corona virus btn
corona virus btn
Loading

রাস্তার কুকুর ছিঁড়ে খেল ছ'বছরের শিশুকে! পাঁচ হাসপাতাল চিকিৎসা না করে ফেরানোয় ঢলে পড়ল মৃত্যুর কোলে

রাস্তার কুকুর ছিঁড়ে খেল ছ'বছরের শিশুকে! পাঁচ হাসপাতাল চিকিৎসা না করে ফেরানোয় ঢলে পড়ল মৃত্যুর কোলে
প্রতীকী ছবি

রাস্তার কুকুরদের হিংস্রতায় ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় ছ'বছরের ছোট্ট শিশুর শরীর ।

  • Share this:

#তেলেঙ্গানা: বাড়ির সামনে রাস্তায় খেলা করছিল মেয়ে । রোজই যেমন খেলে , তাই বাবা-মা খেয়াল করেননি । কিন্তু তার যে এমন ভয়াবহ পরিণতি হবে, তা কেউ ভাবতেও পারেনি । রাস্তার কুকুরদের হিংস্রতায় ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় ছ'বছরের ছোট্ট শিশুর শরীর ।

এখানেই শেষ হয় । অমানবিকতার চূড়ান্ত নিদর্শনও এখানে স্পষ্ট । অভিযোগ, রক্তাক্ত অবস্থায় গুরুতর আহত মেয়েকে নিয়ে তাঁর বাবা-মা পাঁচটি হাসপাতালে ঘুরলেও মেলেনি চিকিৎসা । শেষে মারা যায় শিশুটি । শনিবার সকালে ঘটনাটি ঘটে তেলঙ্গানার মেডচল মালকাজগিরি জেলায় । শিশুর পরিবারের তরফে জানা গিয়েছে, এদিন বাড়ির সামনে খেলে করছিল সে । সেই সময়ই রাস্তায় শুয়ে থাকা বেশ কয়েকটি কুকুর কোনও কারণে হঠাৎই হিংস্র হয়ে ওঠে । ঝাঁপিয়ে পড়ে শিশুটির ওপর । দেখতে পেয়ে তৎক্ষণাৎ ছুটে আসেন এলাকাবাসী । সকলের তৎপরতায় কোনওরকমে তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় । কিন্তু চিকিৎসার গাফিলতির জেরে শেষরক্ষা হয়নি ।

এদিন প্রথমে তাঁকে স্থানীয় আদিত্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় । অভিযোগ, ঘণ্টা দু'য়েক বিনা চিকিৎসায় রাখার পর অবস্থার অবনতি হলে শিশুটিকে অঙ্কুর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ । এরপর অঙ্কুর হাসপাতালে তিন ঘণ্টা পড়েছিল সে । সেখান থেকে অঙ্কুর কর্তৃপক্ষ তাঁকে যশোদা হাসপাতালে পাঠান । কিন্তু সেখানে তাঁকে ভর্তি নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ । এরপর যথাক্রমে তাঁকে ফিভার হাসপাতালে এবং নিলফার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় । কিন্তু নিলোফারে নিয়ে যাওয়ার আগেই এদিন বিকালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে সে ।

ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে শিশু সুরক্ষা কমিশন । বদুপল মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের কাছে তাঁরা ঘটনার কড়া শাস্তির দাবি জানিয়েছে । চাইল্ড রাইটস অ্যাক্টিভিস্ট অচ্যুত রাও অভিযোগ করেন, শিশুটির চিকিৎসা তো করা হয়নি, উল্টে তাঁদের কোনও সাহায্য পর্যন্ত করেনি স্থানীয় প্রশাসন । এরপর অবশ্য মিউনিসিপ্যাল কমিশনার শঙ্কর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়ে জানান ।

Published by: Shubhagata Dey
First published: May 31, 2020, 2:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर