দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

নয়া শিক্ষানীতিতে অনুমোদন মন্ত্রিসভার, শিক্ষাক্ষেত্রে বিপুল পরিবর্তন, বদলে যাচ্ছে বোর্ড পরীক্ষা, মাতৃভাষায় জোর

নয়া শিক্ষানীতিতে অনুমোদন মন্ত্রিসভার, শিক্ষাক্ষেত্রে বিপুল পরিবর্তন, বদলে যাচ্ছে বোর্ড পরীক্ষা, মাতৃভাষায় জোর
৩৪ বছর পর নয়া শিক্ষানীতি ৷ এই নয়া শিক্ষানীতিতে মাধ্যমিক ‘গুরুত্বহীন’ ৷ একাদশ-দ্বাদশে স্ট্রিম থাকছে না ৷ বিদায় নিচ্ছে এমফিল ৷ নতুন জাতীয় শিক্ষানীতিতে কার্যত গুরুত্বহীন মাধ্যমিক। অন্যদিকে ধারে-ভারে গুরুত্ব বাড়ছে উচ্চ-মাধ্যমিকের।
  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ৩৪ বছরের শিক্ষানীতির খোলনলচে বদলে ফেলে শিক্ষাক্ষেত্রে বড়সড় পরিবর্তনের পদক্ষেপ নিল মোদি সরকার ৷ বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ছাড়পত্র পেল নয়া জাতীয় শিক্ষানীতি ৷ এর ফলে দেশে পড়াশুনার ধরনে বড়সড় বদল আসতে চলেছে ৷ সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরুর আগেই এই নীতি প্রণয়ন করতে চায় কেন্দ্র ৷

ক্যাবিনেট ব্রিফিংয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর ও কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল জানান, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উপস্থিতিতে বিশেষজ্ঞ কমিটির সুপারিশ মেনে জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০-কে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা ৷ গত ৩৪ বছর ধরে দেশের এডুকেশন পলিসির কোনও সংস্করণ করা হয়নি ৷ একবিংশ শতকের পড়ুয়াদের জন্য একান্ত উপযোগী এই নয়া শিক্ষানীতি ৷’ ২০১৪ সালের নির্বাচনী ইস্তেহারে নয়া শিক্ষানীতি চালুর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল বিজেপি৷ দেশের গোটা শিক্ষা ব্যবস্থাকেই একেবারে আমূল সংস্কার করা হয়েছে নয়া নীতিতে৷ দেশের মোট জিডিপি-র ৬ শতাংশ বরাদ্দ করা হয়েছে শিক্ষাখাতে৷ যা এতদিন ছিল ৪.৪৩ শতাংশ৷

নয়া শিক্ষানীতিতে কার্যত গুরুত্ব হারাতে চলেছে দশমের বোর্ড পরীক্ষা ৷ অর্থাৎ নতুন শিক্ষানীতিতে গুরুত্বহীন মাধ্যমিক ৷ নবম-দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত স্কুলে হবে ৮টি সেমেস্টার ৷ একাদশ-দ্বাদশে বাণিজ্য, বিজ্ঞান, কলা কোনও আলাদা স্ট্রিম থাকবে না ৷ স্নাতকে ৩-এর বদলে ৪ বছরের স্নাতক কোর্স হবে ৷ নতুন শিক্ষানীতিতে থাকছে না এমফিল ৷ পঞ্চম পর্যন্ত মাতৃভাষা বা আঞ্চলিক ভাষায় পড়তে পারবেন পড়ুয়ারা ৷

নতুন শিক্ষানীতিতে বলা হয়েছে, কমপক্ষে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা বা শিক্ষাদানের মাধ্যম হিসাবে আঞ্চলিক বা স্থানীয় ভাষাকে মাধ্যম করতে হবে। অর্থাৎ পড়ুয়াদের আঞ্চলিক বা মাতৃভাষাতেই পড়াতে হবে ৷ সেটা যদি অষ্টম শ্রেণি বা তার বেশি করা যায়, তাহলে আরও ভাল হয়। সমস্ত স্কুল স্তর ও উচ্চশিক্ষায় সংস্কৃত পড়ার সুযোগ পাবে পড়ুয়ারা। এখানে মানা হবে তিনটি ভাষার নীতি। অর্থাৎ তিনটি ভাষা পড়ানো হবে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা আঞ্চলিক ভাষা ও সংস্কৃতিকে গুরুত্ব দিতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে মনে করছেন শিক্ষাবিদরা।

এবার স্কিল ডেভলপমেন্টের ওপরে গুরুত্ব দিতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। সেই কারণে ক্লাস ৬ থেকে পড়ুয়াদের প্র‌্যাকটিক্যাল অ্যাসাইনেমন্ট দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। এছাড়া, উচ্চশিক্ষায় এমফিল কোর্সটি তুলে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

একইসঙ্গে বদলে গেল কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের (Human Resource Development Ministry) নাম ৷ এবার থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের এই দফতর শিক্ষামন্ত্রক হিসেবে পরিচিত হতে চলেছে ৷ রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা আরএসএস দীর্ঘদিন এই নাম বদলের সুপারিশ করে আসছিল। সেই সুপারিশ মেনেই এদিন এই নাম বদল করা হয় ৷

সূত্রের খবর, বিশেষজ্ঞ কমিটির প্রস্তাব অনুযায়ী নয়া জাতীয় শিক্ষানীতির (National Education Policy) অংশ হিসেবেই এই নাম পরিবর্তন ৷ ১৯৮৫ সালে রাজীব গান্ধী প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন এই মন্ত্রকের নাম মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক করা হয়েছিল ৷

Published by: Elina Datta
First published: July 29, 2020, 9:46 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर