• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • ABHISHEK BANERJEE TOO WILL BE IN DELHI BEFORE MAMATA BANERJEE SB

Abhishek Banerjee in Delhi: মমতার দিল্লি-'মঞ্চের' দায়িত্বে অভিষেক! পৌঁছচ্ছেন 'দিদি'র আগেই, তৈরি প্ল্যান

যুগলবন্দি...

Abhishek Banerjee in Delhi: ২১ জুলাই তৃণমূলের শহিদ দিবস কর্মসূচি শেষ করেই, ২২ তারিখ রাজধানী দিল্লিতে পৌঁছে যাবেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: দিল্লি যাচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। চলতি মাসেই ২৫ তারিখ তাঁর রাজধানী যাওয়ার কথা রয়েছে। আর তাঁর আগেই দিল্লি পৌঁছে যাচ্ছেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee)। সূত্রের খবর, ২১ জুলাই তৃণমূলের শহিদ দিবস কর্মসূচি শেষ করেই, ২২ তারিখ রাজধানীতে পৌঁছে যাবেন অভিষেক।

প্রসঙ্গত, বাংলায় তৃতীয় বারের জন্য বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় এসেছে তৃণমূল। আর সেই জয়ের নেপথ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেমন ছিলেন প্রধান কারিগর, তেমনি অভিষেক ছিলেন রীতিমতো সেনাপতির ভূমিকায়। আর সেই জয়ের পরই অভিষেককে তৃণমূলের সর্বোচ্চ পদে বসায় তৃণমূল। তাঁকে জায়গা দেওয়া হয় তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক পদে। আর সেই পদে বসার পর প্রথম দিল্লি যাচ্ছেন অভিষেক।

সূত্রের খবর, তৃণমূলের সংগঠনের শীর্ষে বসে এবার দিল্লিতে একেবার অন্যরূপে দেখা যাবে অভিষেককে। লোকসভায় তৃণমূল নরেন্দ্র মোদি সরকারের বিরুদ্ধে পেট্রোল-ডিজেলের বিরুদ্ধে সরব হতে চলেছে। তাতে একাধারে যেমন নেতৃত্ব দেবেন অভিষেক, তেমনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সফরের আগে 'মঞ্চ' প্রস্তুতেও ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ রীতিমতো ভূমিকা নেবেন। জানা গিয়েছে, বিজেপি বিরোধী নেতাদের বেশ কয়েক জনের সঙ্গে বৈঠকও করতে পারেন অভিষেক।

এদিন মমতা বলেছেন, 'নির্বাচনের পর আমি দিল্লি যেতে পারিনি। প্রতিবারই পার্লামেন্ট চলার সময় আমি একবার যাই। কবে যাব তারিখ এখনও ঠিক করিনি। তবে যাব। সময় পেলে প্রধানমন্ত্রী-রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করব। নতুন-পুরনো অনেকের সঙ্গেই দেখা করব।' সূত্রের খবর, ২৫ জুলাই দিল্লি যাবেন তৃণমূল নেত্রী। ২০২৪-এর লক্ষ্যে এখন থেকেই সলতে পাকাতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোনিয়া গান্ধী এবং দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালেরও সঙ্গে দেখা করবেন তিনি।

এদিকে দিন কয়েক ধরেই ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর একটি একটি করে পা ফেলছেন জাতীয় রাজধানীতে। শরদ পাওয়ার এর সঙ্গে দেখা করেছেন, গান্ধি পরিবারের তিন সদস্যের সঙ্গেও বৈঠক করেছেন। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন এসবই প্রশান্ত কিশোরের ক্ষুরধার মস্তিষ্কের খেলা। পর্যবেক্ষকদের মতে, আসলে তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দূত। আর প্রশান্তের দোসর অভিষেক। সব মিলিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিল্লি যাত্রা জাতীয় রাজনীতিতে আলাদা তাৎপর্য বহন করছে।

Published by:Suman Biswas
First published: