• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • CONGRESS NOW RELYING ON PRASHANT KISHOR FOR REVIVAL BEFORE 2024 DMG

Prashant Kishore Congress Meeting: প্রশান্ত কিশোরের জাদু স্পর্শে কি বদলাবে দিশাহীন কংগ্রেস? গান্ধিদের ভরসা এখন পিকে

প্রশান্ত কিশোর৷

প্রশান্ত কিশোরের (Prashant Kishor) মতো কংগ্রেসের (Congress) সংগঠনের সঙ্গে কোনওভাবে যুক্ত না থাকা একজনকে নিয়ে এখনও দলের কিছু নেতার আপত্তি রয়েছে৷ কিন্তু কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্ব মনে করেন, ভবিষ্যতে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য এ ছাড়া আর বিকল্প উপায় নেই৷

  • Share this:

#দিল্লি: দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছে৷ এই অবস্থায় জাতীয় রাজনীতিতে হারানো জমি ফিরে পেতে মরিয়া কংগ্রেস৷ আর সেই তাগিদ এতটাই যে শেষ পর্যন্ত ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরের শরণাপন্ন হতে হলে রাহুল গান্ধি, সোনিয়া গান্ধিদের৷ ২০১৭ সালে উত্তর প্রদেশে বিপর্যয়ের পর এই প্রশান্ত কিশোরকেই কাঠগড়ায় তুলেছিলেন কংগ্রেস শীর্ষ নেতাদের একাংশ৷ কিন্তু এখন কংগ্রেসের এতটাই কোণঠাসা অবস্থা, জাতীয় রাজনীতিতে নিজেদের গুরুত্ব বজায় রাখতে গেলে প্রশান্ত কিশোরের মতো পরীক্ষিত এবং সফল ভোট কুশলীকেই সবথেকে বেশি প্রয়োজন তাদের৷

প্রথমে মনে করা হচ্ছিল, মঙ্গলবার রাহুল, প্রিয়াঙ্কা, সনিয়া এবং প্রশান্ত কিশোরের মধ্যে বৈঠকের মূল অ্যাজেন্ডা ছিল উত্তর প্রদেশ এবং পঞ্জাব নির্বাচনে কংগ্রেসের রণকৌশল নির্ণয় করা৷ কিন্তু পরবর্তী সময়ে জানা যায়, বৈঠকের প্রেক্ষাপট ছিল আরও অনেক বড়৷ ২০২৪-এ বিজেপি বিরোধী জোটের রূপরেখা কী হবে এবং সেই জোটে কংগ্রেসের কী ভূমিকা হতে পারে, সেটাই ছিল পিকে এবং গান্ধিদের মধ্যে বৈঠকের মূল আলোচ্য বিষয়৷ শুধু তাই নয়, ঘুরে দাঁড়াতে গেলে কংগ্রেসের কী করণীয়, বৈঠকে প্রশান্ত কিশোরের কাছ থেকে সনিয়া- প্রিয়াঙ্কারা সেই পরামর্শও চান বলে সূত্রের খবর৷ কংগ্রেসের বিক্ষুব্ধ তেইশ জন নেতাও এর আগে সনিয়া গান্ধিকে লেখা চিঠিতে দাবি করেছিলেন, যতক্ষণ না পর্যন্ত সংগঠনকে শক্তিশালী করা হচ্ছে, কংগ্রেসের পক্ষে ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব নয়৷

কংগ্রেস কেন একের পর এক রাজ্য থেকে মুছে যাচ্ছে এবং এই ক্ষয় রোধ করে শতাব্দী প্রাচীন দলকে নতুন চেহারায় হাজির করতে গেলে কী কী করণীয়, পিকে-র থেকে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে বলেই খবর৷

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে ব্যর্থ হয়েছে কংগ্রেস৷ বিশেষত সামাজিক মাধ্যমে জাতীয় এবং রাজ্য স্তরেও কংগ্রেসকে বলে বলে গোল দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি এবং বিজেপি৷ যা বিজেপি-র পক্ষে হাওয়া তুলে কংগ্রেসকে জনসমর্থন কমানোর ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা নিয়েছে৷

সোশ্যাল মিডিয়ার গুরুত্ব যখন কংগ্রেস নেতৃত্ব বুঝতে পেরেছে, ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে৷ তার পরেও বেশ কয়েকটি ইস্যুতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুললেও বিভিন্ন রাজ্যের নির্বাচনে তার সুফল ঘরে তুলতে ব্যর্থ হয়েছে কংগ্রেস৷ অনেক ক্ষেত্রেই মনে হয়েছে, কোন ইস্যুকে হাতিয়ার করে বিজেপি-কে আক্রমণ করতে হবে, সেটাই বুঝতে পারছেন না কংগ্রেস নেতারা৷ এর সঙ্গে যোগ হয়েছে কংগ্রেস নেতাদের পরস্পর বিরোধী মন্তব্য এবং ব্যক্তিগত ক্ষোভ- অসন্তোষের প্রকাশ করার রোগ৷ সব মিলিয়ে কংগ্রেসের দুর্বল হওয়ার কারণ এক নয়, একাধিক৷ তার মধ্যে জিতিন প্রসাদ, জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াদের মতো তরুণ নেতাদের দলত্যাগও বিভিন্ন রাজ্যে কংগ্রেসকে ধাক্কা দিয়েছে৷

এই পরিস্থিতিতে প্রশান্ত কিশোরের মতো কংগ্রেসের সংগঠনের সঙ্গে কোনওভাবে যুক্ত না থাকা একজনকে নিয়ে এখনও দলের কিছু নেতার আপত্তি রয়েছে৷ কিন্তু কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্ব মনে করেন, ভবিষ্যতে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য এ ছাড়া আর বিকল্প উপায় নেই৷

তবে বিষয়টি এতটা সহজও হবে না৷ প্রশান্ত কিশোরের ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর, কংগ্রেস নিয়ে পিকে-র মনোভাব এখনও খুব একটা ইতিবাচক নয়৷ শেষ পর্যন্ত সত্যিই যদি তিনি কংগ্রেসের 'পরামর্শদাতা' বা অন্য কোনও দায়িত্ব নেন, তাহলে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলের মতোই কংগ্রেসেও তাঁকে নিজের শর্তে কাজ করতে দিতে হবে৷ তবেই রাজি হবেন তিনি৷

বাংলায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোথায়, কখন কী বলবেন, সেই পরামর্শও যেমন প্রশান্ত কিশোর দেন, সেরকমই তৃণমূলের সংগঠনে ব্লক স্তর থেকে শুরু করে জেলা স্তরের নিয়োগ নিয়েও তাঁর মতামত নেওয়া হয়৷ এখন যেমন কংগ্রেসের মধ্যে প্রশ্ন উঠছে, সেরকমই ভোটের আগে প্রশান্ত কিশোরের আধিপত্য নিয়ে তৃণমূলের অন্দরেও অনেকে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন৷ কিন্তু ভোটের ফলপ্রকাশের পর সেই নিন্দুকরা চুপ করে গিয়েছেন৷

কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্বও আশাবাদী, এবার তাদের দলেও এরকমই কিছু হতে চলেছে৷ খুব শিগগিরই কংগ্রেসে বড়সড় সাংগঠনিক রদবদলের সম্ভাবনা রয়েছে৷ দলের পরবর্তী সভাপতি কে হবেন, বহু প্রতীক্ষিত সেই প্রশ্নের উত্তরও সম্ভবত মিলতে চলেছে৷ বিক্ষুব্ধ ২৩ জন নেতাও অভিযোগ করেছিলেন, শীর্ষ নেতৃত্ব নিয়ে ধোঁয়াশার জন্যই আরও বিভ্রান্ত হয়ে পড়ছেন নিচুতলার নেতা কর্মীরা৷ আর এই সমস্ত বিভ্রান্তি কাটাতেই এবার প্রশান্ত কিশোরকে ঘিরে আশায় বুক বাঁধছে কংগ্রেস৷

Pallavi Ghosh, Kamalika Sengupta

Published by:Debamoy Ghosh
First published: