ঘুরে দাঁড় করাতে হবে পর্যটন শিল্পকে, বিদেশি পর্যটক আসায় অনুমোদন দেওয়ার পথে নয়াদিল্লি

ঘুরে দাঁড় করাতে হবে পর্যটন শিল্পকে, বিদেশি পর্যটক আসায় অনুমোদন দেওয়ার পথে নয়াদিল্লি
ট্যুরিস্ট ভিসা বা পর্যটন ভিসা চালু করার আগে ওই সংক্রান্ত একটি নির্দেশিকাও তৈরি করেছে কেন্দ্র।

ট্যুরিস্ট ভিসা বা পর্যটন ভিসা চালু করার আগে ওই সংক্রান্ত একটি নির্দেশিকাও তৈরি করেছে কেন্দ্র।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি:  কোভিডের ভ্যাকসিন চালু হতে এবং রোগের প্রকোপ একটু কমতেই বিদেশ থেকে আসা পর্যটকদের  দেশে আসার অনুমতি দেওয়ার ব্যাপারে ভাবনাচিন্তা শুরু করল কেন্দ্রীয় পর্যটন মন্ত্রক। প্রাথমিক ভাবে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত ব্যবসায়ীরা। এর ফলে ভেঙে পড়া পর্যটন শিল্প ফে  ঘুরে দাঁড়াতে পারে বলে তাঁদের আশা।

ট্যুরিস্ট ভিসা বা পর্যটন ভিসা চালু করার আগে ওই সংক্রান্ত একটি নির্দেশিকাও তৈরি করেছে কেন্দ্র। এই নির্দেশিকা ছাড়াও স্বরাষ্ট্র, স্বাস্থ্য এবং অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রকের নানা নির্দেশিকা মেনে চলতে হবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র।

ভারতে আসার আগে যে কোনও পর্যটককে এখানে ঘোরার ব্যাপারে নির্দিষ্ট সূচি করতে হবে। এ ছাড়াও সংশ্লিষ্ট পর্যটককে ভারতে পা দেওয়ার ৭২ ঘণ্টা আগে কোভিড নেই, তার আরটিপিসিআর পরীক্ষার শংসাপত্র অথবা ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রমাণ দিলে তবেই অনুমতি মিলবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র। দেশ ছেড়ে যাওয়ার আগে শরীরে কোনও রকম কোভিড জীবাণুর উপস্থিতির সম্ভাবনা দেখা দিলে সঙ্গে সঙ্গে ঘুরে বেড়ানো বন্ধ করে দিতে হবে। এমনকী, ওই অবস্থায় দেশেও ফিরতে পারবেন না সংশ্লিষ্ট পর্যটক।


ভারতে ঢোকার আগেই প্রত্যেক পর্যটককে তাঁর মোবাইলে আরোগ্য সেতু অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে। এ ছাড়া, মাস্ক পরা, পরিবেশের এবং নিজের স্বাস্থ্য বজায় রাখা, সময়ে সময়ে হাত ধোয়ার মতো সাধারণ সাবধানতা বজায় রাখতে হবে।

সমস্ত পর্যটককে তাঁদের ট্যুর অপারেটরের বিস্তারিত তথ্য ভারত সরকারের প্রতিনিধির কাছে জমা দিতে হবে। কেন্দ্রীয় পর্যটন দফতরের এক কর্তা বলেন, "কোভিড সংক্রমণ এবং তার পরে লকডাউনের পর থেকে যে সব শিল্প সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তার মধ্যে পর্যটন এবং বিমান শিল্প অন্যতম।   সমস্ত পর্যটককে তাঁদের ট্যুর অপারেটরের বিস্তারিত তথ্য ভারত সরকারের প্রতিনিধির কাছে জমা দিতে হবে।     এই অবস্থায় বিদেশি পর্যটকদের আসার অনুমতি মিললে এই দু'টি শিল্পই উপকৃত হবে।"

SHALINI DATTA

Published by:Debalina Datta
First published:

লেটেস্ট খবর