দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

এমবিবিএস কোর্সে একই শহরের ৬ যমজ ভাই-বোনের অ্যাডমিশন, আশ্চর্য ঘটনা এই রাজ্যের

এমবিবিএস কোর্সে একই শহরের ৬ যমজ ভাই-বোনের অ্যাডমিশন, আশ্চর্য ঘটনা এই রাজ্যের

শুধু যে সকলেই যমজ সন্তান তাই বিশেষ, তা নয়। আশ্চর্য হওয়ার মতো বিষয় রয়েছে সংশ্লিষ্ট পরিবার এবং ছাত্রছাত্রীদের জীবনসংগ্রামেও।

  • Share this:

#গুজরাত: জীবনের গল্প কখনও কখনও হার মানিয়ে দেয় কল্পনাকেও। না হলে একই বছরে সাকুল্যে ৬টি যমজ অর্থাৎ ১২ জন ভাই-বোনের জুটি গুজরাতের নানা মেডিক্যাল কলেজে এমবিবিএস পড়ার জন্য ভর্তি হওয়ার ঘটনাকে আর কী বলেই বা ব্যাখ্যা করা যায়! অবশ্য, শুধু এই যমজ সন্তানের দিক থেকেই নয়, আশ্চর্য হওয়ার মতো বিষয় রয়েছে সংশ্লিষ্ট পরিবার এবং ছাত্রছাত্রীদের জীবনসংগ্রামেও।

পিঙ্কেশ বাপোদরিয়া আর প্রিন্স বাপোদরিয়ার কথা। এই দুই যমজ ভাইয়ের বাবা জয়েশ বাপোদরিয়ার উপার্জন খুব একটা বেশি নয়। সুরাতের এক গয়নার দোকানে হিরে পালিশ করেন তিনি। জয়েশ জানিয়েছেন, পরিবারের গয়না বন্ধক দিয়ে, বন্ধুদের থেকে টাকা ধার করে ছেলেদের পড়াশোনার চালিয়েছেন তিনি। প্রিন্স ফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হতে চাইলেও, তিনিই জয়েশকে মেডিক্যাল পড়ার পরামর্শ দেন। অন্য ছেলের বরাবরই মেডিক্যাল নিয়ে পড়ার ইচ্ছে ছিল। এঁদের মধ্যে প্রিন্স ভর্তি হয়েছেন জিএমইআরএস মেডিক্যাল কলেজে আর পিঙ্কেশ স্থান পেয়েছেন সুরাত মেডিক্যাল কলেজে।

প্রিন্সের মতোই জিএমইআরএস মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হয়েছেন কেনভি দোবারিয়া। আর তাঁর যমজ বোন কৃণা দোবারিয়া ভর্তি হয়েছেন পণ্ডিত দীনদয়াল উপাধ্যায় মেডিক্যাল কলেজে। তাঁদের বাবা সঞ্জয় দোবারিয়া মেয়েদের এই সাফল্যে অত্যন্ত আনন্দিত। আয়ুর্বেদিক মেডিসিন অ্যান্ড সার্জারির এই ব্যাচেলর (BMAS) কয়েক নম্বরের জন্য এমবিবিএস-এ স্থান পাননি। মেয়েরা এ বার তাঁর স্বপ্ন পূরণ করছেন!

দেশের পক্ষে এক বড় দৃষ্টান্ত দুই বোন জাহ্নবী আর জানকী মিঠাপারা। জানকী ভর্তি হয়েছেন গোতরির জিএমইআরএস মেডিক্যাল কলেজে আর জাহ্নবী এমপি শাহ গভর্নমেন্ট মেডিক্যাল কলেজে। এই দুই বোন কারও কাছে পড়েননি। স্রেফ নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেই তাঁরা পড়াশোনা চালাতেন, এ বার শুরু করলেন এমবিবিএস-এর পড়া। গয়নার দোকানে হিরে পালিশ করার কাজের সঙ্গে যুক্ত বাবা শৈলেশ মিঠাপারার সাফ বক্তব্য- দরকারে অতিরিক্ত পরিশ্রম করে মেয়েদের পড়ার খরচ জোগাবেন!

লেবার কনট্র্যাকটর জয়েশ খাতরার মনে অবশ্য সন্দেহ ছিল- তাঁর ছেলে দেবাংশ এমবিবিএস পড়ার সুযোগ পাবেন কি না! বাবাকে নিরাশ করেননি ছেলে। তিনি আর বোন দেবাংশি দু'জনেই এমবিবিএস পড়তে ভর্তি হয়েছেন। দেবাংশি জিসিএস মেডিক্যাল কলেজে স্থান পেয়েছেন আর দেবাংশ পড়ছেন কে শাহ মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারে।

রাহিল তালাতি আর রুশিল তালাতি-এই দুই যমজ ভাইয়ের ভাগ্য অবশ্য বেশ ভালো। অন্যদের মতো এঁরা আলাদা আলাদা কলেজে ভর্তি হননি। দুই ভাই একসঙ্গেই ক্লাস করবেন এনএইচএল মিউনিসিপাল মেডিক্যাল কলেজে। তেমনই দিব্যা প্রজাপতি আর দিশা প্রজাপতি একসঙ্গে ভর্তি হয়েছেন হিম্মতনগরের জিএমইআরএস মেডিক্যাল কলেজে।

Published by: Shubhagata Dey
First published: December 7, 2020, 6:24 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर