দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

পুলিশের হাত এড়ালেও কুমিরকে এড়ানো গেল না! নগ্ন আসামি ধরা দিল জেলেদের হাতে!

পুলিশের হাত এড়ালেও কুমিরকে এড়ানো গেল না! নগ্ন আসামি ধরা দিল জেলেদের হাতে!

গত চার দিন ধরে শুধু নিজের নখ খেয়ে বেঁচে রয়েছে সে। কথা বলার তেমন ক্ষমতা তার তখন ছিল না।

  • Share this:

#সিডনি:  ধরতে গিয়েছিলেন কাঁকড়া। কিন্তু ফিরলেন অন্য কিছু নিয়ে। অস্ট্রেলিয়ায় দুই মৎসজীবীর সঙ্গে ফিরল একজন আস্ত মানুষ। তা-ও আবার জেলপালানো আসামি!

ডারউইনের একদম উত্তরে শহর পেরিয়ে বেশ কিছু জায়গা রয়েছে, যেখানে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন ক্যাম ফস্ট ও কেভ জয়নার নামের দু'জন মৎসজীবী। কাদায় ভর্তি ওই এলাকায় মাছ, কাঁকড়া দুই'ই পাওয়া যায়। কিন্তু তার চেয়েও বেশি পাওয়া যায় কুমির। ওই এলাকাকে কুমিরের এলাকাই বলা হয়ে থাকে।

কাকঁড়া খুঁজতে খুঁজতেই হঠাৎ তাঁদের চোখে পড়ে একজন ব্যক্তি গাছে ঝুলছে। এবং তার গায়ে কোনও জামা নেই। পোশাকের চিহ্নমাত্র নেই। পাশাপাশি গায়ে পোকামাকড় কামড়ানোর দাগ। কোথাও কোথাও আঁচড়েরও দাগ রয়েছে। কাছে গিয়ে কথা বলতে গিয়ে জানতে পারেন, তার নাম ভসক্রেসেনস্কি। বয়স ৪০। গত চার দিন ধরে শুধু নিজের নখ খেয়ে বেঁচে রয়েছে সে। কথা বলার তেমন ক্ষমতা তার তখন ছিল না।

এই পরিস্থিতি দেখে ক্যাম তাকে নৌকায় তুলে নিতে চান। কিন্তু কেভ একটু দ্বিধা বোধ করেন। কিন্তু শারীরিক পরিস্থিতি খুবই খারাপ ছিল ওই ব্যক্তির, তার উপরে গাছ থেকে পড়ে গেলেই কুমিরে খেয়ে নেওয়ার ভয় ছিল! ফলে, তাকে নৌকায় তুলে নেন তাঁরা দু'জন। এবং ওই উলঙ্গ ব্যক্তিকে জামা দেন ও একটি বিয়ার দেন। যাতে শরীরে একটু শক্তিসঞ্চার হয়।

CBS-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, উদ্ধারের সময়ে দুই মৎসজীবী ভেবেছিলেন, হয় তো নতুন বছরে পার্টি করে এই অবস্থা হয়েছে এবং নেশার ঘোরে সে ওই এলাকায় পৌঁছেছে। কিন্তু একদম শেষে তাঁরা জানতে পারেন, ওই ব্যক্তি একজন জেলছুট আসামী। ডাকাতি করার জন্য তাকে ধরা হয়েছিল। তার কাছে আগ্নেয়াস্ত্রও ছিল। ফলে তাকে জেলে রাখা হয়েছিল। বেইল পেতেই সে পালিয়ে যায়। এবং পুলিশ যে ইলেক্ট্রনিক ডিভাইজ দিয়ে তাকে ট্র্যাকে রাখার চেষ্টা করেছিল, তা ফেলে দেয়। ফলে পুলিশের সঙ্গে সমস্ত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

কেভ CBS-কে জানিয়েছে, আমরা তাকে যখন দেখি ওই অবস্থায়, তখন তার গায়ে কাটা-কাটা দাগ ছিল। খুবই দুর্বল ছিল শরীর। তাই আমরা ওকে উদ্ধার করি।

ওই দুই মৎসজীবী নৌকায় ওঠার পর ওই আসামির সঙ্গে কথা বলার কিছুটা অংশ রেকর্ডিংও করে নেয়। যাতে ভসক্রেসেনস্কিকে বলতে শোনা যায়, কী ভাবে সে চারদিন ধরে ওই জঙ্গলে বেঁচে ছিল। তার পরই সে জল খেতে চায়।

এদিকে ডারউইনের মূল দ্বীপে আসার আগে অ্যাম্বুলেন্সে খবর দিয়ে দেন তাঁরা। অ্যাম্বুলেন্স এসে ভসক্রেসেনস্কিকে নিয়ে যায়। এবং তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে পুলিশের নজরদারিতে সে হাসপাতালেই ভর্তি আছে। এবং এই কাজের জন্য আবার তাকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে। পাশাপাশি আদালতেও পেশ করা হবে বলে জানা গিয়েছে খবরে।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: January 8, 2021, 6:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर