Home /News /national /
Air Fare: বিমানের টিকিটের দামে ধরা থাকে এই খরচও! সংসদে স্বীকার করলেন মন্ত্রীই

Air Fare: বিমানের টিকিটের দামে ধরা থাকে এই খরচও! সংসদে স্বীকার করলেন মন্ত্রীই

বিমানবন্দরের নিরাপত্তারক্ষীদের বেতনের টাকা ধরা থাকে বিমানের টিকিটের দামে৷

বিমানবন্দরের নিরাপত্তারক্ষীদের বেতনের টাকা ধরা থাকে বিমানের টিকিটের দামে৷

সারা দেশের মোট ৬৫টি বিমানবন্দরে ৩০ হাজার ৯৯৬ জন জওয়ান নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বিমানবন্দরগুলিতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সিআইএসএফ জওয়ানদের বেতনের টাকা তোলা হয় যাত্রীদের থেকে। টিকিটের মূল্যের সঙ্গেই সেই টাকা ধার্য করা থাকে। বিজেপি সাংসদ রাজীব প্রতাপ রুডির লিখিত প্রশ্নের জবাবে জানালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী নিত্যানন্দ রাই।

তিনি জানান, সারা দেশের মোট ৬৫টি বিমানবন্দরে ৩০ হাজার ৯৯৬ জন জওয়ান নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে, অ্যাভিয়েশন সিকিউরিটি ফি বাবদ যাত্রীদের থেকে এই টাকা নেওয়া হয়ে থাকে এবং সেই টাকা জমা হয় ন্যাশনাল অ্যাভিয়েশন সিকিউরিটি ফি ট্রাস্টে।

নিত্যানন্দ রাই পরিসংখ্যান দিয়ে জানিয়েছেন, ২০২০-২১ অর্থবর্ষে এই খাতে আদায় হয়েছে ১০০২.৫৬ কোটি টাকা। ২০২১-২২ অর্থবর্ষের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে আদায় হয়েছে ১৪২৭.৯২ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন: ভ্রমণ করতে হলেই বাধ্যতামূলক নিতে হবে ভ্যাকসিনের বুস্টার ডোজ? সিদ্ধান্ত জানাবে কেন্দ্র

বিভিন্ন বিমানবন্দরে নিযুক্ত সিআইএসেফ জওয়ানের সংখ্যা এবং তাঁদের জন্য বাজেট বরাদ্দ উল্লেখ করেছেন নিত্যানন্দ রাই। তাঁর দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, কলকাতা বিমানবন্দরে জওয়ানের সংখ্যা ১ হাজার ১৯৯ জন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে, তাঁদের জন্য বরাদ্দের পরিমাণ ১১২ কোটি ৫৮ লক্ষ ৯৩ হাজার ৬৮৮ টাকা।

আরও পড়ুন: অপরাধী সনাক্তকরণ বিল পাস লোকসভায়, বিরোধীদের দমনে করতে আইন, অভিযোগ মহুয়া-সৌগতদের

অর্থাৎ, কেন্দ্রীয় সরকার স্পষ্ট জানিয়ে দিল বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা জওয়ানদের খরচ বহন করতে হয় যাত্রীদেরই। রাজীব প্রতাপ রুডির এই প্রশ্নের জবাব কেন্দ্রীয় সরকারকে অস্বস্তিতে ফেলবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। এর আগে অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রকের বাজেট বরাদ্দ নিয়ে আলোচনার জবাবেও কেন্দ্রীয় সরকারকে তুলোধনা করেছিলেন তিনি।

রাজীব প্রতাপ রুডি বলেন, পটনা বিমানবন্দরের নাম জয়প্রকাশ নারায়ণ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। অথচ দুর্ভাগ্যের বিষয়, গত ৫০ বছরে এই বিমানবন্দর থেকে একটিও আন্তর্জাতিক বিমান ওড়েনি।  তাঁর অভিযোগ, সেখানে সাধারণ বিমান চলাচল ব্যবস্থাই ঠিকঠাক নয়।  বাংলার প্রসঙ্গ তুলে ধরে তিনি বলেন, তিন বছর ধরে বাগডোগরার ক্যাট ওয়ান ব্যবস্থা কাজ করছে না। কেন সেটির মেরামতি করেনি এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়া?" তাঁর মতে, বাগডোগরা একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা এবং সেটি উত্তর-পূর্বের প্রবেশদ্বার।

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

পরবর্তী খবর