• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • BIHAR MIGRANT WORKERS SON WINS GOLD MEDAL AT IIT ROORKEE US SCHOLARSHIP TC SS

বাবা পরিযায়ী শ্রমিক, ছেলে IIT Roorkee থেকে পেলেন স্বর্ণপদক, পেলেন আমেরিকার স্কলারশিপও!

22-year-old Rahul Kumar is the son of a daily wage worker | Image credit: IANS

মেটালারজিক্য়াল ও মেটেরিয়ালস (Metallurgical and Materials Engineering) বিভাগে BTech পাশ করেছেন তিনি।

  • Share this:

#সুরাত: বাবা পরিযায়ী শ্রমিক (Migrant Worker)। থাকেন গুজরাতে (Gujarat)। কাজ করেন সুরাতের (Surat) পাওয়ারলুমে। দিন আনা দিন খাওয়ার সংসারেই বড় হয়ে ওঠা। সেখানে থেকে পড়াশোনা করে যোগ দেওয়া IIT Roorkee-তে। এ বার দেশের অন্যতম সেরা এই IIT থেকে স্বর্ণপদক নিয়ে BTech পাশ করলেন বিহারের রাহুল কুমার (২২)। পেলেন স্কলারশিপও।

বিহারের (Bihar) নালন্দা (Nalanda) জেলার প্রত্যন্ত গ্রাম সোসান্দিতে বাড়ি রাহুলের। বাবা ৫২-র সুনীল সিং কাজ করেন সুরাতের একটি পাওয়ারলুমে। সেখানে দিন মজুর হিসেবেই কাজ করেন তিনি। বিহারের বাড়িতে পাঁচ সন্তান ও স্ত্রীর খরচা চালাতে থাকেন সুরাতে থেকেই। এই নিদারুণ অর্থনৈতিক সংগ্রামের মধ্যে দিয়েই এগিয়ে চলেছিলেন রাহুল। পড়াশোনায় তিনি বরাবরই অত্যন্ত ভাল। তাই তাঁর উন্নতির ধাপগুলো একটু কঠিন হলেও অবশেষে জয়ের হাসি দেখা দিয়েছে ঠোঁটের কোণে। মেটালারজিক্য়াল ও মেটেরিয়ালস (Metallurgical and Materials Engineering) বিভাগে BTech পাশ করেছেন তিনি।

তবে, শুধু পড়াশোনাই নয়, এর পাশাপাশি বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কাজে যুক্ত রয়েছেন তিনি। যার জন্যই বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে পেলেন স্বর্ণপদক। সমাজসেবামূলক একাধিক পদক্ষেপের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক সমাবর্তনের দিন তাঁকে President's Dr. Shankar Dayal Sharma Gold Medal-এ ভূষিত করা হয়।

সমাজসেবামূলক কাজ, পড়াশোনা ছাড়াও ২২ বছর বয়সী রাহুলের মধ্যে যে কোনও কিছু পরিচালন করার ক্ষমতা এতটাই ছিল যে তিনি ন্যাশনাল সার্ভিস স্কিম (National Service Sceme), IIT Roorkee-র সাধারণ সম্পাদক পদে আসীন হয়েছেন।

স্বাভাবিক ভাবেই রাহুল যেমন দেশের গর্ব, তেমনই তিনি নয়নের মণি অধ্যাপকদেরও। খুব কাছ থেকে তাঁর সংগ্রাম দেখার অভিজ্ঞতা হয়েছে যাঁর, সেই IIT Roorkee-র ডিরেক্টর অধ্যাপক অজিত কে চতুর্বেদী কৃতী ছাত্রের সম্পর্কে বলতে গিয়ে জানান, দুর্দান্ত নেতৃত্বপ্রদান ও পরিচালন দক্ষতার জন্য রাহুল প্রায় ১০০০ জন পড়ুয়ার একটি টিম চালাতেন এবং বিভিন্ন কলেজ, সরকারি অফিস, অসরকারি সংগঠনের সঙ্গে দারুণ সংযোগ বজায় রেখেছিলেন। ইয়ুথ লিডারশিপ (Youth Leadership)-এ তাঁর ভূমিকা অনস্বীকার্য।

BTech পাশ করার পর বর্তমানে তিনি আমেরিকার উটা বিশ্ববিদ্যালয়ে PhD করার সুযোগ পেয়েছেন এবং সেখানেই সরকারি অধ্যাপক হিসেবেও পড়ানোর সুযোগ পেয়েছেন।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: