বিজেপির ইশতেহার প্রকাশ আজ, শিক্ষা-চাকরি-সংরক্ষণ কোন বিষয়ে কী প্রতিশ্রুতি থাকতে পারে

বিজেপির ইশতেহার প্রকাশ আজ, শিক্ষা-চাকরি-সংরক্ষণ কোন বিষয়ে কী প্রতিশ্রুতি থাকতে পারে

কী থাকছে বিজেপির ইস্তেহারে?

দেখা যাক কী কী প্রস্তাব থাকতে পারে বিজেপির ইশতেহারে

  • Share this:

    #কলকাতা: ভোটপ্রচারে রাজ্যেই রয়েছেন বিজেপির দুই প্রধান মুখ নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহরা। এগরার জনসভা থেকে শাহ, বাঁকুড়ার জনসভা থেকে নরেন্দ্র মোদি সামান্য আগে পরে উপস্থিত জনতাকে ডবল ইঞ্জিন সরকার গড়ার আহ্বান জানালেন। এর পরের ধাপ রবিবাসরীয় সন্ধ্যেয় ইস্তেহার প্রকাশ। ইতিমধ্যেই ইস্তেহার প্রকাশ করে ফেলেছে তৃণমূল। সংরক্ষণ, কর্মসংস্থান, ৫ টাকার খাবারের মতো বহু চমক রয়েছে সেই ইশতেহারে। প্রার্থীতালিকার মতোই বিলম্বিত ইশতেহারে কী রাখবে বিজেপি, সেই নিয়ে স্বাভাবিক ভাবেই জল্পনা রয়েছে সব মহলে। দেখা যাক কী কী প্রস্তাব থাকতে পারে বিজেপির ইশতেহারে-

    মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দুয়ারে সরকার প্রকল্পটি ব্যাপক জনপ্রিয় হয়েছে ভোট পূর্ববর্তী মরসুমে। এরই কাছাকাছি দুয়ারে প্রশাসন নামক একটি প্রকল্প সামনে আনতে পারে বিজেপি, এমনই ইঙ্গিত থাকছে। প্রশাসনিক কার্যকলাপ আরও সহজতর হবে বিজেপি ক্ষমতায় এলে। নয়া শিক্ষানীতি প্রণয়নের আশ্বাসও শোনা যেতে পারে এই ইশতেহারে।

    প্রসঙ্গত তৃণমূলের ইস্তেহারে জোর দেওয়া হয়েছে মহিলাদের ক্ষমতায়নে। সূত্রের খবর, পাল্টা দিতেই সরকারি চাকরিতে ৩৩ শতাংশ মহিলা সংরক্ষণের ডাক দিতে পারে বিজেপি।

    রাজ্য হোক বা কেন্দ্র বেকারত্বই সব থেকে বড় ইস্যু। এই সময়ে দাঁডিয়ে ইশতেহারে চাকরি , আরও বিশেষ ভাব বললে টেট, এসসি নিয়ে প্রস্তুতি থাকতে পারে। আসতে পারে সপ্তম পে কমিশনের ঘোষণা।

    সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মন দিয়েছে বিজেপি তৃণমূল প্রতিটি দলই। সেই জায়গায় আদিবাসী পড়ুয়াদের জন্য প্রতিটি ব্লকে একটি করে একলব্য স্কুল, কৃতি ছাত্রদের জন্য বৃত্তির আশ্বাস থাকতে পারে। থাকতে পারে রঘুনাথ মুর্মুর নামে আদিবাসী বিশ্ববিদ্যালয় গড়ার প্রতিশ্রুতিও। বিভিন্ন আদিবাসী গোষ্ঠীর উন্নয়নে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করতে পারে বিজেপি, সূত্র বলছে এই আশ্বাস দেওয়া থাকবে ইশতেহারে। স্কলারশিপের আশ্বাস থাকতে পারে মতুয়া পড়ুয়াদের জন্যও। তবে এই গোষ্ঠীকে নাগরিকত্বের আশ্বাস দেওয়া হবে কিনা সেই প্রশ্নটি ঘিরে জল্পনা রয়েছে।

    বিজেপির ইশতেহারে উঠে আসতে পারে তাদের প্রস্তাবিত পর্যটন মানচিত্র। যেখানে গুরুচাঁদ মন্দিক, মদনমোহন মন্দির, কামেশ্বরী মন্দির ঢেলে সাজানোর আশ্বাস থাকবে বলেই মনে করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই গঙ্গাসাগর মেলাকে আন্তর্জাতিক স্তরে নিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে।

    মনে করা হচ্ছে অনুপ্রেবশ রোখার পদ্ধতি নিয়েও ঘোষণা থাকতে পারে এই প্রস্তাবে। থাকতে পারে কলকাতার বস্তিবাসীদের জন্য পাকা বাড়ি গড়ে দেওয়ার আশ্বাস।

    Published by:Arka Deb
    First published: