শুভ মুহূর্তে হাঁচি! আহমেদাবাদে পুলিশকর্মীকে বেধড়ক মারধর

শুভ মুহূর্তে হাঁচি! আহমেদাবাদে পুলিশকর্মীকে বেধড়ক মারধর
Representative image

তাঁকে মারধর করতে শুরু করে দেন আশেপাশের লোকজন। ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে

  • Share this:

#আহমেদাবাদ: এলাকায় পুলিশ বিল্ডিং তৈরির কথা চলছে। তাই জমি নিয়ে খোঁজ-খবর করতে গিয়েছিলেন। লোকজনের সঙ্গে কথা বলার সময়ে প্রকাশ্যে হেঁচে ফেলেন। এটাই অপরাধ ছিল আহমেদাবাদের কৃষ্ণনগর পুলিশের LRD জওয়ান যুবরাজ সিং ঝালার। শুভ মুহূর্তে হাঁচি বড়ই অশুভ সংঙ্কেত। তাই তাঁকে মারধর করতে শুরু করে দেন আশেপাশের লোকজন। ঘটনায় পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

২৬ বছরের LRD জওয়ান যুবরাজ সিং ঝালা জানিয়েছেন, কৃষ্ণনগর এলাকায় পুলিশ বিল্ডিংয়ের জন্য কয়েক বিঘা জমি বরাদ্দ করা হয়েছিল। সেই জমি নিয়েই খোঁজখবর করতে গিয়েছিলেন তিনি। শনিবার এই বিষয়ে দু'-একজনের সঙ্গে কথা বলতে বলতে সিঁড়ি দিয়ে নামছিলেন তিনি। এমন সময়ে হেঁচে ফেলেন। আর এখানেই সর্বনাশ! আচমকা ওই পুলিশকর্মীর আশেপাশে থাকা লোকজন তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন, এই রকম একটি শুভ মুহূর্তে কী করে হাঁচতে পারেন তিনি?

জবাবে পুলিশকর্মী জানান, তিনি একজন পুলিশ। জমি দেখাশোনা করতেই এখানে এসেছেন। আর হাঁচির সঙ্গে এই সবের কোনও সম্পর্ক নেই। কিন্তু কে শোনে কার কথা! ৫ জন অভিযুক্ত তাঁর সঙ্গে তর্ক শুরু করে দেয়। এর পর বচসা হাতাহাতিতে পৌঁছায়। ওই পুলিশকর্মীকে নির্বিচারে মারধর করতে থাকে তারা। এদিকে পুলিশকর্মীর নাক-মুখ থেকে রক্ত বেরিয়ে আসে। ঘটনাটা জানাজানি হতেই তড়িঘড়ি খবর দেওয়া হয় পুলিশে। ওই পাঁচজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে পুলিশকর্মী যুবরাজ সিং ঝালাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আপাতত সেখানেই চিকিৎসাধীন তিনি।


গত বছর মার্চ মাসেও একই ঘটনা ঘটে। সেই সময়ে ব্যাপক ভাবে করোনা সংক্রমণ দেখা গিয়েছিল। এর জেরে দেশ জুড়ে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। আর ঠিক সেই সময়ে প্রকাশ্যে হেঁচে ফেলায় মহারাষ্ট্রের কোলাপুর শহরে এক বাইক-আরোহীকে বেধড়ক মারধর করা হয়।

CCTV ফুটেজ সূত্রে জানা যায়, শহরের গুজারি এলাকা দিয়ে বাইকে চেপে যাচ্ছিলেন তিনি। এমন সময় আর এক বাইক-আরোহী ওই ব্যক্তির পাশে এসে বাইক থামিয়ে জিজ্ঞাসা করেন, খোলা জায়গায় মুখ না ঢেকে তিনি হাঁচছেন কেন? এতে সংক্রমণের সম্ভাবনা থেকে যায়! এই নিয়ে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। এর পর তা হাতাহাতিতে গড়ায়। ওই হেঁচে ফেলা ব্যক্তিকে মারধর করতে শুরু করে দেন অন্য বাইক-আরোহী। কয়েক মিনিটের মধ্যেই রাস্তায় ভিড় জমে যায়। কিছুক্ষণের জন্য যানজটও তৈরি হয়। তবে ঘটনায় কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি।

Published by:Ananya Chakraborty
First published: