অভদ্র, সহানুভূতিহীন! সলমনের সম্পর্কে এসব কেন বলছেন আমির খান ?

আমির বলিউডের ভদ্রলোকের মধ্যে পয়লা নম্বরের, কারও ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে তাঁকে কখনওই মন্তব্য করতে দেখা যায় না।

আমির বলিউডের ভদ্রলোকের মধ্যে পয়লা নম্বরের, কারও ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে তাঁকে কখনওই মন্তব্য করতে দেখা যায় না।

  • Share this:

#মুম্বই: সলমন খান (Salman Khan) যে এক সময়ে বেশ রগচটা স্বভাবের ছিলেন, সেই কথা শুধু বলিউড কেন, তার বাইরেও ছড়িয়ে পড়েছিল বেশ পল্লবিত হয়েই! জীবনের একটা পর্যায়ে, অন্তত সম্পর্কের ক্ষেত্রে খুব একটা বিবেচকের মতো পদক্ষেপ করতে দেখা যায়নি দেশের অন্যতম জনপ্রিয় এই নায়ককে। সে পার্টিতে সবার সামনে সোমি আলিকে (Somy Ali) চড় মারাই হোক বা ঐশ্বর্য রাই বচ্চনকে (Aishwarya Rai Bachchan) নিয়ে তুলকালাম- ব্যক্তিজীবনে বেশ কয়েকটা দাগ লেগে আছে তাঁর গায়ে। সঙ্গে রয়েছে হিট অ্যান্ড রান, কৃষ্ণসার হত্যার মতো কুখ্যাত মামলাও! সেই সবের নিরিখেই কি সলমন সম্পর্কে অভদ্র এবং সহানুভূতিহীন বিশেষণদু'টো প্রয়োগ করেছেন আমির খান (Aamir Khan)?

কথা হল, আমির বলিউডের ভদ্রলোকের মধ্যে পয়লা নম্বরের, কারও ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে তাঁকে কখনই মন্তব্য করতে দেখা যায় না। তাই সলমনের ব্যক্তিজীবন নিয়েও তিনি এই মন্তব্য কফি উইথ করণ-এ (Koffee With Karan) করণ জোহরের (Karan Johar) কাছে করেননি। আমির এই কথা বলেছেন তাঁর নিজের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে। নেপথ্যে রয়েছে রাজকুমার সন্তোষীর (Rajkumar Santoshi) ১১৯৪ সালে মুক্তি পাওয়া ছবি আন্দাজ আপনা আপনা (Andaz Apna Apna)। আমির বলেছেন যে এই ছবি করার সময়ে তিনি যখন প্রথম সলমনকে সামনাসামনি দেখেন, তখন বেশ কিছু ব্যাপারে তাঁর সলমনকে অভদ্র বলে মনে হয়েছিল। এটাও মনে হয়েছিল যে এই ব্যক্তি অন্যের প্রতি একেবারেই সহানুভূতিপূর্ণ আচরণ করতে জানেন না! তাই তিনি ছবির সেটে সলমনকে এড়িয়েই চলতেন!

যদিও সেই ধারণা যে বদলে গিয়েছিল সম্পূর্ণ ভাবে, সেটাও কফি উইথ করণ-এর সেই ২০১৩ সালের পর্বে উল্লেখ করতে ভোলেননি আমির। জানিয়েছিলেন যে যখন তাঁর প্রথম স্ত্রী রীনা দত্তার (Reena Dutta) সঙ্গে ডিভোর্সের আইনি প্রক্রিয়া চলছে, সেই সময়টা তিনি অ্যালকোহলিক হয়ে উঠেছিলেন। তাঁর মদের প্রতি আসক্তি এবং নির্ভরশীলতা বেড়ে গিয়েছিল খুব খারাপ ভাবে। এই কথা বলিউডে ছড়িয়ে পড়তেও সময় লাগেনি। এই পর্যায়েই একদিন যখন সলমনের সঙ্গে আচমকাই তাংর দেখা হয়ে যায়, সলমন যেচে আমিরের বাড়িতে আসতে চান। এর পর একদিন সন্ধ্যাবেলায় তাঁরা দু'জনে একসঙ্গে মদ নিয়ে বসেন এবং কথায় কথায় আমিরকে সম্পর্ক নিয়ে কয়েকটা গুরুত্বপূর্ণ জিনি শিখিয়ে দেন সলমন।

সলমন সে দিন ঠিক কী বলেছিলেন, তা আমির প্রকাশ করেননি। তবে এটুকু স্বীকার করে নিয়েছেন যে সে দিন সলমনের বলা কথাগুলো তাঁকে খারাপ সময়ের ভিতর থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করেছিল। তার পর থেকে আর সলমনকে তাঁর কখনই অভদ্র, সহানুভূতিহীন বলে মনে হয়নি; দু'জনের মধ্যে বেশ ভালো একটা বন্ধুত্বও গড়ে ওঠে!

Published by:Rukmini Mazumder
First published: