দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

পাখির চোখ ২০২১ নির্বাচন, বাংলায় দলীয় সংগঠন মজবুত করতে বড়সড় বদল বিজেপি-র

পাখির চোখ ২০২১ নির্বাচন, বাংলায় দলীয় সংগঠন মজবুত করতে বড়সড় বদল বিজেপি-র
ফাইল ছবি

শুক্রবার দেশের বিভিন্ন রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্তদের মধ্যে বড়সড় রদবদল করল কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ২০২১ নির্বাচনের আগে গুটি সাজাচ্ছে বিজেপি। হাতে মাত্র কয়েকমাস সময়। ফলে শুরু হয়ে গিয়েছে জোরকদমে প্রস্তুতি। এমতাবস্তায় শুক্রবার দেশের বিভিন্ন রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের মধ্যে বড়সড় রদবদল করল কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের পাখির চোখ যে বাংলা, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ফলে বাংলায় দলের সংগঠন মজবুত করার উপরেই সবথেকে বেশি জোর দিচ্ছে বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব।  এতদিন কেন্দ্রীয় নেতা হিসেবে বাংলার দায়িত্ব ছিল মূলত কৈলাস বিজয়বর্গীয়র হাতে। সেই দায়িত্বে শুক্রবার জোড়া হল আরও একজনকে। অর্থাৎ, বাংলায় তৃণমূলকে কোণঠাসা করার বাসনা নিয়ে এখন থেকে বিজেপি-র আইটি সেল চিফ অমিত মালব্য এবং কৈলাস বিজয়বর্গীয় যৌথভাবে বাংলার সংগঠন মজবুত করবেন।

বিহার নির্বাচনে জয় এসেছে। বিহারের ইন-চার্জ করা হল ভূপেন্দ্র যাদবকে। তিনিই গুজরাতেও দায়িত্ব সামলাবেন। অমিত শাহ ঘনিষ্ঠ মুরলীধর রাওকে মধ্যপ্রদেশের দায়িত্বে দেওয়া হয়েছে। মণিপুর এবং  জম্মু-কাশ্মীরের ইন-চার্জ পদে থাকা রাম মাধবের উপরে ভরসা কমেছে দলের। ফলে এবারে আর কোনও রাজ্যের দায়িত্বে রাখা হয়নি তাঁকে। তাঁর স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন বিজেপির মুখপাত্র সম্বিত পাত্র। 'টিম অমিত শাহ'-এর অন্যতম সদস্য অনিল জৈনকেও কোনও রাজ্যের দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।

 ২০২১-এ অসমে নির্বাচন। তার আগে জমি শক্ত করতে অসমের দায়িত্বে আনা হল বৈজয়ন্তী জয় পান্ডাকে। বাড়তে থাকা অপরাধ নিয়ে বেজায় চিন্তায় উত্তরপ্রদেশ প্রশাসন। হিংসা-হানাহানির পাশাপাশি মহিলাদের উপর  বাড়তে থাকা নির্যাতন, ধর্ষণ, শ্লীলতাহানির মতো ঘটনা নির্বাচনে প্রভাব ফেলতে পারে। সে আশঙ্কা থেকেই উত্তরপ্রদেশে দলের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে দায়িত্বে থাকা রাধা মোহনকে সাহায্য করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সত্য কুমার, সুনীল ওঝা এবং সঞ্জীব চৌরাশিয়াকে। রাধা মোহনকে রাজস্থানের দলীয় কর্মকাণ্ড দেখারও দায়িত্ব দেওয়া হল।

মহারাষ্ট্রের দায়িত্বে এলেন বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সিটি রবি। তিনিই গোয়া এবং তামিলনাড়ুর দায়িত্বে বহাল হয়েছেন। দিল্লির ইন-চার্জ পদে থাকা তরুণ চৌগকে জম্মু-কাশ্মীর, কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল লাদাখ এবং তেলঙ্গানা সামলানোর দায়িত্ব দিয়েছে গেরুয়া নেতৃত্ব। ওড়িশা এবং ছত্তীসগড়ের দায়িত্ব পেয়েছেন নব নিযুক্ত সাধারণ সম্পাদক ডি পুরন্দেশ্বর। দলের সাধারণ সম্পাদক দুশ্যন্ত গৌতমকে পঞ্জাব, চণ্ডীগড়, উত্তরাখণ্ড এবং দিলীপ সাকিয়াকে অরুণাচল প্রদেশ এবং ঝাড়খণ্ডের দায়িত্বে বহাল করা হয়েছে। অন্ধ্রপ্রদেশের ইন-চার্জ করা হয়েছে ভি মুরলিধরণকে। তাঁকে সাহায্য করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সুনীল দেওধরকে।

Published by: Shubhagata Dey
First published: November 14, 2020, 10:19 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर