক্ষিণবঙ্গে সামান্য বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা। কলকাতায় আজ, সোমবার আংশিক মেঘলা আকাশ। গরম বাড়বে । সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৮.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। স্বাভাবিকের চেয়ে ২ ডিগ্রি উপরে। গতকাল, রবিবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ৫৪ থেকে ৮৮ শতাংশ।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: