• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • Covid 19: ফোনে এল মেসেজ, এল সার্টিফিকেট, মধ্যপ্রদেশে মৃত মানুষের টিকাকরণ, তৈরি বিতর্ক

Covid 19: ফোনে এল মেসেজ, এল সার্টিফিকেট, মধ্যপ্রদেশে মৃত মানুষের টিকাকরণ, তৈরি বিতর্ক

Madhya pradesh Vaccine Error:  পুরোষত্তমের ছেলে ফুল জানিয়েছেন, গত এপ্রিল মাসের ৮ তারিখে করোনার প্রথম ডোজের টিকা নেন তাঁর বাবা। কিন্তু ইন্দোরে চিকিৎসা চলাকালীন গত ২৪ মে তাঁর বাবার মৃত্যু হয়

Madhya pradesh Vaccine Error: পুরোষত্তমের ছেলে ফুল জানিয়েছেন, গত এপ্রিল মাসের ৮ তারিখে করোনার প্রথম ডোজের টিকা নেন তাঁর বাবা। কিন্তু ইন্দোরে চিকিৎসা চলাকালীন গত ২৪ মে তাঁর বাবার মৃত্যু হয়

Madhya pradesh Vaccine Error: পুরোষত্তমের ছেলে ফুল জানিয়েছেন, গত এপ্রিল মাসের ৮ তারিখে করোনার প্রথম ডোজের টিকা নেন তাঁর বাবা। কিন্তু ইন্দোরে চিকিৎসা চলাকালীন গত ২৪ মে তাঁর বাবার মৃত্যু হয়

  • Share this:

    #ভোপাল: তিনি প্রয়াত। বেশ কয়েকমাস আগেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। আছে ডেথ সার্টিফিকেটও। আর সেই মৃত মানুষের নামেই করোনা টিকার সার্টিফিকেট এল বাড়িতে, ফোনে এল মেসেজ  (A dead senior citizen allegedly received a message about second dose of the COVID-19 vaccine)। মৃত্যুর পর করোনা টিকা (Covid Vaccine) নেওয়া সম্ভব? মধ্যপ্রদেশের রাজগড় জেলায় ঘটে যাওয়া এই ঘটনা নিয়ে ঠাট্টা করে এমনই প্রশ্ন করছেন অনেকে। এর আগেও টিকাকরণে গাফিলতির অভিযোগ উঠেছে মধ্যপ্রদেশ সরকারের বিরুদ্ধে। সেই রাজ্যে এক ব্যক্তি দাবি করেছিলেন, তিনি টিকা পাননি, অথচ মেসেজ পেয়েছেন যে তাঁর টিকাকরণ হয়ে গিয়েছে। এ বার মরা মানুষের টিকার সার্টিফিকেট ফের সেই বিতর্ককে উস্কে দিল।

    পুরোষত্তম শাকইয়ার ৭৮ বছর বয়সে গত মে মাসে প্রয়াত হন। তাঁর ছেলে ফুল সিং শাকইয়ার জানিয়েছেন, তাঁরা ডিসেম্বরের ৩ তারিখে একটি মেসেজ পান। সেখানে লেখা ছিল পুরোষত্তম করোনার দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়ে নিয়েছেন। তাঁরা তো চমকে ওঠেন এই মেসেজে। সত্যতা যাচাই করতে তাঁরা কো-উইন অ্যাপ থেকে পুরষোত্তমের একটি সার্টিফিকেট ডাউনলোডের চেষ্টা করেন। দেখা যায়, সহজে ডাউনলোড হচ্ছে সেই সার্টিফিকেট। অর্থাৎ সরকারের হিসাব অনুসারে মৃত পুরোষত্তম মৃত্যুর পরে করোনার দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিয়েছেন।

    আরও পড়ুন: শেষ মুহূর্তে বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান? এই পদ্ধতি মেনে চললে তৎকালে পাবেন কনফার্ম টিকিট

    পুরোষত্তমের ছেলে ফুল জানিয়েছেন, গত এপ্রিল মাসের ৮ তারিখে করোনার প্রথম ডোজের টিকা নেন তাঁর বাবা। কিন্তু ইন্দোরে চিকিৎসা চলাকালীন গত ২৪ মে তাঁর বাবার মৃত্যু হয়. তার পরেও এমন ঘটনা কী করে ঘটল, তা নিয়ে বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন তিনি। ঘটনা নিয়ে জেলা প্রশাসনকে প্রশ্ন করা হলে, তারা জানিয়েছেন, কম্পিউটারের গোলমালের কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে।

    আরও পড়ুন: রিপোর্ট কার্ডে আস্থা, কলকাতাকে সাজাতে কী কী পরিকল্পনা? আজ জানাবে তৃণমূল

    জেলার টিকাকরণ আধিকারিক পিএল ভাগোরিয়া জানিয়েছেন, এই পুরো ঘটনা নিয়ে তাঁর কাছে একটি অভিযোগ জমা পড়েছে। তিনি এই বিষয়ে ইতিমধ্যে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। ব্লক স্তরে যাঁর হাত দিয়ে টিকাকরণ হচ্ছে, সেই চিকিৎসক শরদ শাহু বলেছেন, অসংখ্য মানুষের টিকাকরণর চলছে। হতে পারে, এক জনের বদলে অন্য এক জনের মোবাইল দেওয়া হয়ে গিয়েছে হয় আপডেট করার সময়, সেই কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে।

    Published by:Uddalak B
    First published: