• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • COVID GUIDELINE SHOULD NOT BE LOOSEN CENTRE WARNS ALL STATES AKD

Covid Retrictions: করোনা বিধিতে এখনই ঢিলেঢালা নয়, সব রাজ্যকে জানাল কেন্দ্র

গা ছাড়া ভাব দেখালেই সর্বনাশ, রাজ্যকে বলছে কেন্দ্র।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানাচ্ছে, গোটা দেশের প্রায় সব রাজ্যে একদিকে যখন করোনা সংক্রমণ কমতে শুরু করেছে তখন পাল্লা দিয়ে রাস্তায় বের হচ্ছে সাধারণ মানুষ। এর ফল অত্যন্ত মারাত্মক হতে পারে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বিশেষজ্ঞ মহল যখন দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আশঙ্কার কথা বলছে, তখনই সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে সতর্ক করল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। কেন্দ্রীয় সরকারের এই চিঠিকে মোটেই হালকা ভাবে নিচ্ছে না রাজ্যগুলি। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানাচ্ছে, গোটা দেশের প্রায় সব রাজ্যে একদিকে যখন করোনা সংক্রমণ কমতে শুরু করেছে তখন পাল্লা দিয়ে রাস্তায় বের হচ্ছে সাধারণ মানুষ। এর ফল অত্যন্ত মারাত্মক হতে পারে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব অজয় ভাল্লা উল্লেখ করেছেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এখনও শেষ হয়নি। তা সত্ত্বেও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে করোনা-বিধি লঙ্ঘন করতে দেখা যাচ্ছে মানুষকে। বিশেষত গণপরিবহনে সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে চলার কোনও বালাই নেই। এই পরিস্থিতিতে সতর্ক হতে হবে রাজ্য সরকার, জেলা প্রশাসন এবং স্থানীয় প্রশাসনকে।

এখনই করোনা( Covid-19) বিধিতে কোন ঢিলেঢালা নয়। জেলা ও স্থানীয় প্রশাসনকে কঠোরভাবে করোনা বিধি মেনে চলার নির্দেশ দিক রাজ্য সরকার। বুধবার সব রাজ্যের মুখ্যসচিবদের চিঠি দিয়ে এইভাবেই সতর্ক করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব(Union Home Secretary) অজয় ভাল্লা(Ajay Bhalla)।

চিঠিতে তিনি লিখেছেন -দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এখনো সমাপ্ত হয়নি। এরইমধ্যে বিভিন্ন রাজ্যে বিধি নিষেধ লঘু করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় সরকারের নজরে এসেছে যে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে করোনাবিধির তোয়াক্কা করা হচ্ছে না বিশেষত গণপরিবহনের মতো ক্ষেত্রে। তাই রাজ্য সরকার গুলির উচিত এখনো করোনা বিধি মেনে চলা এবং ধীরে ধীরে নিয়ম লঘু করা।

চিঠিতে অজয় ভাল্লা লিখেছেন, জেলা ও স্থানীয় প্রশাসনের উচিত ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা। এই প্রসঙ্গে তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের "দবাই ভি, কড়াই ভি" স্লোগানের উল্লেখ করেছেন। দু-পাতার চিঠিতে তিনি আরো লিখেছেন, করোনা মোকাবিলায় গোটা দেশজুড়ে যে নিয়ম চালু রাখতে হবে তা হল- 'টেস্ট, ট্র্যাক, ট্রিটমেন্ট এবং ভ্যাকসিনেশন'। অর্থাৎ, প্রথমে নমুনা পরীক্ষা করা, যার নমুনা পরীক্ষা করা হল তাকে নিরীক্ষণ করা,  করোনার সংক্রমণ ধরা পড়লে চিকিৎসা করা এবং যত বেশি সম্ভব টিকাকরণ করা।

Published by:Arka Deb
First published: