'নেহরুর সম্পর্কে সংসদে বিকৃত তথ্য দিচ্ছেন মোদি,' বললেন অধীর

'নেহরুর সম্পর্কে সংসদে বিকৃত তথ্য দিচ্ছেন মোদি,' বললেন অধীর
কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরী

বৃহস্পতিবার সিএএ-র সমর্থনে জওহরলাল নেহরুর একটি চিঠির প্রসঙ্গ লোকসভায় উত্থাপন করেন মোদি। ওই চিঠিটি নেহরু লিখেছিলেন অসমের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী গোপীনাথ বরদুলইকে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: লোকসভায় জবাবি ভাষণে সিএএ-র পক্ষে সওয়ালে দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু প্রসঙ্গে টানেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ বলেন, 'দেশভাগের পর পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দুদের শরণার্থী ও মুসলিমদের অনুপ্রবেশকারী বলে উল্লেখ করেছিলেন পণ্ডিত জওহরলাল নেহেরু। এই সম্পর্কে তাঁর মনোভাব খুবই স্পষ্ট ছিল।' শুক্রবার তার জবাবে লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর চৌধুরী অভিযোগ করলেন, নেহরুর বক্তব্যকে বিকৃত করছেন মোদি৷

তিনি বলেন, 'নেহরু স্পর্কে বিকৃত তথ্য সংসদে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী৷ আসলে মোদির একটাই উদ্দেশ্য, গণতন্ত্রকে হিন্দুতন্ত্র বানানো৷' একই সঙ্গে কাশ্মীরে মেহবুবা মুফতি ও ওমর আবদুল্লাকে পিএসএ-তে আটক নিয়েও তিনি বলেন, 'গতকাল ওমর আবদুল্লা ও মেহবুবা মুফতির বিরুদ্ধে সংসদে বলেন মোদি৷ রাতেই তাঁদের পাবলিক সেফটি আইনে আটক করা হল৷ আপনি এই ভাবে কাশ্মীরকে শাসন করতে পারবেন না৷ শারীরিক ভাবে হয়তো কাশ্মীর আপনাদের সঙ্গে আছে, কিন্তু মানসিক ভাবে নেই৷'

বৃহস্পতিবার সিএএ-র সমর্থনে জওহরলাল নেহরুর একটি চিঠির প্রসঙ্গ লোকসভায় উত্থাপন করেন মোদি। ওই চিঠিটি নেহরু লিখেছিলেন অসমের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী গোপীনাথ বরদুলইকে। চিঠিতে লেখা নেহরুর বক্তব্যের কথা উল্লেখ করে নরেন্দ্র মোদি বলেন, 'নেহরুজি হিন্দু শরণার্থী ও মুসলিম অনুপ্রবেশকারীর মধ্যে পার্থক্য রাখার পক্ষে সওয়াল করেছিলেন। বলেছিলেন যে হিন্দু শরণার্থীদের দায়িত্ব এই দেশকেই নিতে হবে। ১৯৫০ সালে হওয়া নেহরু-লিয়াকত চুক্তির সময়ও ধর্মীয়ভাবে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তার বিষয়টি সুরক্ষিত করার কথা বলেছিলেন জওহরলাল নেহরু। আর সেই সময় তিনি শুধু পাকিস্তানে থাকা সংখ্যালঘুদের বিষয়েই মন্তব্য করেছিলেন। তাহলে কি পণ্ডিত নেহরুকেও সাম্প্রদায়িক বলা হবে? তিনিও কি হিন্দু রাষ্ট্র চেয়েছিলেন?'

First published: February 7, 2020, 11:59 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर