• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • প্রেমিকার জন্মদিনে সারপ্রাইজ দিতে গিয়ে থানায় রাত কাটাতে হল ব্যক্তিকে

প্রেমিকার জন্মদিনে সারপ্রাইজ দিতে গিয়ে থানায় রাত কাটাতে হল ব্যক্তিকে

প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

প্রেমিকার জন্মদিনে সারপ্রাইজ দিতে গিয়ে নিজেই সারপ্রাইজ হয়ে গেলেন ব্যাক্তি। জন্মদিন পালন তো মাথায় উঠলো, উলটে রাত কাটাতে হল পুলিশ থানায়।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: আলাপ অনলাইনে। উভয়েরই সম্মতি ছিল, তাই বন্ধুত্বটাও বেশ পাকাপোক্ত হয়ে উঠছিল। সেখান থেকেই ধীরে ধীরে প্রেম শুরু। কিন্তু দেখা সাক্ষাৎ কখনও হয়নি। তাই প্রেমিকার জন্মদিনে সারপ্রাইজ দিতে গিয়ে নিজেই সারপ্রাইজড হয়ে গেলেন ব্যক্তি। জন্মদিন পালন তো মাথায় উঠলো, উলটে রাত কাটাতে হল পুলিশ থানায়। প্রতিটি প্রেমের গল্প সুখের হয়না, ঠিকই! তবে ঘটনাটিকে মজাদার বলা যেতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়ায় আলাপ হয়েছিল বান্ধবীর সঙ্গে। তাঁকে জন্মদিনে সারপ্রাইজ দিতে দু’হাজার কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে এসেছেন ব্যক্তি। সঙ্গে বান্ধবীর জন্য জন্মদিনের উপহার, চকোলেট, টেডি বিয়ার নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু ঘটনাচক্রে দেখা গেল, যার সঙ্গে ওই ব্যক্তি এতদিন কথা বলছিলেন, সেই মহিলা তাঁকে চিনতে অস্বীকার করেন। পরিবারের লোকেরা মারধর করে এবং পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পুলিশ সূত্রে খবর, ২১ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির নাম সলমন। তিনি উত্তরপ্রদেশের দেউরিয়া জেলার বাসিন্দা। বেঙ্গালুরুতে চাকরির সূত্রে থাকতেন। বান্ধবীর সঙ্গে দেখা করার জন্য বেঙ্গালুরু থেকে লখনৌ চলে আসেন তিনি। মেয়েটির বাড়িতে পৌঁছানোর জন্য লখিমপুর খেড়ির একটি বাস নিয়েছিলেন। ঘটনাটি ঘটে রবিবার দিন। এক রাত থানায় কাটানোর পর সোমবার তাঁকে থানা থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। কোতোয়ালি থানার কর্তৃপক্ষ সুনীল কুমার সিংহ বলেছিলেন, "মেয়েটির পরিবারের সদস্যরা ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করতে অস্বীকার করেছিলেন। তবে, সোমবার তাকে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির করা হয় এবং পরে ব্যক্তিগত বন্ডে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল"। সিংহ আরও জানিয়েছিলেন যে, মেয়েটির বাবা-মা পুলিশকে বলেন সলমন যেন ওই মহিলার সঙ্গে আর যোগাযোগের চেষ্টা না করে এবং এই ধরণের ঘটনার পুনরাবৃত্তির যেন না হয়, সেই বিষয় সতর্ক করতে বলেছিলেন। সলমন পুলিশকে জানিয়েছিলেন যে, তিনি ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে মেয়েটির সঙ্গে বন্ধুত্ব করেছিলেন এবং বান্ধবীর জন্মদিনের উপহার দেওয়ার জন্য তিনি এত দূর আসেন। তবে মহিলা কেন অস্বীকার করেছেন, সেই বিষয় এখনই কিছু জানা যায়নি। পুলিশ বিষয়টির তদন্ত করছেন। সলমন-এর অন্য কোনও উদ্দেশ্য ছিল কিনা সেই দিকটাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

    Published by:Somosree Das
    First published: