Home /News /national /
Punjab Crisis: সিধু- ক্যাপ্টেন সন্ধি, অবশেষে পঞ্জাবে স্বস্তি পেল কংগ্রেস

Punjab Crisis: সিধু- ক্যাপ্টেন সন্ধি, অবশেষে পঞ্জাবে স্বস্তি পেল কংগ্রেস

দূরত্ব মেটার পর নভজ্যোত সিং সিধুর সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং৷

দূরত্ব মেটার পর নভজ্যোত সিং সিধুর সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং৷

পঞ্জাব জট যে কেটে গিয়েছে, রাহুল গান্ধিই প্রথম এই দাবি করেন৷ বৃহস্পতিবার চণ্ডীগড়ে দেখা করে কথা বলেন অমরিন্দর এবং সিধু (Punjab Crisis৷

  • Share this:

    #চণ্ডীগড়: অবশেষে পঞ্জাবে সন্ধি হল নভজ্যোত সিং সিধু এবং ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং-এর মধ্যে৷ এর ফলে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের আগে স্বস্তি ফিরল কংগ্রেসে৷ এ দিন মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং-এর উপস্থিতিতেই পঞ্জাবে কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নেন নভজ্যোত সিং সিধু৷ বিদ্রোহী সিধুকে প্রদেশ সভাপতি করেই পঞ্জাব সঙ্কটকে সামাল দিলেন সনিয়া- রাহুলরা৷ তবে এই ফর্মুলা স্থায়ী হয় কি না, সেটাই এখন দেখার৷

    পঞ্জাব জট যে কেটে গিয়েছে, রাহুল গান্ধিই প্রথম এই দাবি করেন৷ বৃহস্পতিবার চণ্ডীগড়ে দেখা করে কথা বলেন অমরিন্দর এবং সিধু৷ একসঙ্গে চা খান তাঁরা৷ তখনই বোঝা গিয়েছিল রাজ্যে কংগ্রেস সভাপতি হিসেবে সিধুকে মেনে নিয়েছেন অমরিন্দর৷

    আগামী বছর পঞ্জাবে ভোট৷ তার আগে সিধু- ক্যাপ্টেন দ্বন্দ্বে রীতিমতো বিড়ম্বনায় পড়েছিল দল৷ এমনিতেই গোটা দেশে একের পর এক রাজ্য হাতছাড়া হচ্ছে৷ তার মধ্যে পঞ্জাবেও দুই নেতার কোন্দলে ভোটের আগেই ক্ষমতা হারানোর আশঙ্কা গ্রাস করেছিল কংগ্রেসকে৷ এমন কী, সিধুর আম আদমি পার্টিতে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনাও তৈরি হয়েছিল৷ শেষ পর্যন্ত তা না হলেও সিধু বুঝিয়ে দেন, অধিকাংশ বিধায়কের সমর্থন তাঁর সঙ্গেই রয়েছে৷ যদিও সব তিক্ততা ভুলে এ দিন অবশ্য ঐক্যেরই বার্তা দিয়েছেন নভজ্যোত সিং সিধু এবং অমিরন্দর সিং৷

    নতুন দায়িত্ব গ্রহণের পর সিধু বলেন, 'একজন সাধারণ পার্টি কর্মী এবং দলের রাজ্য সভাপতির মধ্যে কোনও তফাত নেই৷ আজ থেকে পঞ্জাবের প্রত্যেক কংগ্রেস কর্মী দলের রাজ্য সভাপতি হিসেবে কাজ করবেন৷'

    আবার অমরিন্দর সিং বলেছেন, 'পঞ্জাবে আমাদের কংগ্রেসকে শক্তিশালী করতে হবে৷ এই মঞ্চ থেকে আমি প্রত্যেককে বলছি, পঞ্জাবের জন্য আমাদের সিধুকে সমর্থন করতেই হবে৷' প্রাক্তন সেনা কর্মী অমরিন্দর আরও বলেন, সিধু যখন জন্মগ্রহণ করেন তখন তিনি সীমান্তে লড়াই করছিলেন৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    পরবর্তী খবর