• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • CAUVERY CALLING PROJECT PLANTING TREES ON BARREN LAND NOT A CRIME KARNATAKA HIGH COURT DISMISSES PIL TC RC

Cauvery Calling Project: 'অনুর্বর জমিতে গাছ লাগানো অপরাধ নয়', কাবেরি কলিং প্রজেক্ট নিয়ে বার্তা কর্ণাটক হাইকোর্টের

'অনুর্বর জমিতে গাছ লাগানো অপরাধ নয়', কাবেরি কলিং প্রজেক্ট নিয়ে বার্তা কর্ণাটক হাইকোর্টের

রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে কাবেরি কলিং প্রকল্প কোনও সরকারি জমি বা জনসাধারণের জমিতে গাছের চারা রোপণ করছে না। (Cauvery Calling Project)

  • Share this:

#বেঙ্গালুরু: কর্ণাটক হাইকোর্ট (Karnataka High Court) গত মঙ্গলবার একটি রিট পিটিশন (Writ Petition) খারিজ করে দিয়েছে। যার বিষয়বস্তু কাবেরী নদীর (Kaveri River) তীরের গাছ রোপণকে নিয়ে। যার পোশাকি নাম কাবেরি কলিং প্রকল্প (Cauvery Calling Project)। আদালতের আদেশ অনুযায়ী, সদগুরু জাগ্গী বাসুদেবের (Sadhguru Jaggi Vasudev) ইশা আউটরিচ ফাউন্ডেশনকে (Isha Outreach Foundation) বাধা দেওয়া হয়েছে। জানা গিয়েছে, ইশা আউটরিচ ফাউন্ডেশন কাবেরি কলিং প্রকল্পের জন্য একটি তহবিল তৈরি করেছিল। আদালতের তরফ থেকে বলা হয়েছে, “বর্তমান পরিস্থিতিতে গাছ লাগানো খুব ভালো বিষয়। এই কাজের সঙ্গে যাঁরা যুক্ত তাঁরা আদালতের কাছে প্রশংসরা পাত্র। তবে তার জন্য সাধারণ মানুষের থেকে টাকা তোলার জন্য তহবিল গড়ার কোনও প্রয়োজন নেই।” তাই আইনজীবী এভি অমরনাথনের (A V Amarnathan) দায়ের করা পিআইএল (PIL) খারিজ করে একটি সুয়ো-মটো পিটিশন দায়ের করা হয়। যার মূল্য বক্তব্য হল ইশা আউটরিচ ফাউন্ডেশন কাবেরী কলিং প্রকল্পের জন্য সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ‘অর্থ সংগ্রহ করবে না’।

কর্ণাটক হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি সতীশ চন্দ্র শর্মা (Chief Justice Satish Chandra Sharma) ও বিচারপতি সচীন শঙ্কর মাগাদুমের (Justice Sachin Shankar Magadum) ডিভিশন বেঞ্চ রায় দেয়, “অনুর্বর জমিতে গাছ লাগানো অপরাধ নয়। ইশা আউটরিচের কাবেরি কলিং প্রকল্প কোনও সরকারি প্রকল্প নয় এবং সরকারের জমিতেও গাছ রোপণ করা হচ্ছে না। তাই এই প্রকল্পে হস্তক্ষেপ করার প্রয়োজন আদালত মনে করে না”। এই মর্মে সুয়ো-মোটো পিটিশনটিকে খারিজ করা হয়। আদালতে প্রশ্ন পর্বের সময়, বিচারপতি সংশ্লিষ্ট সরকারি আইনজীবীকে জিজ্ঞেস করেন বলা যাবে এমনকী কোনও আইন আছে। যেই আইনে ভারতীয় নাগরিককে সরকারি জমিতে গাছ লাগাতে বাধা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে? যতদূর জানা আছে রাজ্য সরকার এবং হাইকোর্টের জানা নেই এমন কোনও আইন রয়েছে এবং রাজ্যেও এমন কোনও আইন বলবত করা হয়নি।

আরও পড়ুন: পাঁচ হাজার চারাগাছ রোপণ, ২০ বছর বয়সী ছাত্র গড়লেন নজির

আদালত খুব স্পষ্ট করে বলে, রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে কাবেরি কলিং প্রকল্প কোনও সরকারি জমি বা জনসাধারণের জমিতে গাছের চারা রোপণ করছে না। এই প্রকল্পটি একটি মহত প্রকল্প যার মধ্যে আদালত হস্তক্ষেপ করবার প্রয়োজন বোধ করছে না। বরং এই প্রকল্পের প্রশংসা করা উচিত। বর্তমান পরিস্থিতিতে বনভূমি কতটা প্রয়োজন তার কারোর অজানা নয়। ফলে, “মানব জাতি ও পৃথিবীকে বাঁচানোর একমাত্র উপায় সবুজায়ন। যা এই প্রকল্পের দ্বারা সামান্য হলেও সম্ভব হচ্ছে।”

Published by:Raima Chakraborty
First published: