• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • সেনার পাল্টা আক্রমণে পালিয়ে বাঁচল ২ জঙ্গি

সেনার পাল্টা আক্রমণে পালিয়ে বাঁচল ২ জঙ্গি

ভারতের বিরুদ্ধে জঙ্গিদেরই প্রধান হাতিয়ার করেছে পাকিস্তান। উরির পর বারামুলার হামলা ফের সামনে এনে দিয়েছে ইসলামাবাদের স্ট্র্যাটেজি।

ভারতের বিরুদ্ধে জঙ্গিদেরই প্রধান হাতিয়ার করেছে পাকিস্তান। উরির পর বারামুলার হামলা ফের সামনে এনে দিয়েছে ইসলামাবাদের স্ট্র্যাটেজি।

ভারতের বিরুদ্ধে জঙ্গিদেরই প্রধান হাতিয়ার করেছে পাকিস্তান। উরির পর বারামুলার হামলা ফের সামনে এনে দিয়েছে ইসলামাবাদের স্ট্র্যাটেজি।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #জম্মু: ভারতের বিরুদ্ধে জঙ্গিদেরই প্রধান হাতিয়ার করেছে পাকিস্তান। উরির পর বারামুলার হামলা ফের সামনে এনে দিয়েছে ইসলামাবাদের স্ট্র্যাটেজি। ভারতের একাধিক  হামলায় ধাক্কা খাওয়ার পর ছায়াযুদ্ধকেই আঁকড়ে ধরেছে পাকিস্তান। যদিও, সেনাবাহিনীর তৎপরতায় সেই পরিকল্পনাও মুখ থুবড়ে পড়েছে। প্রশিক্ষিত বাহিনী, মর্টার বা এফ ১৬ নয়। ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের হাতিয়ার জঙ্গিরাই। গেরিলা যুদ্ধের কৌশলে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ওপর অতর্কিতে আক্রমণ। একের পর এক যুদ্ধে পাক সেনাবাহিনীর মুখ পুড়েছে। তাই ভারতের বিরুদ্ধে যুদ্ধের স্ট্র্যাটেজি বদলে ফেলেছে ইসলামাবাদ। সরাসরি আঘাত নয়, বারে বারে সূঁচ ফুটিয়ে রক্তাক্ত করা। উরির হামলার পর আন্তর্জাতিক সীমান্ত ও নিয়ন্ত্রণ রেখায় কার্যত মাছি গলার জো ছিল না। তা সত্ত্বেও, রবিবার রাতে বারামুলায় হামলা হল কীভাবে? বিশেষজ্ঞদের মতে, পাকিস্তানের কৌশল বদল উরি হামলার সময়ই জঙ্গিদের একাধিক দল এদেশে পাঠানো হয়েছিল। হামলার পর বাকি দলগুলিকে চুপচাপ থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে স্যাটেলাইট ফোন, মোবাইল বা লোকমুখে নির্দেশ পাঠানো হয়। এতদিন লুকিয়ে থাকার পর, সেই গোষ্ঠীগুলির একটিই রবিবার রাতে বারামুলার সেনা ক্যাম্পে হামলা চালায়। নিহত জঙ্গিদের কাছে মিলেছে তার কাটার যন্ত্র ও জিপিএস। সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢোকার অলিগলি ও নদীপথ তাদের হাতের তালুর মতোই চেনা। লুকিয়ে থাকার ঠিকানাও জানা। তাদের সঙ্গে থাকে জিপিএসও। রবিবার রাত সাড়ে দশটা নাগাদ হামলা চালায় জঙ্গিরা। গুলিতে নিহত হন এক জওয়ান। পাল্টা গুলিতে নিহত হয় ২ জঙ্গিও। এর মধ্যেই, স্থানীয় বাসিন্দাদের ঢাল করে বাকি দুই জঙ্গি অন্ধকারে গা ঢাকা দেয়। উরি হামলার সময়ই সীমান্তের চোরাগলি ধরে ভারতে ঢুকে পড়েছিল সন্ত্রাসবাদীদের একাধিক দল। এরপর, তারা সামনে আসতে শুরু করেছে। ফলে, ফের হামলার আশঙ্কাও থেকে যাচ্ছে।

    First published: