Oxygen Concentrators from China: সাবধান! কোভিড সরঞ্জামেও ভারতের উপর 'শোধ' তুলছে চিন, আশঙ্কায় বিশেষজ্ঞরা

চিনের চাল?

করোনার চিকিৎসায় কাজে লাগে, এমন নিম্নমানের সরঞ্জাম তারা ভারতে পাঠাচ্ছে বলে অভিযোগ। তার মধ্যে রয়েছে অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের মতো গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রও।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে (Corona Second Wave) বিপর্যস্ত গোটা ভারত। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের প্রাণহানিতে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম জনসংখ্যার এই দেশ। আর করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে বিশ্বের বহু দেশ ভারতের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। আমেরিকা, ব্রিটেন ও ফ্রান্সের মতো দেশ যেমন রয়েছে সেই তালিকায়, তেমনি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে ভারতের 'চিন্তা' চিনও (China)। কিন্তু সেই 'সাহায্য' নিয়ে এবার তুমুল বিতর্ক বেধেছে। করোনার চিকিৎসায় কাজে লাগে, এমন নিম্নমানের সরঞ্জাম তারা ভারতে পাঠাচ্ছে বলে অভিযোগ। তার মধ্যে রয়েছে অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের (Oxygen Concentrators) মতো গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রও। চিনের তরফে যে অক্সিজেন কনসেনট্রেটর পাঠানো হচ্ছে, তা দিয়ে চিকিৎসা হলে বিপর্যয় হতে পারে হলেও আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।

    শুধু তাই নয়, অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের দামেও চিন কারচুপি করেছে বলে অভিযোগ। চিনের বিভিন্ন সংস্থার কাছে ৫ লিটার ও ১০ লিটারের অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের দাম বিভিন্ন। ইতিমধ্যেই অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে চিনের সংস্থাগুলি। যদিও সেই দাবি অস্বীকার করেছে চিন। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, যে কোভিড সরঞ্জাম গত মাসে যা দামে কেনা হয়েছে, বর্তমানে তার দাম ১০০ ডলারেরও বেশি।

    বেশ কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা চিন থেকেই নানা সরঞ্জাম কিনে ভারতকে সাহায্য করছে। তাঁদের তরফেও জানানো হয়েছে, বহু সরঞ্জামের দাম মাত্রাতিরিক্ত হারে বাড়ানো হয়েছে। যদিও ভারতে নিযুক্ত চিনা রাষ্ট্রদূতও সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

    প্রসঙ্গত, করোনা মহামারীর কবলে পড়ে নিজের জায়গা থেকে সরে এসে বিদেশি ত্রাণ নিতে বাধ্য হচ্ছে ভারত। আর সেই সূত্রেই ১৬ বছর আগের ‘ত্রাণ না নেওয়ার’ সিদ্ধান্তে বদল এনেছে নরেন্দ্র মোদির সরকার। সেই সূত্রেই চিনের থেকে কোভিড-সরঞ্জাম আমদানি করার ক্ষেত্রে 'নিষেধ' তুলে নেওয়া হয়েছে।

    প্রসঙ্গত, সীমান্ত সংঘাত ঘিরে ভারত-চিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক তলানিতে এসে দাঁড়িয়েছে গত বছর থেকেই। গত বছর লাদাখে দুই দেশের সেনাদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনার পর থেকে সেই সংঘাত আরও বেড়েছে। সেই সময় চিনের সঙ্গে সমস্ত 'দেওয়া-নেওয়ার' সম্পর্ক চুকিয়ে দিয়েছিল ভারত। কিন্তু বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে, চিনের কাছ থেকেও সাহায্য নেওয়ায় আর আপত্তি নেই বলে জানিয়েছে দিল্লি। যদিও চিন সেই সূত্রেই যেভাবে কোভিড সরঞ্জামের দাম বাড়িয়ে নিম্মমানের সামগ্রী পাঠাচ্ছে, তাতে চিন্তা আরও বাড়ছে।

    Published by:Suman Biswas
    First published: