• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রীর কনভয়কে কালো পতাকা, কৃষকদের বিক্ষোভের মুখে পিছু হঠল কনভয়

হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রীর কনভয়কে কালো পতাকা, কৃষকদের বিক্ষোভের মুখে পিছু হঠল কনভয়

মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টর তাঁর কনভয় নিয়ে অম্বালা যাচ্ছিলেন ওই পথেই

মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টর তাঁর কনভয় নিয়ে অম্বালা যাচ্ছিলেন ওই পথেই

মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টর তাঁর কনভয় নিয়ে অম্বালা যাচ্ছিলেন ওই পথেই

  • Share this:

    #চন্ডীগড়ঃ পঞ্জাব-হরিয়ানার কৃষকেরা বেশ কিছুদিন ধরেই আন্দোলনে নেমেছেন নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে। দিল্লি সীমান্তে চলছে তাঁদের বিক্ষোভ। আজ হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রীর কনভয় কাছে আসতেই কালো পতাকা দেখিয়ে পিছু হঠালেন প্রায় শ’খানেক কৃষক। মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টর তাঁর কনভয় নিয়ে অম্বালা যাচ্ছিলেন ওই পথেই। প্রসঙ্গত, হরিয়ানার সরকার বিজেপি-পরিচালিত। সরকারের তরফে বলা হয়েছে, হরিয়ানার মাত্র কিছু সংখ্যক কৃষক সামিল হয়েছেন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে এই বিক্ষোভে। কিন্তু আসলে, আন্দোলনকারী কৃষকের সংখ্যা দিন-দিন বেড়েই চলেছে।

    আজ মুখ্যমন্ত্রীর কনভয় সামনে আসতেই বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন কৃষকেরা। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে এবং পথ ছাড়তে রাজি করায় কৃষকদের। তবে অধিকাংশ কৃষকই কালো পতাকা দেখিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর দিকে। কেউ কেউ আবার লাঠিও দেখিয়েছেন। এর আগেও, ১ ডিসেম্বর, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রত্তন লাল কাতারিয়া-কে কালো পতাকা দেখিয়েছিলেন বিক্ষোভকারী কৃষকের দল। শুধু কেন্দ্রীয় মন্ত্রীই নন, অম্বালার সাংসদও এই কাতারিয়া।

    সূত্রের খবর, পথ আটকে দাঁড়িয়েছিল বিপুল সংখ্যক আন্দোলনকারী কৃষক। তার জেরেই, কমাতে হয় মুখ্যমন্ত্রীর কনভয়ের গতি। অবশেষে, একটি ইউ টার্ন নিয়ে ঘুরে যেতে হয় মুখ্যমন্ত্রীর গাড়িকে। জানা গিয়েছে, আসন্ন পুরসভা ভোটের জন্য বিজেপি’র প্রচারের কাজে অম্বালা যাচ্ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী খট্টর।

    প্রসঙ্গত, কৃষক এবং সরকার পক্ষের মধ্যে বেশ কয়েকবার বৈঠক হয়েছে ইতিমধ্যে। তবে কৃষি আইন নিয়ে কোনও সমাধান সূত্র বেরোয়নি এ পর্যন্ত। কেন্দ্র সরকারের বক্তব্য, এই নিয়ে কৃষকদের সঙ্গে বিশদে আলোচনায় বসতে রাজি তাঁরা। এমনকি সরকার পক্ষের দাবি, কৃষির ক্ষেত্রে বড় রকমের সংস্কার হবে এই আইন প্রবর্তন হলে। আইনের সুফল হিসেবে, কৃষকেরা কোনও মিডলম্যানের সাহায্য ছাড়াই তাঁদের পণ্য বিক্রি করতে পারবেন দেশের যে কোনও জায়গায়। অন্যদিকে কৃষকদের দাবি, এই আইন প্রত্যাহার করতে হবে।

    Published by:Antara Dey
    First published: