করোনা ভাইরাসের জের: লাল সতর্কতা ইন্দো-নেপাল সীমান্তে

করোনা ভাইরাসের জের: লাল সতর্কতা ইন্দো-নেপাল সীমান্তে

কড়া সতর্ক এস এস বি জওয়ানেরাও। চলছে বিশেষ তল্লাশি

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা ভাইরাসের জের। কড়া সতর্কতা জারি করা হয়েছে আমাদের রাজ্যেও। বিশেষ করে ভারত-নেপাল সীমান্ত পানিট্যাঙ্কি, সীমানা এবং পশুপতি নগরে লাল সতর্কতা জারি করেছে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর। কেননা চীনের পর করোনা ভাইরাসের জীবাণু মিলেছে নেপালে। আর তাই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নির্দেশে তৈরি

রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর। ইন্দো-নেপাল সীমান্ত এলাকায় বিশেষ হেলথ স্ক্রিনিং ক্যাম্প চালু করেছে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর। চীন থেকে নেপাল হয়ে প্রচুর পর্যটক আমাদের দেশে আসেন। আর নেপাল থেকে প্রতিদিনই প্রচুর মানুষ সীমান্ত পারাপার করে। সে কারণেই লাল সতর্কতা জারি ভারত-নেপাল সীমান্তে। তাই সীমান্তে এই বিশেষ উদ্যোগ রাজ্য স্বাস্তগ্য দপ্তরের। নেপালের কাকড়ভিটা, পশুপতি বা সীমানা সীমান্ত পার করে আসা বিদেশী পর্যটকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার ব্যবস্থা করা হয়েছে আমাদের দেশের সীমান্তে।

সেইসঙ্গে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ থাকলে সরাসরি উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রেফার করা হচ্ছে ইন্দো-নেপাল সীমান্ত থেকে। সতর্ক সীমান্তে প্রহরারত এস এস বি জওয়ানেরা। ভিন দেশী পর্যটকেরা পারাপার হলেই তাদের হেলথ স্ক্রিনিং ক্যাম্পে নিয়ে আসছেন জওয়ানেরা। নেপাল থেকে আসা প্রতিটি গাড়িতেই তল্লাশি চালাচ্ছে এস এস বি জওয়ানেরা। তবে ওপারে নেপাল সীমান্তে কোনোরকম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নজরে আসেনি। নেপালের কাকড়ভিটা সীমান্ত অবাধেই পারাপার হচ্ছে বিদেশী পর্যটক থেকে নেপালের বাসিন্দারা। করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় তৈরী উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডও তৈরি। ৬ বেডের ওয়ার্ড তৈরী করা হয়েছে। গড়া হয়েছে র‍্যাপিড রেসপন্স টিমও।

সেই টিমে অভিজ্ঞ চিকিৎসকদের নেতৃত্বে প্রশিক্ষনরত চিকিৎসক এবং নার্স, নোডাল অফিসার, স্বাস্থ্যকর্মীরাও প্রস্তুত। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রুগী এলে তার জীবাণুর নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থাও থাকছে উত্তরবঙ্গ মেডিকেলে। সবমিলিয়ে করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় তৈরী উত্তরবঙ্গ। এর আগে সোয়াইন ফ্লু ভাইরাস ছড়ানোর সময়েও উত্তরবঙ্গ মেডিকেলে আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরী করা হয়েছিল।

First published: January 26, 2020, 8:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर