বিমল গুরুংকে নিয়ে কথাই হয়নি! মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক শেষে দাবি বিনয় তামাংয়ের

বিমল গুরুংকে নিয়ে কথাই হয়নি! মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক শেষে দাবি বিনয় তামাংয়ের
বিমল গুরুং-কে নিয়ে ফের উত্তপ্ত পাহাড়৷ Photo-File/PTI

গুরুং প্রকাশ্য আসার পরই ফের অশান্তির সম্ভাবনা মাথাচাড়া দেয় পাহাড়ে৷ গুরুং পন্থী এবং বিরোধীরা মিছিল পাল্টা মিছিল শুরু করেন৷

  • Share this:

    #কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠকে বিমল গুরুংকে নিয়ে কোনও আলোচনাই হয়নি৷ নবান্নে রাজ্য সরকারের সঙ্গে বৈঠকের পর এমনই দাবি করলেন জিটিএ প্রধান এবং গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার নেতা বিনয় তামাং৷ তাঁর দাবি, শুধুমাত্র পাহাড়ের শান্তি কীভাবে বজায় রাখা যায়, তা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁদের আলোচনা হয়েছে৷ বিনয় তামাং ছাড়াও এ দিনের বৈঠকে হাজির ছিলেন অনীত থাপা৷ অন্যদিকে রাজ্যের তরফে মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও বৈঠকে হাজির ছিলেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম সহ রাজ্য প্রশাসনের শীর্ষ কর্তারা৷ বৈঠকের শেষে অবশ্য বিনয় তামাং দাবি করেছেন, এ দিনের আলোচনা সদর্থক হয়েছে৷

    দীর্ঘ দিন গা ঢাকা দিয়ে থাকার পর পঞ্চমীর দিন আচমকাই কলকাতায় হাজির হন বিমল গুরুং৷ বিজেপি-র সঙ্গ ত্যাগ করে তৃণমূলের প্রতি বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেন তিনি৷ ফের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান বলে দাবি করেন গুরুং৷ তাঁর এই দাবির পরে তৃণমূলের তরফেও ট্যুইট করে গুরুংয়ের অবস্থানকে স্বাগত জানানো হয়৷ ফলে পাহাড়ের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা বেড়েছিল৷

    গুরুং প্রকাশ্য আসার পরই ফের অশান্তির সম্ভাবনা মাথাচাড়া দেয় পাহাড়ে৷ গুরুং পন্থী এবং বিরোধীরা মিছিল পাল্টা মিছিল শুরু করেন৷ জিটিএ প্রধান বিনয় তামাং এবং তাঁর অনুগামীরা সাফ জানিয়ে দেন, কোনও অবস্থাতেই পাহাড়ে ঢুকতে দেওয়া হবে না৷ জটিলতা এড়াতে এ দিন নবান্নে বিনয় তামাং, অনীত থাপাদের বৈঠকে ডাকেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷


    আশা করা হয়েছিল, গুরুংয়ের প্রত্যাবর্তন নিয়েই এ দিনের বৈঠকে রাজ্য প্রশাসনের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে মোর্চা নেতাদের আলোচনা হবে৷ যদিও বৈঠক সদর্থক হয়েছে বলে দাবি করেও বিনয় তামাং দাবি করেন, আলোচনায় বিমল গুরুংয়ের নাম পর্যন্ত ওঠেনি৷ পাহাড়ে গত তিন বছর যে শান্তি বজায় রয়েছে, তা কীভাবে ধরে রাখা যায়, কীভাবে পাহাড়ের আরও উন্নতি করা যায়, সেই সমস্ত বিষয় নিয়েই আলোচনা হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিনয় তামাং৷ তাঁর কথায়, 'তিন বছর ধরে কোনও বনধ, খুন, অশান্তি, হিংসার ঘটনা ঘটেনি দার্জিলিংয়ে৷ গোটা উত্তরবঙ্গ খুশি রয়েছে৷ লকডাউনের পরেও দার্জিলিংয়ে হাজার হাজার পর্যটক আসছেন৷ আমরা চাই পাহাড়ে পর্যটক আসুক, দার্জিলিং শান্ত থাকুক৷ কারণ পর্যটনই প্রধান শিল্প৷'

    এ দিনও তিনি দাবি করেন, বিমল গুরুং- রোশন গিরি ক্লোজড চ্যাপ্টার৷ জিটিএ প্রধান বলেন, 'বিমল গুরুংয়ের বিষয়টি বিচারাধীন রয়েছে৷ তাঁর বিরুদ্ধে ১৬৭টি মামলা রয়েছে, তিনি ইউএপিএ আইনে ঘোষিত অপরাধী৷ আমাদের তো বিচার ব্যবস্থাকে সম্মান জানাতে হবে৷ আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নয়৷ আমরাও জেল খেটে এসেছি, আদালতকে সম্মান করি৷ বিমল গুরুং তো আদালতে ধরাই দেয়নি৷ কাল থেকে তো বলছি, বিমল গুরুং- রোশন গিরি আমাদের সিলেবাসে নেই৷ ভবিষ্যতেও বিমল গুরুং, রোশন গিরির সঙ্গে প্রশাসনিক-রাজনৈতিক কোনও স্তরে সমঝোতায় যাব না৷'

    বিমল গুরুং সমর্থন জানানোর পর তৃণমূলের তরফে যে ট্যুইট করা হয়, তাকেও গুরুত্ব দিতে নারাজ বিনয় তামাং৷ তাঁর দাবি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গুরুং-কে নিয়ে কিছু বলেননি৷ তৃণমূলের প্রথম সারির কোনও নেতাও গুরুং-কে সমর্থন জানিয়ে প্রকাশ্যে বক্তব্য রাখেননি৷ ফলে রাজ্য সরকারের সঙ্গে বৈঠকের পর তাঁরা খুশি বলেই জানিয়েছেন বিনয় তামাং৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    লেটেস্ট খবর