"নারীবিদ্বেষী-পুরুষতান্ত্রিক মন্তব্য বন্ধ করুন", নিম্ন আদালতদের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

"নারীবিদ্বেষী-পুরুষতান্ত্রিক মন্তব্য বন্ধ করুন", নিম্ন আদালতদের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

file photo

বিচার ব্যবস্থার মধ্যে সামাজিক নিয়ম কানুনগুলি যেন প্রাধান্য না পায় এমনটাই জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এই মর্মে দেশের সব আদালতের বিচারপতিদের মেনে চলার জন্য নিয়মাবলীর একটি তালিকাও তৈরি করা হয়েছে।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি : দেশের প্রতিটি আদালতের বিচারপতিদের কড়া বার্তা দিল সুপ্রিম কোর্ট। লিঙ্গভিত্তিক অপরাধের ক্ষেত্রে কোনওরকম পুরুষতান্ত্রিক বিচার চলবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এই মর্মে একটি নয়া নির্দেশিকা জারি করেছে শীর্ষ আদালত। এই নির্দেশিকা অনুযায়ী মহিলাদের পোশাক, পূর্ব আচরণ, নীতিবোধ, সতীত্ব নিয়ে মন্তব্য করতে পারবেন না বিচারকরা। একইসঙ্গে যৌন হেনস্থার মামলায় মহিলা বিচারপ্রার্থীদের কোনওরকম আপোষ মেনে নিতে বাধ্য করা যাবে না। বিচারব্যবস্থায় প্রথাগত 'পুরুষতান্ত্রিক' ও 'মহিলাবিদ্বেষী মনোভাব' থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সমস্ত নিম্ন আদালতের বিচারকদের।

    মহিলা বিচারপ্রার্থীদের ক্ষেত্রে বিচার যেন সামাজিক রীতি নীতি ইত্যাদি দ্বারা প্রভাবিত না হয়, সে বিষয়েও সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ বিচার ব্যবস্থার মধ্যে সামাজিক নিয়ম কানুনগুলি যেন প্রাধান্য না পায় এমনটাই জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এই মর্মে দেশের সব আদালতের বিচারপতিদের মেনে চলার জন্য নিয়মাবলীর একটি তালিকাও তৈরি করা হয়েছে।

    সম্প্রতি মধ্যপ্রদেশে একটি হেনস্থার বিচার চলাকালীন অভিযুক্তকে নির্যাতিতার হাতে রাখি বেঁধে দিতে বলা হয়। পরে সুপ্রিম কোর্ট সেই  রায় খারিজ করে দেয়। মধ্যপ্রদেশের ঘটনা কোনও একটি বিচ্ছিন্ন  দৃষ্টান্ত নয়। বহু মামলায় দেখা গিয়েছে রায় দানের ক্ষেত্রে অনেকসময়েই নির্যাতিতাকে অভিযুক্ত বিয়ে করতে রাজি কিনা তা জানতে চাওয়া হচ্ছে। এমনকি দেশের প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদে নিজেও চলতি মাসেই এমনই একটি মামলায় অভিযুক্তকে এই প্রশ্ন করেন।

    তবে নয়া নির্দেশিকায় বলা হয়েছে আদালত কখনও কোনও মহিলাকে বিয়ে করার পরামর্শ দিতে পারে না। এই ধরণের আপোষমূলক বিচার পন্থা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এই নির্দেশিকায়। একই সঙ্গে পুরুষদের কোনও ঘৃণ্য আচরণকে পুরুষত্বের দোহাই দিয়ে লঘু হিসাবে দেখা যাবে না বলেও জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

    নির্দেশিকায় বলা হয়েছে আদালত কখনও কোনও মহিলাকে বিয়ে করার পরামর্শ দিতে পারে না। কোনও রকম আপোষমূলক বিচার এবার থেকে অপ্রযোজ্য হবে বলে জানিয়েছে শীর্ষ আদালত। একই সঙ্গে পুরুষদের কোনও ঘৃণ্য আচরণতে পুরুষত্বের দোহাই দিয়ে লঘু হিসাবে দেখা যাবে না বলে জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: