• হোম
  • »
  • খবর
  • »
  • দেশ
  • »
  • CHHATTISGARH POTTER FLOODED WITH ORDERS FOR DESIGNING DIYA THAT BURNS FOR 24 HOURS AHEAD OF DIWALI TC SR

ছত্তীসগড়ের কুমোরের আশ্চর্য প্রদীপ, একবার তেল দিলেই জ্বলবে পাক্কা ২৪ ঘণ্টা!

ছত্তীসগড়ের কুমোরের আশ্চর্য প্রদীপ, একবার তেল দিলেই জ্বলবে পাক্কা ২৪ ঘণ্টা!

অসংখ্য অর্ডারে ভরে গিয়েছে অশোকের খাতা। তিনি রীতিমতো হিমসিম খাচ্ছেন এতগুলো প্রদীপ বানাতে গিয়ে।

অসংখ্য অর্ডারে ভরে গিয়েছে অশোকের খাতা। তিনি রীতিমতো হিমসিম খাচ্ছেন এতগুলো প্রদীপ বানাতে গিয়ে।

  • Share this:

#ছত্তীসগড়: ছত্তীসগড়ের কোনডাগাঁওয়ের অশোক চক্রধরের এখন দম ফেলার ফুরসত নেই! আসন্ন আলোর উৎসব তথা দিওয়ালি বা দীপাবলীতে উনিই এখন সব চেয়ে উজ্জ্বল তারকা।

দিওয়ালি এলে ভারতের মোটামুটি সব বাড়িতেই আলো দিয়ে ঘর থেকে বাইরেটা সাজানোর রেওয়াজ আছে। এক সময়ে এ ব্যাপারে মাটির প্রদীপকে টেক্কা দিয়ে জাঁকিয়ে বসেছিল হাল ফ্যাশনের চাইনিজ আলোকমালা। তবে মাটির প্রদীপের আভিজাত্যই আলাদা।

যদিও মাটির প্রদীপ জ্বাললে সমস্যা ছিল একটাই। তেল বা ঘি শেষ হয়ে গেলে প্রদীপ নিভে যেত। আর এটাই বড্ড বেশি ভাবাচ্ছিল অশোক চক্রধরকে। এমন কোনও উপায় কি বের করা যায় না যাতে প্রদীপে বারবার তেল দিতে না হয়? এই চিন্তা থেকেই তিনি তৈরি করে ফেলেছেন এমন একটি প্রদীপ, যেখানে বার বার তেল দিতে হবে না। এমন ব্যবস্থা করা আছে এই প্রদীপে যে একবার তেল দিলেই পাক্কা ২৪ ঘণ্টা এই প্রদীপ জ্বলবে।

চিনের সঙ্গে এখন আমাদের সম্পর্ক তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। তাই চিনের বাহারি আলোর চেয়ে মাটির প্রদীপ কেনাতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছেন আপামর ভারতবাসী। স্থানীয় কুমোরদের কাছ থেকে প্রদীপ কিনে অনেকেই মেক ইন ইন্ডিয়া বা আত্মনির্ভর ভারতকেও সমর্থন করছেন।

অশোক জানিয়েছেন যে ইন্টারনেটে অনেক রকম প্রযুক্তি দেখে তবেই এই প্রদীপটি তিনি তৈরি করেছেন। যেখানে নিজে থেকেই তেল পড়বে প্রদীপে। আর অশোকের এই সুপারল্যাম্প এখন সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে সুপারহিট। অসংখ্য অর্ডারে ভরে গিয়েছে অশোকের খাতা। তিনি রীতিমতো হিমসিম খাচ্ছেন এতগুলো প্রদীপ বানাতে গিয়ে।

বাবার কাছ থেকে মাটির জিনিস তৈরি করা শিখেছেন অশোক। তবে তাঁকে শুধুই একজন কুমোরের পর্যায়ে ফেলা যায় না। অশোক হলেন জাত শিল্পী। তাই মাঝে মধ্যেই নিত্য নতুন মাটির জিনিস তৈরি করার চেষ্টা করেন তিনি। এই কাজে তাঁকে সাহায্য করেন তাঁর বড় মেয়ে। অশোকের আরও দুই মেয়ে আছে, তারা এখন স্কুলে পড়ছে।

পাঁচ-ছয়বার বিফল চেষ্টার পর প্রদীপের ডিজাইন সফল ভাবে করতে পেরেছেন অশোক। তাঁর প্রদীপ তৈরির ভিডিও ফেসবুকে শেয়ার করা মাত্র সেটা ভাইরাল হয়ে যায়। এর আগে স্থানীয়দের কাছে এবং দুর্গাপুজোর সময়েও এই প্রদীপ বিক্রি করেছেন তিনি।

ইতিমধ্যেই গোটা দেশ থেকে প্রায় ২০০টা ফোন পেয়েছেন ছত্তীসগড়ের অশোক। এতদিন আলাদিনের আশ্চর্য প্রদীপের কথা শুনে এসেছি আমরা, এ বার সেই জায়গায় অশোকের আশ্চর্য প্রদীপ সকলের মন জয় করে নিয়েছে।

Published by:Simli Raha
First published:

লেটেস্ট খবর