Home /News /national /

দিল্লি অবরুদ্ধ করার হুমকি কৃষকদের, গভীর রাতে বৈঠকে অমিত শাহ

দিল্লি অবরুদ্ধ করার হুমকি কৃষকদের, গভীর রাতে বৈঠকে অমিত শাহ

দিল্লির বিভিন্ন প্রবেশ পথ অবরুদ্ধ করার হুমকি দিয়েছেন কৃষকরা৷

দিল্লির বিভিন্ন প্রবেশ পথ অবরুদ্ধ করার হুমকি দিয়েছেন কৃষকরা৷

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রস্তাব দিয়েছিলেন, কৃষকরা যদি শুধুমাত্র দিল্লি বুরারিতে সরকারের চিহ্নিত করে দেওয়া জায়গাতেই শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ দেখান, তাহলে আগামী ৩ ডিসেম্বর তাঁদের সঙ্গে আলোচনায় বসা হবে৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: অমিত শাহের শর্তসাপেক্ষে আলোচনার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন বিক্ষোভকারী চিকিৎসকরা৷ উল্টে দিল্লি অবরুদ্ধ করার ডাক দিয়ে আরও বেশি সংখ্যক কৃষক জড়ো হয়েছেন দিল্লি- হরিয়ানা সীমান্তে৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে রবিবার গভীর রাতে বিজেপি সভাপতি জে পি নাড্ডার সঙ্গে তাঁর বাড়িতে বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার৷

    কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রস্তাব দিয়েছিলেন, কৃষকরা যদি শুধুমাত্র দিল্লি বুরারিতে সরকারের চিহ্নিত করে দেওয়া জায়গাতেই শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ দেখান, তাহলে আগামী ৩ ডিসেম্বর তাঁদের সঙ্গে আলোচনায় বসা হবে৷ কিন্তু সেই প্রস্তাব খারিজ করে দিয়েছেন কৃষকরা৷ তাঁরা হুমকি দিয়েছেন, সোনিপথ, রোহতক, জয়পুর, গাজিয়াবাদ-হাপুর এবং মথুরা- দিল্লির এই পাঁচটি প্রবেশপথ বন্ধ করে দেবেন তাঁরা৷

    কৃষকদের বিক্ষোভের জেরে এ দিন সকাল থেকেই দিল্লিতে প্রবেশের টিকরি, সিংঘু সীমান্তে যান চলাচল বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছে পুলিশ৷ গাজিপুর সীমান্তও আংশিক সিল করা হয়েছে৷ শুধু তাই নয়, গোটা দেশেই আন্দোলন ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন কৃষক নেতারা৷

    গত তিন দিন ধরে দিল্লি সীমান্তের কাছে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন হাজার হাজার কৃষক৷ মূলত পঞ্জাব এবং হরিয়ানা থেকে জড়ো হয়েছেন এই কৃষকরা৷ নতুন পাশ হওয়া তিনটি কৃষি আইন বাতিল এবং ন্যূনতম সহায়ক মূল্য নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন কৃষকরা৷ রবিবার সকালে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রস্তাব খারিজ করে দিয়ে তাঁরা দাবি করেন, কোনও শর্ত ছাড়াই তাঁদের আলোচনায় ডাকা উচিত ছিল সরকারের৷ কৃষকদের আশঙ্কা, কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দিষ্ট করে দেওয়া জায়গায় বিক্ষোভ দেখাতে গেলে সেটিকেই অস্থায়ী জেল হিসেবে ঘোষণা করা হতে পারে৷

    গত কয়েক দিন ধরেই কৃষকদের আটকাতে জল কামান , টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করেও তাঁদের ছত্রভঙ্গ করতে ব্যর্থ হয় হরিয়ানা পুলিশ৷ কৃষকদের বিক্ষোভের পিছনে খলিস্তানি মদত রয়েছে বলেও অভিযোগ করেন হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খাট্টার৷ তাতে পরিস্থিতি আরও অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে৷ কৃষকদের আন্দোলন নিয়ে পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং-এর সঙ্গে কথা লড়াইতে জড়ান মনোহর লাল খাট্টার৷ হরিয়ানার পুলিশও কৃষকদের আন্দোলন থামাতে যে ধরনের আগ্রাসী মনোভাব দেখিয়েছে, তারও সমালোচনা শুরু হয়েছে বিভিন্ন মহলে৷ আন্দোলনের তীব্রতা যত বাড়ছে, চাপ বাড়ছে কেন্দ্রের উপরে৷ বাধ্য আসরে নামেন অমিত শাহ৷ কিন্তু তাঁরও প্রস্তাবও খারিজ করে দিলেন অনড় কৃষকরা৷ পরিস্থিতি হাতের বাইরে বেরিয়ে যাওয়ার আগে তাই দলের সভাপতি জে পি নাড্ডা এবং কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমারের সঙ্গে গভীর রাতে আলোচনায় বসলেন অমিত শাহ৷ এমন কি, কৃষকদের ক্ষোভ প্রশমনে অমিত শাহ এমনও বলেছেন, কৃষকদের বিক্ষোভের পিছনে কোনও রাজনৈতিক উস্কানি নেই৷ তবে তিনটি নতুন আইনই কৃষকদের মঙ্গলেই প্রণয়ন করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    Tags: Amit Shah

    পরবর্তী খবর