• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • ABHISHEK BANERJEE WARN TRIPURA POLICE FOR 14 TMC LEADERS ARRESTED SB

Abhishek Banerjee: থানাতেই জ্ঞান হারালেন সুদীপ, ত্রিপুরায় এবার 'অন্য' অভিষেকের আবির্ভাব!

অন্য অভিষেক

Abhishek Banerjee: ত্রিপুরার খোয়াই থানায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে ছিলেন তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ, বিধায়ক তথা মন্ত্রী ব্রাত্য বসু, নেত্রী দোলা সেনরা।

  • Share this:

    #আগরতলা: থানায় ঢুকে ভারপ্রাপ্ত অফিসারদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়াচ্ছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, এমন নজির তাঁর রাজনৈতিক জীবনে নেই। কিন্তু রাজ্যে তৃতীয় বার ক্ষমতায় এসে এবার সেই রীতি ভাঙলেন অভিষেক। তবে, বাংলায় নয়, বিজেপি শাসিত ত্রিপুরার খোয়াই থানায় অভিষেককে দেখা গেল একদম ভিন্ন মেজাজে। যেখানে তিনি পুলিশের সঙ্গে রীতিমতো তর্ক জুড়লেন, হুঁশিয়ারি দিলেন। অভিষেকের সঙ্গে ছিলেন তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ, বিধায়ক তথা মন্ত্রী ব্রাত্য বসু, নেত্রী দোলা সেনরা।

    শনিবার হামলার পর রবিবার সকালে ত্রিপুরায় থাকা যুব তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক দেবাংশু ভট্টাচার্য, যুব নেতা সুদীপ রাহা, তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রাক্তন নেত্রী জয়া দত্ত-সহ ১১ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মহামারী আইনে তাঁদের গ্রেফতার করা হয়। এরপরই তড়িঘড়ি আগরতলায় ছুটে যান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর আগে ত্রিপুরা পৌঁছে যান ব্রাত্য, দোলারা। ত্রিপুরায় পা রেখেই অভিষেক বলেন, ‘‘বিজেপি ত্রিপুরাকে নিজেদের পৈতৃক সম্পত্তিতে পরিণত করেছে। বিপ্লব দেব ভাবছেন, তাঁর কাছ থেকে ভিসা নিয়ে তবেই রাজ্যে পা রাখতে পারবেন বিরোধীরা। যাঁরা বড় বড় ভাষণ দেন, গণতন্ত্রের কথা বলেন, তাঁদের হাতে ত্রিপুরার গণতন্ত্রের কী অবস্থা, রাজ্যবাসী তা দেখছেন। যাঁরা এঁদের চ্যালেঞ্জ করছে, তাঁদের ধরে ধরে জেলে ঢোকানো হচ্ছে।’’

    এরপর অভিষেক যান খোয়াই থানায়। সেখানে তিনি পৌঁছতেই তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মীরা। কালো পতাকা দেখানো হয় তাঁকে। ওঠে গো-ব্যাক স্লোগানও। পাল্টা স্লোগান তোলে তৃণমূলও। থানাতে ঢুকেই রুদ্রমূর্তি ধারণ করেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। খোয়াই থানায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাজীব সেনগুপ্ত, এসডিপিও রাজীব সূত্রধর ও ওসি মনোরঞ্জন দেববর্মাকে রীতিমতো হুঁশিয়ারির সুরে অভিষেক বলেন, 'তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে আপনি অভিযোগ দেখান। আমি এখানে বসে থাকব৷ আপনি হয় এদের থানা থেকে জামিন দিন, নয়তো জানান, অভিযোগ কী।' এরপরই সরাসরি অভিষেক বলেন, 'আপনি বিজেপির কথায় এটি করছেন।' তাঁর সুরে সুর মিলিয়েই দোলা সেন বলে ওঠেন,'আর মাত্র ১৭ মাস বাকি। কেন এখনও দালালি করছেন। বিজেপি-র দালালি ছাড়ুন।'

    থানার বাইরে তখন বিজেপি কর্মীদের জমায়েত। তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে মহামারী আইন প্রয়োগ হলে জমায়েত করা বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে কেন তা করা হবে না, সেই প্রশ্ন তোলেন অভিষেক। এমন সময় থানার মধ্যেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন যুব তৃণমূল নেতা সুদীপ রাহা। শনিবারের হামলায় মাথা ফেটে গিয়েছিল সুদীপের। সেই প্রসঙ্গ তুলে অভিষেক বলেন, 'নবীন প্রজন্মের ভবিষ্যৎ নষ্ট করছে বিজেপি সরকার।'

    Published by:Suman Biswas
    First published: