দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

শাসক-বিরোধীর ময়দানি লড়াই শেষে বিহারে আজ ৭১ কেন্দ্রে অগ্নিপরীক্ষা

শাসক-বিরোধীর ময়দানি লড়াই শেষে বিহারে আজ ৭১ কেন্দ্রে অগ্নিপরীক্ষা
ভোটত্রয়ী। আজ অগ্নিপরীক্ষা।

বিহারে বিধানসভা ভোটে ২৪৩টি আসনের মধ্যে ৭১টি আসনের জন্য আজ লড়বে শাসক বিরোধী সব পক্ষ।

  • Share this:

#পটনা: লম্বা স্নায়ুযুদ্ধ, একের পর এক আখ্যান তৈরি করে নানা গোষ্ঠীকে উজ্জীবীত করা, চাকরি থেকে কালোজাদু-যখন যেমন প্রয়োজন তেমন হাতিয়ার ব্যবহার করা-এসবই চলেছে গত কয়েকমাস। প্রতিশ্রুতির বন্যা বইয়ে দিয়েছেন সব পক্ষই। অবশেষে আজ ভোট ময়দানে দেখা হওয়ার পালা। বিহারে বিধানসভা ভোটে ২৪৩টির মধ্যে ৭১টি কেন্দ্রে আজ লড়বে শাসক বিরোধী সব পক্ষ। নিউ নর্মালে এই প্রথম এতবড় ভোটপরীক্ষা। গোটা বিষয়টা সামাল দেওয়া নির্বাচন কমিশনের কাছেও পরীক্ষা।

কাদের লড়াই

বিহার ভেটে সম্মুখ সমরে দাঁড়িয়ে রয়েছে দুই শিবিবর। লালুপ্রসাদ যাদবের আরজেডি এবং বাম-কংগ্রেসের সমন্বয়ী বিরোধী শক্তির নাম মহাগঠবন্ধন। আর রয়েছে জেডিই-বিজেপি-বিকাশশীল ইনসান পার্টি-হিন্দুস্থান আওয়াম মোর্চার এন়ডিএ জোট। জোটসঙ্গী হলেও বাইরে এসে লড়ছে রামবিলাস পাসোয়ানের দল।

সমীক্ষা বনাম ময়দানি কুস্তি

বিহারে প্রাকভোট সমীক্ষা দেখাচ্ছে এবার মসনদে বসার প্রবল সম্ভাবনা এনডিএ জোটেরই। কিন্তু রণভূমি যখন বিহার তখন বহু সমীক্ষাই মেলে না। এমন অতীতে বহুবার দেখা গিয়েছে। ২০১৫ সালের সমীক্ষায় দেখা গিয়েছিল আরজেডজি-কংগ্রেস মিলে ভোট পাচ্ছে ১৫.২ শতাংশ আর বিজেপি এক ভাবেই পাচ্ছে ৩৫.৫ শতাংশ। কার্যক্ষেত্রে দেখা যায়, বিহারে আরজেডি কংগ্রেস শিবির ২৫.৫ শতাংশ ভোট পেয়ে গিয়েছে আর বিজেপির ভোট কমে এসেথে ২৫ শতাংশ। সেই ফলকে মাথায় রেখেই মহাগঠবন্ধন এবার চাইছে যাদব এবং মুসলিম ভোটব্যাঙ্ককে কাজে লাগাতে। তেজস্বীর তুরুপের তাস-ভোকাল ফর লোক্যাল। রামমন্দির বা সিএএ-এর মতো ইস্যু সামনেই আনেননি তেজস্বী। একদিকে যখন নীতিশ আমলে অপরাধপ্রবণতা কমা, নগরায়ন ও ঘরে ঘরে জল পৌঁছে দেওয়ার অঙ্গীকার পূরণই এনডিএ-র হাতিয়ার, তেজস্বী চাইছেন দ্রব্যমূল্য থেকে কর্মহীনতাকে ভোট ইস্যু করে তুলতে। পরিযায়ী শ্রমিকদের অশেষ দুর্গতির জন্য নীতীশ কুমারকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করাচ্ছেন তিনি।

মাঠে নামলেন চিরাগ

পিতার মৃত্যুর পরে খোলামাঠে খেলতে নেমে ইচ্ছেমতো ব্যাট চালিয়েছেন চিরাগ পাসোয়ান। বলেছেন নীতীশকে দুর্নীতির জন্য জেলের ঘানি টানাবেন ক্ষমতায় এলে। তবে এলজিপির দলিত তাসের ঘর ভাঙতে নীতিশরা সঙ্গে রেখেছেন মহাদলিত নেতা জিতনরাম মাঝির দল হিন্দুস্থান আওয়ামি মোর্চাকে। নীতিশের দল বিলক্ষণ জানে, জিতনরাম মাঝির হাতে রয়েছে অন্তত শতাংশ ভোট। অন্য দিকে বিজেপির মুখ সুশীল মোদি চাইছেন উচ্চবর্ণের ভোট একজায়গায় আনতে।

মদ খাওয়া বড় দায় জাত থাকে কী উপায়

নীতীশ কুমাররা এবার প্রচারে শুরু থেকেই চেয়েছিলেন উন্নয়নকে সামনে রাখতে। বলেছিলেন অপরাধ কমেছে, মদ নিষিদ্ধ করা গিয়েছে। এই সময় তেজস্বী মদকেই হাতিয়ার করলেন, বললেন তবে মদ আসছে কোথা থেকে? কেন বাড়ছে অবৈধ পাচার? অচিরেই দেখা গেল মদও অস্ত্র হয়ে উঠল বিহার ভোটে। এই ত্রাহ্যস্পর্শের ফল কী? আজ থেকেই জানান দেবে ইভিএম।

Published by: Arka Deb
First published: October 28, 2020, 8:48 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर