corona virus btn
corona virus btn
Loading

প্রণব মুখোপাধ্যায় আরও সঙ্কটজনক, এবারে সংক্রমণ হল ফুসফুসে

প্রণব মুখোপাধ্যায় আরও সঙ্কটজনক, এবারে সংক্রমণ হল ফুসফুসে
File Image

১৯ অগাস্ট ফের হাসপাতালের পক্ষ থেকে বলা হল, শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির। তাঁর ফুসফুসে নতুন করে সংক্রমণ দেখা দিয়েছে।

  • Share this:

#‌নয়াদিল্লি:‌ চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছিলেন তিনি। পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, শারীরিক অবস্থা খুব ভাল না হলেও, চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। কিন্তু বেলা বাড়তেই জানা যায়, তাঁর শরীরিক অবস্থার আরও অবনিত হয়েছে। নতুন করে ফুসফুসে সংক্রমণ হয়েছে তাঁর। গত ১০ অগাস্ট থেকে দিল্লির সেনা হাসপাতালে ভর্তি আছেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। সেখানেই তাঁর চিকিৎসা চলছে। প্রাথমিক ভাবে অবস্থা অতি সংকটজনক হলেও একটু একটু করে যেন আশার আলো ফুটছিল। ছেলে অভিজিতও বারবার ট্যুইট করে জানিয়েছিলেন, কেমন আছেন তিনি। ধীরে ধীরে চিকিৎসায় সাড়া দিতে শুরু করেছিলেন প্রণব, সেকথাও জানান পুত্র অভিজিৎ। এদিন সকালেও প্রণব পুত্র ট্যুইটে করেন, প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন‌। কিন্তু ১৯ অগাস্ট ফের হাসপাতালের পক্ষ থেকে বলা হল, শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির। তাঁর ফুসফুসে নতুন করে সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। এখনও তিনি ভেন্টিলেশনেই রয়েছেন। এছাড়াও তাঁর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ। সব মিলিয়ে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের জন্য চিন্তায় আছে গোটা দেশই।

কয়েকদিন আগেই প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র ট্যুইট করে একরাশ ক্ষোভ উগড়ে দেন। তিনি বলেন, একাধিক মাধ্যমে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, যা অত্যন্ত অন্যায়। যেখানে গোটা দেশ প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির আরোগ্য কামনা করে চলেছে, সেখানে এভাবে ভুয়ো খবর ছড়ানোয় অত্যন্ত ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন তিনি। ৯ আগস্ট শৌচালয়ে পড়ে যান প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি। মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বাঁধে। পরের দিন হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় অস্ত্রোপচারের জন্য। তখনই করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। সেকথা নিজেই টুইট করে জানান প্রণব। অস্ত্রোপচারের পর থেকেই ভেন্টিলেশনে রয়েছেন তিনি। প্রথমে চিকিৎসকরা বলেছিলেন, ৯৬ ঘণ্টা নজরদারিতে রাখা হবে। তারপর খবর পাওয়া যায় গভীর কোমায় রয়েছেন তিনি। সেই থেকে মাঝে শারিরীক অবস্থার উন্নতি হলেও ফের ফুসফুসে সংক্রমণ ধরা পড়ায় চিন্তায় রয়েছেন চিকিৎসকরা।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: August 19, 2020, 1:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर