• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • Central Vista: মহামারীর মধ্যে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প কেন? আদালতের প্রশ্নের জবাব দিল কেন্দ্র

Central Vista: মহামারীর মধ্যে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প কেন? আদালতের প্রশ্নের জবাব দিল কেন্দ্র

দেশের এমন পরিস্থিতিতে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প শুরু করার কি প্রয়োজন ছিল! এই প্রশ্নের উত্তর কেন্দ্রের কাছে চেয়েছিল আদালত।

দেশের এমন পরিস্থিতিতে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প শুরু করার কি প্রয়োজন ছিল! এই প্রশ্নের উত্তর কেন্দ্রের কাছে চেয়েছিল আদালত।

দেশের এমন পরিস্থিতিতে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প শুরু করার কি প্রয়োজন ছিল! এই প্রশ্নের উত্তর কেন্দ্রের কাছে চেয়েছিল আদালত।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি:

    করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে টালমাটাল অবস্থা গোটা দেশের। কেন্দ্র ও রাজ্যগুলি ইতিমধ্যে পরিস্থিতি মোকাবিলায় মানুষের কাছে হাত পেতেছে। যে যেমন পারবেন সাহায্য করুন, এমনই আর্জি। যাতে কোনওরকম এই কঠিন পরিস্থিতি থেকে দেশকে বের করে আনা যায়! একদিকে অক্সিজেনের সংকট। আরেকদিকে, দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা ভেঙে পড়ার মতো অবস্থা। হাসপাতালে বেড নেই। তবুও এই মহামারীর মাঝে ২০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে শুরু হয়েছে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের কাজ। নতুন সংসদীয় কার্যালয়ের কাজ কি এই পরিস্থিতিতে বন্ধ রাখা যেত না! এই সময় তো সমস্ত খরচ হওয়া উচিত স্বাস্থ্য খাতে! সেখানে এত টাকা খরচ করে এখনও সংসদীয় কার্যালয় তৈরির এত তাড়াহুড়ো কেন! এই নিয়ে একের পর এক প্রশ্নে বিদ্ধ কেন্দ্র। এমনকী মামলা গড়িয়েছে আদালত পর্যন্ত।

    কেন্দ্রের তরফে এবার দিল্লি হাইকোর্টের কাছে আবেদন করা হয়েছে, সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প বন্ধের যে মামলা হয়েছে তা যেন খারিজ করা হয়! আগামীকাল, অর্থাত্ এই মামলার শুনানি রয়েছে। দেশের এমন পরিস্থিতিতে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প শুরু করার কি প্রয়োজন ছিল! এই প্রশ্নের উত্তর কেন্দ্রের কাছে চেয়েছিল আদালত। কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে লকডাউনের আগে। মামলাকারীদের দাবি ছিল, সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের কাজ করা শ্রমিকদের রোজ কাজের জায়গায় আনা হচ্ছে। যা কি না সংক্রমণের আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। তবে সরকার পাল্টা বলছে, শ্রমিকরা সাইটে অস্থায়ী তাঁবু বানিয়ে থাকছে। তারা সামাজি দূরত্ব ও কোভিড বিধি মেনেই কাজ করছে। তাই এই প্রকল্প আটকানোর কোনও মানে হয় না।

    কেন্দ্রের তরফে এদিন আদালতকে জানানো হয়েছে, কেউ বা কারা এই প্রোজেক্ট বন্ধ করার চেষ্টা করছে। তাই তারা দেশের আইনের অপব্যবহারও করছে। চলতি বছর নভেম্বরে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রোজেক্ট-এর কাজ শেষ হওয়ার কথা। তবে তার আগে এই প্রোজেক্ট ঘিরে বিতর্কের শেষ নেই। অন্য মলহোত্র এবং সোহেল হাশমি এই প্রোজেক্ট বন্ধের দাবি জানিয়ে মামলা করেছিলেন। আদালতের কাছে তাঁরা আবেদন জানিয়েছিলেন, সেন্ট্রাল ভিস্তা রি-ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের আওতায় থাকা নির্মাণকাজে যেন অবিলম্বে স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়! উল্লেখ্য, রাজধানীতে রাষ্ট্রপতি ভবন থেকে ৩ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে নতুন সংসদীয় কার্যালয় তৈরি করাই এই প্রজেক্টের লক্ষ্য। প্রধানমন্ত্রীর নতুন বাসভবনও তৈরি হবে এই প্রকল্পের আওতায়। দিল্লির বুকে ৮৬ একর জমি নতুন করে সাজিয়ে তুলতে চায় কেন্দ্র। গত বছর জানুয়ারি মাসেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির এই স্বপ্নের প্রকল্পের ছাড়পত্র দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট।

    Published by:Suman Majumder
    First published: