Corona: ভারত থেকে করোনা তাড়াতে তিনটি ফর্মূলা দিলেন হোয়াইট হাউসের চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ

Corona: ভারত থেকে করোনা তাড়াতে তিনটি ফর্মূলা দিলেন হোয়াইট হাউসের চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে বিশ্বজুড়ে নাম রয়েছে ডাক্তার ফাউজির। ভারতে তিনি মহামারী নিয়ন্ত্রণের জন্য তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিলেন।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে বিশ্বজুড়ে নাম রয়েছে ডাক্তার ফাউজির। ভারতে তিনি মহামারী নিয়ন্ত্রণের জন্য তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিলেন।

  • Share this:

    #ওয়াশিংটন:

    করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে জেরবার গোটা দেশ। রোজই কয়েক লাখ মানুষের মধ্যে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। রোজ মারা যাচ্ছে কয়েক হাজার মানুষ। সংক্রমণের হার কমবে কবে, তার কোনও সদুত্তর দিতে পারছেন না কেউই। এদিকে, আমেরিকার শীর্ষ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং হোয়াইট হাউসের প্রধান চিকিৎসা পরামর্শদাতা ডাক্তার অ্যান্থনি ফাউকি ভারতে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য তিনটি পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি তিনটি ফর্মুলা মেনে চলার কথা বলেছেন। এই তিনটি ফর্মুলা মেনে চললে ভারতে করোনা সংক্রমণ অনেকটাই কমবে বলে দাবি করেছেন তিনি। সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে বিশ্বজুড়ে নাম রয়েছে ডাক্তার ফাউকির। ভারতে তিনি মহামারী নিয়ন্ত্রণের জন্য তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিলেন।

    ডাক্তার ফাউকি বলেছেন, ভারতে অভিলম্বে লকডাউন ঘোষণা করা উচিত। অন্তত কয়েক সপ্তাহ লকডাউন রাখতে হবে। তার সঙ্গে ব্যাপকহারে মানুষকে করোনা ভ্যাকসিন দিতে হবে। আর তিন নম্বর, প্রচুর অস্থায়ী হাসপাতাল তৈরি করে রাখতে হবে। তিনি আরও জানিয়েছেন, অস্থায়ী হাসপাতাল তৈরির ক্ষেত্রে সেনার সাহায্য নিতে পারে কেন্দ্রীয় সরকার। করোনা মহামারীর বিরুদ্ধে লড়ার জন্য এই অস্থায়ী হাসপাতাল বড়োসড়ো ভূমিকা নিতে পারে বলে দাবি করেছেন তিনি। তিনি আরও বলেছেন, গত বছর চিনে পরিস্থিতি মারাত্মক হয়ে উঠেছিল। সেই সময়ে সেনাকে কাজে লাগিয়েই দ্রুত কয়েক হাজার অস্থায়ী হাসপাতাল তৈরি করেছিল চিন সরকার। যাতে সংক্রমণ হলেই মানুষকে হাসপাতালে ভর্তি করা যায়!

    মি়ডিয়া রিপোর্টস-এর উপর ভিত্তি করে এদিন তিনি বলেছেন, ভারতে এই মুহূর্তে হাসপাতালের অভাব রয়েছে। তাই বহু মানুষ সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছেন না। ভারতের এই পরিস্থিতিতে অন্য দেশের এগিয়ে আসা উচিত বলেও মনে করেন ডাক্তার ফাউকি। দেশের বেশিরভাগ মানুষকে টিকা দিতে হবে। তবেই এই সংক্রমণের হার রোধ করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন মার্কিন চিকিৎসক। দেশজ টিকা অথবা রাশিয়া বা আমেরিকা ভ্যাকসিন দিতে হবে। যেভাবেই হোক মানুষকে টিকাকরণের আওতায় আনতে হবে বলে তিনি মনে করেন। টিকা লাগালে এখনই সমস্যার সমাধান হবে না। তবে কয়েক সপ্তাহ পর থেকেই সংক্রমণের হার নিম্নমুখী হবে বলে দাবি করেছেন ফাউকি। তিনি আরো জানিয়েছেন, কয়েক সপ্তাহ লকডাউন করলেই পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। লকডাউনের ফলে সংক্রমণের হার অনেকটাই কমে যায়। এমনটা আগেও দেখা গিয়েছে। যদিও ভারত সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, লকডাউন শেষ অস্ত্র। এখনই দেশজুড়ে লকডাউনের সম্ভাবনা কম।

    Published by:Suman Majumder
    First published:

    লেটেস্ট খবর