corona virus btn
corona virus btn
Loading

লাঠি দিয়ে ২ চাকার গাড়ি তৈরি করে মেয়ে ও গর্ভবতী স্ত্রী’কে নিয়ে ৭০০ কিমি পেরলেন শ্রমিক

লাঠি দিয়ে ২ চাকার গাড়ি তৈরি করে মেয়ে ও গর্ভবতী স্ত্রী’কে নিয়ে ৭০০ কিমি পেরলেন শ্রমিক
  • Share this:

#ভোপাল: এমন লড়াই শুধু পারেন বাবা-মায়েরাই। তাই অন্তত একটা জায়গায় পৃথিবীর সব বাবা-মায়েরা একই রকম। সন্তান স্নেহে তাঁদের থেকে বড় আর কেউ নয় । সন্তানকে এই পৃথিবীর আলো দেখানো যতই কঠিন হোক না কেন, যে কোনও পরিস্থিতিতে মা একাই সেই লড়াইয়ে নামেন। মাতৃ দিবসের সংজ্ঞা যে মা জানেন না, তিনিও সন্তানকে আগলে রাখতে কোনও অংশ কম যান না । যেমন, লকডাউনের মধ্যে বাড়ি ফিরতে মরিয়া এই বাবা-মা।

মধ্যপ্রদেশের বাসিন্দা কাজ করতে গিয়েছিলেন হায়দরাবাদে । সেখানে ভালই চলছিল তাঁদের। বাধ সাঁধল লকডাউন । কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ভিন রাজ্যে দিন যেন আর কাটছিল না। এ দিকে বাড়ি ফেরার সমস্ত পথ বন্ধ । ট্রেন, বাস কবে চালু হবে তার ঠিক নেই । পথ বলতে একমাত্র ভরসা রাস্তা । এদিকে ধনবন্তা গর্ভবতী । অন্যদিকে সঙ্গে রয়েছে আরও এক খুদে । মেয়ে অনুরাগিনী । এই অবস্থায় গর্ভবতী স্ত্রী আর ছোট মেয়েকে নিয়ে এত দীর্ঘ পথ অতিক্রম করা প্রায় অসম্ভব। তাই উপায় না পেয়ে নিজের হাতে রামু বানিয়ে ফেললেন ছোট্ট একটি গাড়ি ।

৭০০ কিমি পথ কম কথা নয় । গাড়িতে বসালেন স্ত্রী-মেয়েকে । দড়ি দিয়ে সেই গাড়ি টেনে পেরিয়ে গেলেন এতটা পথ । মঙ্গলবার বালাঘাটে নিজের বাড়িতে পৌঁছেছেন রামু । রামুকে এভাবে হাঁটতে দেখে পথের ধারে অনেক উৎসুক ব্যক্তিরাই ছবি-ভিডিও তুলতে থাকেন । কেউ কেউ এগিয়ে এসে কথাও বলেন । রামু জানান, প্রথমে মেয়েকে ওই গাড়িতে বসিয়ে এগচ্ছিলেন তিনি । কিন্তু কিছুদূর যাওয়ার পরেই স্ত্রী শরীর খারাপ হতে শুরু করে । তখন লাঠি জোড়া লাগিয়ে আরও বড় করে নেন গাড়িটা । দু’জনকেই বসিয়ে নেন তাতে ।

মহারাষ্ট্রের সীমানায় পুলিশকর্মীদের চোখে পড়েন তাঁরা । সাব-ডিভিশনাল অফিসার নীতেশ ভার্গবের তত্ত্বাবধানে ওই তিনজনকে খেতে দেওয়া হয় । অনুরাগিনীর জন্য নতুন স্লিপারও কিনে দেন পুলিশ কাকুরা । এরপর তাঁদের মেডিক্যাল পরীক্ষা হয় । তারপর তাঁদের ঢুকতে দেওয়া হয় মঝ্যপ্রদেশে । সকলকেই ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে ।

Published by: Simli Raha
First published: May 14, 2020, 12:41 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर