Assam Mizoram Border Clash : উত্তপ্ত সীমানায় নিহত ৬ পুলিশকর্মী, আইপিএস-সহ আহত ৫০, মিজোরামকে কাঠগড়ায় দাঁড় করাল অসম

কাছাড় জেলায় লাইলাপুরে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ, ছবি-পিটিআই

  • Share this:

    গুয়াহাটি :  সীমানা বিবাদের জেরে অশান্ত পরিস্থিতির জন্য অসম (Assam) সরকারের আঙুল মিজোরামের (Mizoram) দিকে ৷ এক বিজ্ঞপ্তিতে হিমন্ত বিশ্বশর্মার সরকারের অভিযোগ, চুক্তি এবং বর্তমান স্থিতাবস্থা লঙ্ঘন করে অসমের রেংটি বস্তির দিকে একটি রাস্তা তৈরি করছে মিজোরাম ৷ ফলে লাইলাপুর এলাকায় জাতীয় অরণ্য ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ৷ একইসঙ্গে ওখানে একটি টিলার উপর মিজোরাম সরকার সশস্ত্র বাহিনীর নতুন ক্যাম্প তৈরি করেছে বলেও দাবি অসম সরকারের ৷

    পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তথা সমস্যার সমাধানের লক্ষ্যে অসম প্রশাসনের উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের একটি দল সোমবার সকালে ঘটনাস্থলে যান ৷ এর পর মিজোরাম পুলিশের প্রচ্ছন্ন মদতে তাঁদের উপর একদল দুষ্কৃতী হামলা চালায় বলে অভিযোগ ৷ মিজোরাম পুলিশের তরফে তাদের প্রশাসনের আধিকারিকদের উপর কাঁদানে গ্যাসও ছোড়া হয় বলে অভিযোগ অসমের ৷ দিনভর চাপানউতোর চলার পর এ দিন বিকেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় এবং অসমের আধিকারিক ও সাধারণ মানুষের উপর মিজোরাম পুলিশ আক্রমণ করে বলে দাবি হিমন্ত বিশ্বশর্মার সরকারের ৷ অভিযোগ, সেই হামলায় নিহত হন ৬ পুলিশকর্মী ৷ জখম ৫০ জনের মধ্যে আছেন গুরুতর আহত আইপিএস অফিসারও ৷ আহতদের চিকিৎসা চলছে শিলচর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ৷

    অন্যদিকে অসম পুলিশ প্ররোচনার মুখেও সংযত আচরণ দেখিয়েছে বলে সে রাজ্যের সরকারের দাবি ৷ সে কারণেই মিজোরামের দিকে কোনও প্রাণহানি হয়নি বলে বলা হয়েছে সরকারি বিজ্ঞপ্তিতে ৷ অসম শান্তিপ্রিয় এবং পড়শিদের সঙ্গে শান্তি সহাবস্থান চায় বলে দাবি সে রাজ্যের সরকারের ৷ মিজোরামের কাছে তাদের আবেদন, হিংসা থেকে বিরত থেকে শান্তি প্রক্রিয়া ফিরিয়ে আনার জন্য ৷

    অন্যদিকে তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে মিজোরামের অভিযগোর তির অসমের দিকে ৷ এই চাপানউতরের আঁচ পড়েছে সামাজিক মাধ্যমেও ৷ দিনভর চলতে থাকে ট্যুইটের পর ট্যুইট ৷ মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা লেখেন, ‘‘অমিত শাহজি, দয়া করে বিষয়টি দেখবেন। এসব এখনই বন্ধ করা দরকার।’’  অমিত শাহ-কে ট্যাগ করে একটি টুইট করে হিমন্ত বিশ্বশর্মাও। পাশাপাশি, জোরামথাঙ্গা একটি ট্যুইটে অসমের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেন, নাগরিকদের নিরাপত্তার খাতিরে মিজোরামের কোলাসিব জেলার ভাইরেঙটে এলাকা থেকে যেন অসম পুলিশকে সরে যেতে নির্দেশ দেওয়া হয় ৷ অন্যদিকে, অসমের মুখ্যমন্ত্রী পাল্টা ট্যুইট করে বলেন, ‘‘আমি মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গার সঙ্গে কথা বলেছি ৷ আমি বলেছি যে দুই রাজ্যের মধ্যে শান্তি ও স্থিতাবস্থা রক্ষা করবে অসম ৷ যদি প্রয়োজন হয়, আমি আইজলে গিয়ে এই বিষয়ে আলোচনা করব ৷’’ গুলিচালনাকাণ্ডের তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর তরফে ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: