Home /News /national /

Covid 19: তবে কি সমাধান লকডাউন? দিল্লিতে বন্ধ হয়ে গেল বেসরকারি অফিস, রেস্তরাঁ

Covid 19: তবে কি সমাধান লকডাউন? দিল্লিতে বন্ধ হয়ে গেল বেসরকারি অফিস, রেস্তরাঁ

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

Delhi: সোমবার দিল্লির স্বাস্থ্য মন্ত্রী সংবাদমাধ্যম জানান, আরও কয়েকদিন মধ্যে সংক্রমণের শীর্ষে পৌঁছে যাবে দিল্লি। সত্যেন্দ্র জৈন বলেন, আমরা মনে করছি, করোনা সংক্রমণের শীর্ষে প্রায় পৌঁছে গিয়েছে দিল্লি।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: মাত্রাছাড়া কোভিড সংক্রমণের (Covid 19) কারণে দিল্লিতে মঙ্গলবার থেকে বন্ধ করে দেওয়া হল বেসরকারি অফিস। বন্ধ করে দেওয়া হল রেস্তরাঁও। কার্যত লকডাউনের (Lockdown) চেহারায় ফিরে গেল দিল্লি। বলা হয়েছে, কেবলমাত্র জরুরি ভিত্তিক অফিসগুলি খোলা থাকবে। বাকি সব অফিস বন্ধ থাকবে। এর আগে ৫০ শতাংশ কর্মী নিয়ে অফিস চালানোর অনুমতি দিয়েছিল দিল্লি সরকার। কিন্তু তা এ বার পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হল।

    দিল্লিতে বিপর্যয় মোকাবিল আইনের ভিত্তিতে বলা হয়েছে, যে সমস্ত বেসরকারি অফিস জরুরি পরিষেবা প্রদান করে, সেই অফিসগুলি বাদ দিয়ে বাকি সব অফিস বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া বন্ধ থাকবে রেস্তরাঁও। বন্ধ থাকবে বার। বেসরকারি সংস্থার কর্মীদের বাড়ি থেকে কাজ করা নির্দেশিকাও দিয়েছে কেজরিওয়াল সরকার। এ বিষয়ে সরকারকে কড়া নজর রাখতে বলা হয়েছে। সোমবারই দিল্লিতে রেস্তরাঁ বন্ধের নির্দেশ দিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছিলেন ব্যাবসায়ীরা। তাঁদের মতে, টানা দুই বছর ধরে এ ভাবে পরিস্থিতি ক্রমে কঠিন হয়ে দাঁড়াচ্ছে ব্যাবসায়ীদের জন্য। বার বার বন্ধ হয়ে যাচ্ছে রেস্তরাঁ, এর পর এই বাণিজ্য ক্ষেত্রের উঠে দাঁড়ানোই মুশকিল হয়ে দাঁড়াবে। কিন্তু কিছু তো করার নেই।

    আরও পড়ুন -  দেশে দৈনিক সংক্রমণ কিছুটা কমে ১ লক্ষ ৬৮ হাজার, মৃত্যু ২৭৭ জনের

    দিল্লিতে ক্রমে সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। সাধারণ মানুষকে আতঙ্কে ভুগতে বারণ করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। কিন্তু তিনি এটাও মনে করিয়ে দিয়েছেন, ঢিলেমির কোনও স্থান নেই। কারণ, সংক্রমণের শৃঙ্খল ভাঙতে না পারলে ভবিষ্যতে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার হার বাড়বে না, এ কথা স্পষ্ট করে বলা যায় না। তাই এখন থেকেই সতর্ক হতে হবে সাধারণ মানুষকে।

    আরও পড়ুন - 'দ্বিচারী কংগ্রেস', জাগোবাংলায় চণ্ডীগড় পুরনিগমের ফল নিয়ে তীব্র আক্রমণ তৃণমূলের

    সোমবার দিল্লির স্বাস্থ্য মন্ত্রী সংবাদমাধ্যম জানান, আরও কয়েকদিন মধ্যে সংক্রমণের শীর্ষে পৌঁছে যাবে দিল্লি। সত্যেন্দ্র জৈন বলেন, আমরা মনে করছি, করোনা সংক্রমণের শীর্ষে প্রায় পৌঁছে গিয়েছে দিল্লি। আগামী দু-তিন দিনের মধ্যে পুরোটা স্পষ্ট হবে। তার পর থেকে সংক্রমণ পড়তে শুরু করবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে সংক্রমণের হার কমাতে একটি কার্ফু জারি করতেও হতে পারে। তাঁর কথাই সত্যি হল মঙ্গলবার। কার্যত স্তব্ধ হয়ে গেল দিল্লির দৈনিক কার্যকলাপ।

    Published by:Uddalak B
    First published:

    Tags: Coronavirus

    পরবর্তী খবর