৪৮০০০ কোটি টাকায় বায়ুসেনার ৮৩টি অত্যাধুনিক তেজস, রায় মোদি ক্যাবিনেটের

৪৮০০০ কোটি টাকার চুক্তিতে স্বাক্ষর, বায়ুসেনায় যোগ দিচ্ছে ৮৩টি অত্যাধুনিক তেজস

ক্যাবিনেট কমিটি অন সিকিউরিটি (সিসিএস) বুধবার ৮৩টি লাইট কমব্যাট এয়ারক্রাফ্ট তেজস কেনার অনুমোদন দিল৷ হিন্দুস্তান অ্যারোনটিকস লিমিটেড-এর (হ্যাল) থেকে তেজস মার্ক ওয়ান সংস্করণের যুদ্ববিমানগুলি কিনতে কেন্দ্রের খরচ হবে ৪৮০০০ কোটি টাকা৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: এবার মাঝ আকাশে শাসন করবে ভারতে তৈরি যুদ্ধবিমান৷ সুরক্ষা সম্পর্কিত কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা বা ক্যাবিনেট কমিটি অন সিকিউরিটি (সিসিএস) বুধবার ৮৩টি লাইট কমব্যাট এয়ারক্রাফ্ট (এলসিএ) তেজস  কেনার অনুমোদন দিল৷ হিন্দুস্তান অ্যারোনটিকস লিমিটেড-এর (হ্যাল) থেকে তেজস মার্ক ওয়ান সংস্করণের যুদ্ববিমানগুলি কিনতে কেন্দ্রের খরচ হবে ৪৮০০০ কোটি টাকা৷ দেশীয় সামরিক বিমান সেক্টরে এর আগে এত বড় অঙ্কের চুক্তি হয়নি৷ এদিন ট্যুইট করে বিরাট ঘোষণা করে দিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং৷

    গতবছর মার্চেই প্রতিরক্ষা অধিগ্রহণ কাউন্সিল ৮৩টি তেজস মার্ক ১এ সংস্করণ কেনায় ছাড়পত্র দিয়েছিল৷ শুধু প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন সিসিএস-এর সবুজ সঙ্কেতের অপেক্ষা ছিল এতদিন৷ এদিন রাজনাথ সিং ট্যুইটে লিখলেন যে, "প্রতিরক্ষা উৎপাদনের ক্ষেত্রে ভারতের আত্মনির্ভরতা 'গেম চেঞ্জার' হতে চলেছে এলসিএ-তেজস৷ আইএএফ-এর যুদ্ধবিমানের মেরুদণ্ড হবে আগামী দিনে৷ এলসিএ-তেজসে একাধিক নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার হয়েছে, যা আগে কখনও ভারতে চেষ্টা করে দেখা হয়নি৷ এলসিএ-তেজসে ৫০ শতাংশ দেশীয় উপাদান রয়েছে৷ সেখানে এমকে এওয়ান সংস্করণে থাকবে ৬০ শতাংশ দেশীয় উপাদান৷"

    সিং আরও জানিয়েছেন যে, ইতিমধ্যেই হ্যাল নাসিক ও বেঙ্গালুরুতে এই যুদ্ধবিমান তৈরির কাজ শুরু করে দিয়েছে৷ আগের চুক্তি অনুযায়ী ৪০টি কমব্যাট এয়ারক্রাফ্ট কেনার পাশাপাশি দেশে তৈরি জেট বিমানও ভারতীয় বায়ুসেনায় আগামী ছয় থেকে সাত বছরের মধ্যে ঢুকে যাবে৷ এর জন্য সিসিএস অনুমোদন দিয়েছে৷ মনে করা হচ্ছে আগামী মাসে এয়ারো ইন্ডিয়া ডিফেন্স একপ্রোর মধ্যেই চুক্তি হয়ে যাবে৷

    তেজস মার্ক এওয়ান যু্দ্ববিমানগুলিতে ৪৩টি পরিবর্তন দেখা যাবে শুরুর দিকের তেজসের থেকে৷ পরিচালন ক্ষমতা বাড়ানোর জন্যই রক্ষণাবেক্ষণ আরও সহজ করা হয়েছে৷ ইলেকট্রনিক স্ক্যান র‍্যাডার, ইলেকট্রনিক ওয়ারফেয়ার স্যুটের সঙ্গেই বিয়ন্ড-ভিজুয়াল রেঞ্জ দূরপাল্লার মিসাইল নিক্ষেপের ক্ষমতাও থাকছে৷ বায়ুসেনার পরিকল্পনা রয়েছে আগামী দিনে একদম দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি তেজসকেই আপন করার৷

    ২০১৪ সালে ভারত ১১৪টি জেট বিমান কেনার জন্য ১৫বিলিয়ন ডলারের দরপত্র দিয়েছিল৷ ভারতকে বিক্রি করতে আগ্রহী ছিল মার্কিনি সংস্থা বোয়িং, লকহিড মার্টিন ও সুইডেনের সাব এবি৷ কিন্তু ভারত দামি বিদেশি বিমান কেনার থেকে দেশি বিমান নেওয়ার দিকেই ঝুঁকছে৷

    আগেই চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত জানিয়ে ছিলেন যে, পুরনো দিনের বিমানগুলিকে সরিয়ে ভারত সামরিক সজ্জায় নতুন বিমানকে ঠাঁই দেবে৷ কিন্তু দেশে তৈরি বিমান নিয়েই মাইলস্টোন লেখার কথা বলেন তিনি৷ মোদির ভারত 'লোকাল ফর ভোকাল' মন্ত্রেই আত্মনির্ভর হচ্ছে ধীরে ধীরে৷

    Published by:Subhapam Saha
    First published: