Coronavirus Crisis: ময়নাতদন্তের লক্ষ্যে মেয়ের দেহ কাঁধে ৭ ঘণ্টা ধরে ৩৫ কিলোমিটার হাঁটলেন বাবা! দেখুন

দেহ কাঁধে রওনা। ছবি: ট্যুইটার।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, ১৬ বছরের মেয়ের মৃতদেহ নিয়ে একটি খাটিয়ায় তুলছেন তার বাবা ও কয়েকজন গ্রামবাসী।

  • Share this:

    #ভোপাল: করোনাভাইরাসের সংকট দেশজুড়ে। এমনই পরিস্থিতিতে মেয়ের মৃতদেহ কাঁধে নিয়ে প্রায় সাত ঘণ্টা ধরে ৩৫ কিলোমিটার হাঁটলেন এক বাবা। মৃত মেয়ের দেহের ময়নাতদন্তের জন্য তাঁকে পৌঁছতে হবে হাসপাতালে। ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের সিংগ্রিউলি জেলায়।

    সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, ১৬ বছরের মেয়ের মৃতদেহ নিয়ে একটি খাটিয়ায় তুলছেন তার বাবা ও কয়েকজন গ্রামবাসী। সেভাবেই সেটি নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ৩৫ কিলোমিটার দূরের হাসপাতালে। পুলিশ সূত্রে খবর, গত ৫ মে মেয়েটি আত্মঘাতী হয়েছিল। সেই দেহ এতদিন বাড়িতেই পড়েছিল। কারণ, সেখান থেকে সেটিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য কোনও গাড়ি নেই। অভিযোগ, পুলিশ ওই গ্রামে পৌঁছেও দেহটি নিয়ে যায়নি। বাড়ির লোকেদের নির্দেশ দেওয়া হয়, দেহ নিয়ে হাসপাতালে পৌঁছে দিতে ময়নাতদন্তের জন্য।

    আর্থিক অনটনের শিকার ওই পরিবার কোনও গাড়ি ভাড়া করার সামর্থ নেই। ফলে খাটিয়ায় দেহ রেখে সেটিকে কাঁধে নিয়েই তাই পায়ে হেঁটে ৩৫ কিলোমিটারের পথ অতিক্রম করতে হয়েছে মেয়েটির বাবাকে। পুলিশের কাছে সাহায্য চেয়েও কোনও লাভ হয়নি বলেই অভিযোগ। জানা গিয়েছে, মেয়েটির বাবা ধীরাপতি সিং গোন্ড ও গ্রামের আরও কয়েকজন মিলে পায়ে হেঁটে প্রায় ৭ ঘণ্টা পর হাসপাতালে পৌঁছেছেন।

    ধীরাপতি সিং গোন্ডের কথায়, 'আমরা সকাল ৯টায় যাত্রা শুরু করেছিলাম। বিকেল ৪ টেয় হাসপাতালে পৌঁছই। কাঁধে করেই নিয়ে আসি দেহ। এখন আমরাই প্রায় অসুস্থ হয়ে পড়েছি। এত বড় সমস্যা, কেউ আমাদের কোনও সাহায্য করতে এগিয়ে আসেনি।' অন্যদিকে, পুলিশ অফিসার অরুণ সিংয়ের দাবি, দফতরের তরফে এভাবে দেহ নিয়ে আসার জন্য কোনও নিয়ম বা খরচ দেওয়া হয় না। ময়নাতদন্তের জন্য দেহ নিয়ে আসা তাই কোনও ভাবেই সম্ভব না।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: