Bihar Election Result 2020| বয়স্ক আর মহিলাদের সমর্থনেই কি বিহারে ফের আসছেন নীতীশই?

প্রচারের সময় মহাজোট এগিয়ে ছিল বলে মনে হলেও ভোটগ্রহণ এবং একের পর এক এক্সিট পোলে বোঝা গিয়েছিল যে নীতীশের প্রতি 'নীরব ভোটার' একটা ফ্যাক্টর হতে পারে।

প্রচারের সময় মহাজোট এগিয়ে ছিল বলে মনে হলেও ভোটগ্রহণ এবং একের পর এক এক্সিট পোলে বোঝা গিয়েছিল যে নীতীশের প্রতি 'নীরব ভোটার' একটা ফ্যাক্টর হতে পারে।

  • Share this:

    #পটনা: বিহার বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম দিকে (Bihar Chunav Result 2020) এনডিএ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে বলে মনে হচ্ছে, যদিও মহাজোটও লড়াইয়ে পিছিয়ে নেই৷ মনে করা হচ্ছিল যে এবার যুবশক্তির দিকে বেশি ঝুঁকছে বিহারবাসী৷ তেজস্বীর ওপর নজর ছিল এমনকী বেশিরভাগ বুথ ফেরত সমীক্ষা মহাজোটের জয়ের ব্যাপারে ইঙ্গিত দিচ্ছিল৷ এটা মনে করা হচ্ছিল যে, নীতীশ কুমারের বিরুদ্ধে ছিল হাওয়া৷ এমনকী বর্ধমানে বেকারত্বের হারও অনেকটা সমস্যায় ফেলেছিল নীতীশ সরকারকে৷ যা নির্বাচনের ফলাফলে ছাপ ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছিল৷ যদিও প্রাথমিক যে ট্রেনড দেখা যাচ্ছিল তাতে এনডিএ জোট অনেকটা এগিয়ে এবং ম্যাজিক ফিগার পেরিয়ে গিয়েছে৷ তবে এখনও লড়াইয়ে রয়েছে কংগ্রস-আরজেডির মহাজোট৷

    ইন্ডিয়া টুডে - অ্যাকসিস মাই ইন্ডিয়া সমীক্ষা অনুযায়ী যে তরুণ ভোটাররা প্রকাশ্যে তেজশ্বী যাদব এবং মহাজোটকে সমর্থন করছেন ঠিকই তবে ৩৬ বছরের বেশি বয়সী ভোটাররা এনডিএ এবং বিশেষত নীতীশ কুমারের সমর্থনে থাকবেন বলে জানানো হয়েছিল। সমীক্ষা অনুসারে, মহাগটবন্ধন তারুণ্যে পক্ষে৷ ২৬ থেকে ৩৫ বছরের ভোটারদের তেজশ্বীর পক্ষে থাকছেন। তবে, এমনকি এই বয়সের মধ্যেও, ৩৬% ভোটাদের নীতীশকে সমর্থন করতে দেখা গেছে। এই দুই বয়সের মাত্র ৭% এলজেপির পক্ষে ৷ ১৫ থেকে ২৫ বছর বয়সের ৩৪% ভোটার এনডিএর পক্ষে, জানিয়েছে সমীক্ষা।

    বিহার সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রী থেকে শুরু করে মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার এবং বিজেপির সব বড় নেতা এমনকী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও একের পর এক নির্বাচনী প্রচার এবং সমাবেশে লালু যাদবের 'জঙ্গলরাজ'-এর বিরুদ্ধে উল্লেখ করেছিলেন। বিশেষজ্ঞদের মতে,যুব সমাজের মধ্যে লালুর জমানার স্মৃতি সেভাবে চাঙ্গা না থাকলেও বয়স্কদের মধ্যে সেই সময় আজও টাটকাই রয়েছে৷ তাই ৩৬ বছরের উপরে ভোটারদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাঁড়ায়৷ জেডিউ-বিজেপির একের পর এক আসনে এগিয়ে থাকা, সেই বিষয়টিই আরও স্পষ্ট করছে৷ সমীক্ষা অনুসারে, মুখ্যমন্ত্রীর পদের জন্য, ৪০% মানুষ তেজশ্বীকে পছন্দ করলেও, নীতীশের পক্ষেও ছিলেন ৩৫% ভোটদাতা৷

    প্রচারের সময় মহাজোট এগিয়ে ছিল বলে মনে হলেও ভোটগ্রহণ এবং একের পর এক এক্সিট পোলে বোঝা গিয়েছিল যে নীতীশের প্রতি 'নীরব ভোটার' একটা ফ্যাক্টর হতে পারে। নির্বাচনে 'চুপচাপ তীর ছাপ'-এই কাজ হয়েছে এবং বিরাট অংশও নীরবেই নীতীশের সমর্থনে ভোট দিয়েছে। তবে, ভোট গণনা এখনও চলছে এবং চূড়ান্ত ফলাফলের জন্য অপেক্ষা থাকবে।

    Published by:Pooja Basu
    First published: