করোনা পরীক্ষায় সরকারি বিধি কি বিপদ বাড়াচ্ছে, বিপদবার্তা বেসরকারি পরীক্ষাকেন্দ্রের

করোনা পরীক্ষায় সরকারি বিধি কি বিপদ বাড়াচ্ছে, বিপদবার্তা বেসরকারি পরীক্ষাকেন্দ্রের
অনেকটাই শ্লথ সরকারি পরীক্ষার গতি, ছবি: AP

করোনা যে গতিতে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে, সেই তুলনায় করোনা পরীক্ষার হার ভারতে অনেকটা শ্লথ। পরীক্ষার বিষয়ে বিবিধ কড়াকড়ি ও গোপনীয়তাও রয়েছে।

  • Share this:

নয়াদিল্লিঃ করোনা সংক্রমণ আটকাতে বিদেশ যেতে না করা হচ্ছে ভারতীয়দের। নতুন করে ভিসাও দেওয়া হচ্ছে না। আর তাতেই সিঁদুরে মেঘ দেখছে স্বাস্থ্য পরীক্ষা কেন্দ্রগুলি। কারণ করোনা সংক্রমণ পরীক্ষার 'কিট‍' বা অত্যাবশকীয় সামগ্রীর অনেকটাই বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। সিএবিসি টিভি ১৮-এর সামনে এমনই উদ্বেগ প্রকাশ করছে থাইরোকেয়ার টেকনোলজিস লিমিটেড নামক একটি সংস্থা। তাঁদের অনুরোধ, সরকার যেন এই পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে করোনা কিট আমদানির ব্যবস্থা করে। বেসরকারি সংস্থাগুলিকেও পরীক্ষার অনুমতি দেওয়ার দাবি উঠছে নানা মহলে।

করোনা যে গতিতে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে, সেই তুলনায় করোনা পরীক্ষার হার ভারতে অনেকটা শ্লথ। পরীক্ষার বিষয়ে বিবিধ কড়াকড়ি ও গোপনীয়তাও রয়েছে। ১৩ মার্চ ইন্ডিয়ান কাউন্সিলের তরফে জানানো হয় এখনও ৫৯০০ ব্যক্তির দেহে করোনা সংক্রমণ পরীক্ষা করা হয়েছে। তবে এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, পরিস্থিতির বাড়াবাড়ন্ত রুখতে কয়েকটি বেসরকারি সংস্থার সহায়তাও নিতে পারে কেন্দ্র। পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হতে পারে তাঁদের। ইতিমধ্যেই মুম্বইয়ে বেশ কিছু বেসরকারি সংস্থাকে করোনা পরীক্ষার ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

থাইরোকেয়ার সংস্থা কর্তৃপক্ষের উদ্বেগ,করোনা পরীক্ষার বিষয়ে ভারত সরকার বহু বিধিনিষেধ চাপিয়ে রেখেছে। এর ফলে সংক্রমণ আরও বাড়তে পারে বলেই ধারণা তাদের। প্রসঙ্গত , এখনও পর্য়ন্ত সরকারই তত্ত্বাবধানে পরীক্ষা হচ্ছে তাদেরই যাদের কোনও বিদেশ যাত্রার ইতিহাস রয়েছে অথবা যারা আক্রান্তের সংস্পর্শে এসেছেন।

করোনা পরীক্ষার জন্য দুটো পদ্ধতি অবলম্বন করা হচ্ছে। একটি রক্তের মাধ্যমে পরীক্ষা অন্যটি লালারস পরীক্ষা। প্রথম ক্ষেত্রে খরচ আনুমানিক ৭০০ টাকা, অন্য ক্ষেত্রে আনুমানিক ৬০০০ টাকা। সূত্রের খবর, বেসরকারি সংস্থাকে যদি পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়, তবে কালোবাজারি এড়াতে পরীক্ষার দাম বেধে দেওয়া হতে পারে।

First published: March 17, 2020, 2:37 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर